রবিবার, এপ্রিল ২, ২০২৩

রাষ্ট্রীয় সফরে মিশরে যাচ্ছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

গত এক দশকেরও বেশি সময় পর মিশর সফর করার ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগ্লু। একে দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে নতুন অধ্যায়ের সূচনা বলে ধরা হচ্ছে কারণ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন, দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক পুনর্গঠনের পূর্বে মন্ত্রীদের মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। এ সফরে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শৌকরির মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

শুক্রবার (১৭ মার্চ) তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, এক দশকেরও বেশি সময়ের পর প্রথম উচ্চ-পর্যায়ের সফর হতে যাচ্ছে এটি। এ সফরে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হবে। পাশাপাশি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতেও মতবিনিময় করা হবে।

অন্যদিকে মিশরের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমেদ আবু জায়েদ জানান, তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কায়রো সফরের অন্যতম উদ্দেশ্য হবে উভয় দেশের মধ্যকার সম্পর্ক পুনরায় স্বাভাবিক করা। এছাড়াও দুই দেশের জনগণের স্বার্থ অর্জনের জন্য একটি সমঝোতায় পৌঁছানো।

গত বছর কাতারে ফুটবল বিশ্বকাপের সময় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান ও মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দুল ফাত্তাহ আল সিসি করমর্দন করেন। সেখানে তারা প্রায় ৪৫ মিনিটের একটি বৈঠক করেন।

এছাড়াও গত ফেব্রুয়ারি মাসে তুরস্ক সফর করেন মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শৌকরি। এ সফরে বৈঠকের পর তিনি বলেন, আমরা অধীর আগ্রহে তুরস্কের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের পথ খুঁজছি।

উল্লেখ্য, মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট শহীদ ড. মুহাম্মাদ মুরসিকে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত করে সেনাবাহিনী। হাজার হাজার মানুষ এর প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে আসলে সামরিক জান্তা সরকার নির্বিচারে গুলি চালায় জনতার ওপর। ইসলামপন্থী সাধারণ জনতার উপর চড়াও হয় বর্তমান প্রেসিডেন্ট আস-সিসি। এসব ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করেন এরদোগান। ফলস্বরূপ তুরস্ক ও মিশরের সম্পর্কের ব্যাপক অবনতি হয়েছিল।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img