বুধবার, জানুয়ারি ১৯, ২০২২

প্রচণ্ড তুষারপাতে বিপর্যস্ত আমেরিকার টেক্সাস রাজ্য এখন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে!

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


প্রচন্ড তুষারপাতে বিপর্যস্ত আমেরিকার দ্বিতীয় বৃহৎ অঙ্গরাজ্য টেক্সাস। রেকর্ড পরিমাণ সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ফলে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে অঙ্গরাজ্যটির প্রায় সব অবকাঠামো।

অবকাঠামোগত ক্ষতির ফলে বিদ্যুৎ বিহীন অন্ধকার ভুতুড়ে নগরীতে পরিণত হয়েছে তেল নির্ভর বৃহৎ অঙ্গরাজ্যটি। প্রচণ্ড ঠান্ডায় সবকিছু জমে গিয়ে বিদ্যুৎ, পানি ও তাপ ব্যবস্থার সরবরাহ না থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে সেখানকার লক্ষ লক্ষ জনগণ।

আয়তনে ফ্রান্সের চেয়েও ১০ শতাংশ বড় এই নগরীর ডালাস শহর কর্তৃপক্ষের তথ্যানুযায়ী সেখানকার তাপমাত্রা রবিবার এক ঝটকায় মাইনাস ১৯°(-২এফ) কমে যায়।

সেখানকার এক যুবকের ভাইরাল হওয়া ভিডিও বার্তায় তাকে উত্তপ্ত ঘরের সন্ধান দেওয়ার আকুতি জানাতে দেখা যায়।

তার ভাষ্যমতে, ১০টি জ্যাকেট গায়ে চাপানোর পরেও ঠান্ডার হাত থেকে বাঁচতে আর কিছু করার ক্ষমতা তার আছে কিনা তা তার জানা নেই। তাই কেউ যদি তাকে তাপ ব্যবস্থা সম্পন্ন ঘরের সন্ধান দেয় তবে সে তৎক্ষনাৎ সেখানে পৌঁছে যেতে চায়।

তাছাড়া, তেল নির্ভর নগরী হওয়ায় জ্বালানি সংকটের কারণে প্রায় সকল শিল্প প্রতিষ্ঠান মারাত্মক হুমকির পরেছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগে সৃষ্ট বিদ্যুৎ সংকটের কারণে টেক্সাসকে ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে নেওয়া পদক্ষেপ সম্পর্কে দেওয়া গভর্নর গ্রেগ অ্যাবটের বক্তব্য থেকে জানা যায়, টেক্সাসকে বাঁচাতে টেক্সাসের সমস্ত পাওয়ার গ্রিডের মাঝে সমন্বয় করা হয়েছে, নিউক্লিয়ার, বায়ু ও সৌর বিদ্যুৎ এমনকি গ্যাস ও কয়লা নির্ভর বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর মাঝেও!

তাছাড়া খোদ টেক্সাসের বিভিন্ন ধরনের বিশাল বিশাল নিজস্ব বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র থাকার পরেও বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যহত হওয়ার প্রভাব মারাত্মক আকার ধারণ করাই আত্মপক্ষ সমর্থন করতে বাধ্য হোন কেন্দ্রগুলোর প্রধানরা।

তাদের অন্যতম ইআরসিটির বিল ম্যাগনেস আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেন, আমি মনে করি না যে আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতায় কোনো ঘাটতি আছে। তবে সমস্যা দেখা দিয়েছে বড় ধরণের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার ফলে সক্ষমতা অকার্যকর হয়ে যাওয়ায়। আর সেই একই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার প্রভাব গ্যাস সরবরাহে গিয়েও পরেছে যার ফলশ্রুতিতে চাপ পরেছে লোডেও!

অপরদিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে থাকা টেক্সাস ও তার নাগরিকদের রেখে সেখানকার সিনেটর টেড ক্রুজ পারিবারিক অবকাশ যাপনের জন্য ক্যানকুনে চলে যেতে উদ্যত হলে চরম সমালোচনার মুখে পরেন।

উল্লেখ্য, প্রাকৃতিক শক্তির কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হচ্ছে বিশ্ব পরাশক্তি আমেরিকা, অথচ তারা উন্নত আবহাওয়া যন্ত্র ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তির অধিকারী!

সূত্র: আল জাজিরা

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img