ইন্তেকাল করেছেন জমজম কূপে প্রবেশের বিরল সুযোগ অর্জনকারী ড. ইয়াহইয়া

সংস্কারের জন্য পবিত্র জমজম কূপের নেমে পানি প্রবাহের উৎসস্থল দেখার সৌভাগ্য অর্জনকারী প্রকৌশলী ড. ইয়াহইয়া হামজা কোসাক ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না লিল্লাহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর।

সোমবার (১ মার্চ) বিকেলে সৌদি আরবে তিনি ইন্তেকাল করেন।

জানা যায়, ১৯৭৯ সালে বাদশাহ খালিদ বিন ফয়সালের শাসনামলে প্রকৌশলী ড. ইয়াহইয়া হামজা কোসাকের নেতৃত্বে জমজম কূপ সংস্কার ও পরিষ্কার করা হয়। আধুনিক ইতিহাসে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে তিনি কূপটিতে প্রবেশ করেন। এর পর আরও কেউ কূপে প্রবেশ করেননি।

১৯৭৯ সালের জমজম কূপ পরিষ্কারকরণ প্রকল্পটি ছিল ইতিহাসের অন্যতম বৃহৎ পরিষ্কারকরণ প্রকল্প। এ প্রকল্পের প্রধান লক্ষ্য ছিল জমজম কূপের পানি প্রবাহ স্বাভাবিক করতে জঞ্জাল অপসারণ করা, এই সংস্কারের কারণে জমজম কূপের পানির প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়েছিল। ওই সময়, তিনি ও তার দল জমজম কূপকে অতিবেগুনী রশ্মি দিয়ে জীবাণুমুক্ত করেন।

জমজম কূপের পানির প্রবাহধারা ও পরিচ্ছন্নতার ওপর তিনি ‘Zamzam: The Holy Water’ নামে একটি বই রচনা করেন। ওই বইয়ে তার দেখা জমজম কূপের অভ্যন্তরের বিবরণ স্থান পেয়েছে। সেখানে তিনি পবিত্র এই কূপের প্রত্নতাত্বিক সব বিষয় তুলে ধরেছেন।

প্রকৌশলী ইয়াহইয়া জানিয়েছিলেন, জমজম কূপের মধ্যে তিনি পানির দু’টি উৎস দেখেছিলেন। যার একটি এসেছে কাবার দিক থেকে আর একটি এসেছে আজিয়াদের দিক থেকে। জমজম কূপের পানি চমৎকার স্বাদযুক্ত এবং রোগ প্রতিরোধক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *