বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০২২

ভয়াবহ রূপে করোনা; ধীরে ধীরে বন্ধ হচ্ছে সব

দেশে লাগামহীন হারে বাড়ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। প্রথমটির তুলনায় দ্বিতীয় ঢেউ তুলনামূলক বেশি। এ কারণে একে এক বন্ধ হচ্ছে সবকিছু। বন্ধ করা হয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানের পর্যটন কেন্দ্র। বাতিল করা হচ্ছে হোটেল-মোটেলে আগাম নেয়া বুকিং। পাশাপাশি নতুন বুকিংও বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) থেকে এ নিষেধাজ্ঞা থাকবে মধ্য এপ্রিল পর্যন্ত।

প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অমান্য করলে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারিও আছে। এর আগে গত বছর ২৬ মার্চ থেকে দেশের পর্যটন কেন্দ্রসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রথমে লকডাউনের আওতায় ছিল। পরে লকডাউন উঠে গেলেও অনেক প্রতিষ্ঠান প্রায় ৫ মাস বন্ধ ছিল।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে স্বাস্থ্য বিভাগের সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ১৮ দফা সংবলিত পরিপত্র জারি করে। মূলত এরপরই উল্লিখিত সব পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। শুক্রবার থেকে চট্টগ্রামে সন্ধ্যা ৬টার পর ওষুধের দোকান ও কাঁচা বাজার ছাড়া আর সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা জারি করে জেলা প্রশাসন।

পরিস্থিতির ভয়াবহতার কারণে বৃহস্পতিবার ইউরোপসহ ১২ দেশের যাত্রীদের দেশে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে পরিদর্শন বন্ধ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই কারণে এর আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি একবারে পৌনে ২ মাস বাড়ানো হয়। একইভাবে তিন পার্বত্য অঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের পর্যটন কেন্দ্র এবং হোটেল-মোটেলও সর্বোচ্চ দুই সপ্তাহের জন্য বন্ধ ঘোষণার খবর পাওয়া গেছে। বন্ধের এ আওতা আরও বাড়তে পারে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img