বুধবার, জুন ১৬, ২০২১

নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর পর্যটন নিশ্চিত করে পর্যটকদের স্বাগত জানাতে পদক্ষেপ নিয়েছে তুরস্ক

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


পর্যটকদের স্বাগত জানাতে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করার পথে তুরস্ক। নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর পর্যটন নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে যাবতীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুদ চাভুশওগলু।

বৃহস্পতিবার (৬ মে) জার্মানির রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতাকালে তিনি একথা বলেন।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাসের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত সেই সংবাদ সম্মেলনে চাভুশওগলু বলেন, কোভিড-১৯ প্রতিরোধে তুর্কী পর্যটন খাতে কাজ করা সকলকে অচিরেই করোনার ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে।

দেশটির ২৬ শতাংশ জনগণকে করোনা ভ্যাকসিনের ডোজ দেওয়া শেষ হয়েছে বলে জানান তিনি।

তাছাড়া, তুর্কী পর্যটন কর্তৃপক্ষ নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর আবাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পর্যটকদের আবাসন সুবিধায় আরো কড়াকড়ি আরোপ করে শংসাপত্রের নতুন মানদণ্ড তৈরি করেছে বলেও জানা যায়।

চাভুশওগলু বলেন, নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর পর্যটন নিশ্চিতে কর্মীদের প্রশিক্ষণ অব্যাহত রয়েছে। তাছাড়া গত বছর প্রতি মাসে দু’বার করে জার্মানী, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সসহ আমাদের তুরস্কের সংস্থাগুলো পর্যটন ও আবাসন কর্মীদের পর্যবেক্ষণে আসতো। কিন্তু এবছর তারা প্রতি মাসে চারবার করে নতুন মানদণ্ড অনুযায়ী তাদের পরখ করে দেখছে।

মুগলা, আনাতোলিয়া ও ইজমিরের মতো পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে সুরক্ষা ব্যবস্থা বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিমানবন্দর, হাসপাতাল ও হোটেলগুলোতে পিসিআর টেস্ট অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

চাভুশওগলু বলেন, এবছর বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের করোনাকালীন পরিস্থিতি অনেক খারাপ হওয়া সত্ত্বেও নিরাপদ পর্যটনের দিক থেকে তুরস্ক তুলনামূলক ভালো অবস্থানে আছে।

অপরদিকে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের জনগণের স্বাভাবিক পরিবেশে ফিরে যাওয়ার যে আশা ও আকাঙ্খা রয়েছে তা সম্পর্কে জার্মান সরকার অবগত। তাই করোনা প্রতিরোধের যাবতীয় পন্থা অবলম্বন করে ভ্রমণকে সহজতর করার উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা করছে সরকার।

তিনি বলেন, করোনাকালীন উপযুক্ত পদ্ধতি অবলম্বন করে এবছরের গ্রীষ্মকালীন ছুটিকে কার্যকরী রূপ দিতে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করবো।

জার্মানি ও তুরস্কে করোনায় সংক্রমণের হার কমে যাওয়া এবং ভ্যাকসিন কর্মসূচিতে দেশ দুটির অগ্রগতিকে তিনি স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরে যাওয়ার জন্য ইতিবাচক উন্নয়ন হিসেবে দেখছেন বলে জানান।

পরিশেষে বার্লিন ও আঙ্কারার মাঝে ভ্রমণকে সহজতর করার লক্ষ্যে গতবছর সেফ ট্রাভেল করিডরের যে চুক্তি সম্পাদিত হয়েছিলো তা স্মরণ করিয়ে দিয়ে হেইকো মাস বলেন, সম্পাদিত চুক্তিটির কাঠামো বাস্তবায়নে জার্মানি এবছরও তুরস্কের সাথে আলোচনা অব্যাহত রাখবে।

সূত্র: ইয়েনি শাফাক

spot_imgspot_img
spot_img

আরও