শনিবার, জুলাই ২, ২০২২

সমুদ্রসীমা পুনঃনিশ্চিতসহ তুরস্ক ও লিবিয়ার মাঝে উন্নয়নমূলক পাঁচটি চুক্তি সই

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


দ্বিপক্ষীয় সম্মতির ভিত্তিতে সম্পাদিত ২০১৯ সালের সমুদ্রসীমা চুক্তি পুনঃ নিশ্চিত করণসহ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নের লক্ষ্যে বেশ কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে তুরস্ক এবং লিবিয়া।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) আঙ্কারায় লিবিয়া-তুরস্ক কৌশলগত সহযোগিতা কাউন্সিলের একটি বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে দেশ দু’টির সরকার মোট পাঁচটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

জানা যায়, এই পাঁচটি চুক্তি উত্তর আফ্রিকার দেশটিতে স্থাপনা পুনর্গঠন, শিক্ষার প্রসার, শক্তি-সামর্থ্য বৃদ্ধি এবং মিডিয়ার বিকাশে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

চুক্তিগুলির মধ্যে রয়েছে, নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, ত্রিপলি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে একটি নতুন প্যাসেঞ্জার লাউঞ্জ, রাজধানীর প্রাণকেন্দ্রে একটি শপিং সেন্টার স্থাপনের পরিকল্পনা এবং দুই দেশের মাঝে কৌশলগত মিডিয়া সহযোগিতা।

অপরদিকে পুরো লিবিয়া জুড়ে পুনর্নির্মাণ প্রকল্পে তুর্কি ফার্ম হাউসগুলোর সর্বাধিক ভূমিকা থাকবে বলে তুর্কী প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানকে আশ্বস্ত করেন লিবিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবদুল হামিদ দাবিবাহ।

তাছাড়া, আঙ্কারায় সফরকালে প্রধানমন্ত্রী দাবিবাহ এবং প্রেসিডেন্ট এরদোগান ২০১৯ সালে সম্পাদিত দ্বিপক্ষীয় সমুদ্রসীমা চুক্তি পুনঃনিশ্চিত করেন যা মিশর ও গ্রীসের জন্য আগে থেকেই মাথাব্যথার কারণ ছিলো।

উল্লেখ্য, গত বছরের এপ্রিল থেকে তুরস্ক লিবিয়ার আন্তর্জাতিক স্বীকৃত সরকারের পক্ষ নিয়ে বিদ্রোহী খলিফা জেনারেল হাফতারের বিরুদ্ধে সরাসরি রাজনৈতিক ও সামরিক সহায়তা দিয়ে আসছিলো।

গত বছরের মার্চে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী সরকার ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় দেশটিতে প্রথমবারের মতো শপথ গ্রহণ করে জাতীয় ঐক্যের সরকার।

গত কয়েক বছর ধরে লিবিয়ার বৈধ সরকারকে সমর্থন এবং শান্তি প্রক্রিয়ায় সহায়তার কারণে দেশটির পুনরুত্থান যজ্ঞের প্রধান ভূমিকা পালনকারীর আসনে এখন তুরস্ক।

এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি লিবিয় সরকারের চাহিদা মোতাবেক তুর্কী সেনারাও লিবিয়াতে অবস্থান করবে বলে জানা যায়।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img