বুধবার, মে ৩১, ২০২৩

”ফিলিস্তিনিদের সালতামামি”

দশকের পর দশক ধরে ফিলিস্তিনিদের ওপর নৃশংসতা চালিয়ে যাচ্ছে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল। দিনকে দিন আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে এই নৃশংসতা। প্রতিনিয়ত ইজরায়েলের সামরিক বাহিনী ও বসতি স্থাপনকারীদের হামলায় প্রাণ হারাচ্ছে নিরস্ত্র ফিলিস্তিনের নারী-পুরুষ, বৃদ্ধ ও শিশুরা। জাতিসংঘের মতে ২০০৫ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে ফিলিস্তিনিদের জন্য সবচেয়ে মারাত্মক বছর ছিল এটি। কেন বছরটিকে ভয়াবহ বলা হচ্ছে, কী ঘটেছে বছরজুড়ে চলুন দেখে নেওয়া যাক একনজরে।

(এক) : হত্যা ও গ্রেফতার 

ফিলিস্তিনি প্রিজনার্স ক্লাব (পিপিসি) দ্বারা গত নভেম্বর মাসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী ২০২২ সালে ৩,০০০ এরও বেশি ফিলিস্তিনিকে গ্রেপ্তার করেছে। যার মধ্যে ১৮২৯ জনকে ‘প্রশাসনিক আটক’ দেখানো হয়েছে। এই গ্রেফতার অভিযানকে তারা “ব্রেকিং ওয়েভস” বলে অভিহিত করেছে।

এই বছরে ৩৩ জন শিশুসহ দখলকৃত পশ্চিম তীরে ১৫০ জনেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে
দখলকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী প্রায় প্রতিটি রাতেই অভিযান পরিচালনা করেছে।

ইসরায়েল দাবি করেছে যে তারা গোয়েন্দা কার্যক্রমের উদ্দেশ্যে তা পরিচালনা করেছে। তবে বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন গুলি রাতের এ অভিযানের নিন্দা জানিয়ে বলেছে, “ফিলিস্তিনি জনগণকে এর মাধ্যমে নিপীড়ন ও ভয় দেখানো হচ্ছে।”

(দুই) : সাংবাদিক হত্যা

গত ১১ মে আল–জাজিরার সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহকে জেনিনের শরণার্থীশিবিরে সেনাদের অভিযানের খবর সংগ্রহ করার কারণে গুলি চালিয়ে হত্যা করে ইসরায়েলি বাহিনী। যা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়।

এখানেই তাদের বর্বরতা থেমে থাকেনি।শিরিন আকলেহকে সম্মান জানাতে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি তার শেষকৃত্যে অংশ নেন। কিন্তু পূর্ব জেরুজালেমে তার শেষকৃত্যেও হামলা চালায় ইসরায়েলি বাহিনী।

(তিন) : ফিলিস্তিনিদের বসতি উচ্ছেদ ও ভূমি দখল

ফিলিস্তিনে পরিচালিত ল্যান্ড রিসার্চ সেন্টারের বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২২ সালে ইসরায়েলি বাহিনী দখলকৃত পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে অবৈধ ইহুদি-বসতি সম্প্রসারণের উদ্দেশ্যে ফিলিস্তিনিদের ৯৫০ টি বাড়ি ধ্বংস করেছে। ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের ১১৩ বর্গ কিলোমিটারেরও বেশি জমি দখল করেছে।

ফিলিস্তিনের ভূমিতে দখলদার ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ ইহুদিদের জন্য ১১৪ টি নতুন বাড়ি স্থাপনের পরিকল্পনা জারি করেছে যার মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে।

(চার) : আল আকসা মসজিদ নিয়ে ষড়যন্ত্র 

জেরুজালেমের ইসলামিক ওয়াকফ বিভাগ জানিয়েছে, ২০২২ সালে ৪৮,০০০ এরও বেশি ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীরা মুসলিমদের পবিত্র স্থান আল-আকসা মসজিদের আইন লংঘন করে সেখানে প্রবেশ করেছে। ইসরায়েলি সৈন্যরা মসজিদটিকে একটি সামরিক ব্যারাকে পরিণত করেছিল। চরমপন্থী ইহুদি গোষ্ঠীগুলি মসজিদের আঙ্গিনায় ইহুদি প্রার্থনা, সেজদা, তালমুদিক আচার-অনুষ্ঠান, মন্ত্র, নাচ-গানের পাশাপাশি ইসরায়েলি পতাকা উত্থাপন করেছিল। মসজিদ প্রাঙ্গনে বসতি স্থাপনকারীরা এরকম উস্কানিমূলক আচরণের মাধ্যমে মুসলিমদের উস্কে দিয়ে এই অঞ্চলে একটি ধর্মীয় যুদ্ধের আহ্বান জানাচ্ছে।

(পাঁচ) : শিশু নির্যাতন

ফিলিস্তিনের বন্দি ও প্রাক্তন বন্দি বিষয়ক কমিশন জানিয়েছে, ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল ২০২২ সালের শুরু থেকে জেরুজালেমের ৬০০ জন ফিলিস্তিনি শিশুকে গৃহবন্দী করেছে যাদের বয়স ১৪ বছরের কম। দখলদার কর্তৃপক্ষ এসব শিশুদের শাস্তির মাধ্যম হিসাবে ‘গৃহবন্দী নীতি’ বেছে নিয়েছে। গৃহবন্দী অবস্থায় ফিলিস্তিনি নাবালকদের গোড়ালিতে জিপিএস মনিটর পরতে বাধ্য করা হচ্ছে।

একজন কর্মকর্তা ছাড়া তাদের স্কুল, এমনকি ক্লিনিকেও যেতে দেওয়া হচ্ছে না। কিছু শিশুকে তাদের পিতা-মাতা থেকে আলাদা করে দেয়া হচ্ছে। শিশুদের শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এসব কারণে শিশুদের মনে ক্রমাগতভাবে উদ্বেগ, ভয় ও বঞ্চনার একটি অনুভূতি সৃষ্টি করেছে। যার জন্য এসব শিশুদের মাঝে মানসিক অস্থিরতা, অনিচ্ছাকৃত প্রস্রাব ও অত্যধিক স্নায়ুবিক দুর্বলতা পরিলক্ষিত হচ্ছে।

(ছয়) : বসতি স্থাপনের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা 

ইসরাইলী দৈনিক পত্রিকা হারেৎজের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসরাইলের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ১৯৯৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত জেরুজালেমের ১৩ হাজার ফিলিস্তিনি বাসিন্দাদের বসবাসের অনুমতি দিতে অস্বীকার করেছে। ইহুদিবাদী দখলদার কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে, এই ফিলিস্তিনিরা আর জেরুজালেমে বসবাস করতে পারবে না। তাদের বিদেশে অথবা পশ্চিম তীরে চলে যাওয়া উচিত।

(সাত) : ফসল ধ্বংস 

২০২২ সালে ইসরায়েলি বাহিনী ১৮ হাজার ৯০০ টি গাছ অগ্নি সংযোগের মাধ্যমে ধ্বংস করেছে। যার বেশিরভাগই জলপাই গাছ। ৩.৭ বর্গ কিলোমিটার জমি ও চারণভূমি ধ্বংসস্তূপে পরিণত করার পাশাপাশি প্রায় ৬৬ টি জলকূপ বন্ধ করে দিয়েছে।

(আট) : লুটপাট

পশ্চিম তীরের ইয়াবাদের কাছে নির্মিত অবৈধ মেভো ডোটান বসতির ইহুদিরা প্রায়ই জেনিন শহরের রাখালদের ভেড়া ও গরু চুরি করে নিয়ে যায়। জর্ডান উপত্যকাতেও এদের লুটপাট চলমান রয়েছে। সম্প্রতি সেখান থেকে এক দারিদ্র্য রাখালের ১২০টি ভেড়া ইহুদিরা চুরি করে নিয়ে গেছে বলে জানা যায়।

(নয়) : রাস্তাঘাটে শারীরিকভাবে হেনস্তা করা

মান নিউজ এজেন্সির এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, তেল রুমেদা চেকপয়েন্টে দখলদার ইসরায়েলিদের দ্বারা পুরুষ, মহিলা ও শিশুরা হয়রানির শিকার হচ্ছে। ইসরায়েলি কর্মকর্তারা চেকপয়েন্টটি অতিক্রম করার সময় সমস্ত লোককে তাদের পোশাক খুলতে বাধ্য করছে।

(দশ) উগ্র ডানপন্থীদের উত্থান 

২০২২ সালে পঞ্চম পার্লামেন্ট নির্বাচনের মাধ্যমে ইসরাইলে গঠিত হয়েছে ৭৪ বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে উগ্র ডানপন্থী সরকার। লিকুদ পার্টি থেকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। নির্বাচনী ফলাফলে তৃতীয় বড় জোট হিসেবে উত্থান ঘটেছে ইতামার বেন–গিভিরের নেতৃত্বাধীন জিউয়িস পাওয়ার পার্টির। পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের অবৈধ ইহুদি বসতি আরও জোরেশোরে চালিয়ে নেওয়ার অভিপ্রায়ের কথা প্রকাশ্যে ঘোষণা করেছেন তাঁরা।

তথ্যসূত্র: দি প্যালেস্টানিয়ান ইনফরমেশন সেন্টার, আল-জাজিরা, মিডল ইস্ট মনিটর, পার্সটুডে, আল ওয়াফা নিউজ এজেন্সি, দি প্যালেস্টানিয়ান ইনফরমেশন সেন্টার, জেরুজালেম ইসলামিক ওয়াকফ বোর্ড, হারেৎজ, ল্যান্ড রিসার্চ সেন্টার ফিলিস্তিন, ফিলিস্তিনি প্রিজনার্স ক্লাব (পিপিসি)।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img