রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

হঠাৎ কেন রোহিঙ্গা মুসলমানদের গ্রেফতার করছে ভারতীয় পুলিশ

বিশ্বের সবচেয়ে নিগৃহীত সম্প্রদায়ের মধ্যে অন্যতম হল রোহিঙ্গা মুসলিমরা। মায়ানমার সরকার কর্তৃক জাতিগত উচ্ছেদের ফলে তারা এখন নিজেদের জন্মভূমি ছেড়ে পার্শ্ববর্তী দেশ বাংলাদেশ ও ভারতে আশ্রয় নিয়েছে।

কিন্তু ভারতের উত্তরপ্রদেশের মথুরা জেলার প্রায় ২০০ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আটক করে পুলিশি হেফাজতে নিয়েছে ভারতের এন্টি টেরোরিজম স্কোয়াড। যার ব্যাপক নিন্দা জানিয়েছে ‘রোহিঙ্গা হিউম্যান রাইটস ইনেসিয়েটিভ।’ সংগঠনটি মূলত রোহিঙ্গা মানবাধিকার ইস্যু নিয়ে কাজ করে থাকে।

সংগঠনটি আটকের এ ঘটনাটিকে বেআইনি ও স্বেচ্ছাচারিতা হিসেবে বর্ণনা করেছে। তাদের দাবি আটককৃত রোহিঙ্গাদের কাছে ‘জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই-কমিশনের’ দ্বারা যাচাইকৃত পরিচয় পত্র রয়েছে। তাই তারা আশ্রয় প্রার্থী হিসেবে এখানে সুরক্ষিত থাকার দাবী রাখে।

‘রোহিঙ্গা হিউম্যান রাইটস ইনেসিয়েটিভ’ জানিয়েছে, রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রায় ১৮ হাজার মানুষ এই মুহূর্তে ভারতে রয়েছে। সংগঠনটির পরিচালক সাব্বের কিয়াও মিন আটককৃতদের নিরাপত্তা ও মর্যাদা রক্ষার আহবান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, “তারা মায়ানমারের নাগরিক। সম্প্রতি দেশটির সরকার কর্তৃক গণহত্যা থেকে তারা বেঁচে ফিরেছে। আন্তর্জাতিক আইন ও ভারতীয় সংবিধানের অধীনে সুরক্ষা চেয়ে তারা এখানে এসেছিল। তারা কখনোই অপরাধী নয়। ভারত সরকারের কাছে আমরা অবিলম্বে তাদের মুক্তি প্রার্থনা করি। এছাড়াও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এ বিষয়ে হস্তক্ষেপের ও আহ্বান জানাচ্ছি।”

এদিকে, ‘সাউথ এশিয়ান হিউম্যান রাইটস ডকুমেন্টেশন সেন্টারের’ কর্মকর্তা রবি নায়ার বলেন, “আশ্রয় প্রার্থীদের এভাবে গ্রেফতার করা প্রতিটি আন্তর্জাতিক আইনের চরম লঙ্ঘন। দেশের সর্বনিম্ন থেকে সর্বোচ্চ আদালত নিঃসন্দেহে এই আইনের বিরোধিতা করবে।”

হরিয়ানা রাজ্যের ফরিদাবাদে অবস্থানরত মোহাম্মদ ইসমাইল নামে এক রোহিঙ্গা বলেন, উত্তরপ্রদেশে অবস্থিত গাজিয়াবাদ জেলা থেকে একটি পরিবারের ৬ জন সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। তার মধ্যে একজন নারীও রয়েছে।

রাবেয়া খাতুন নামে একজন রোহিঙ্গা নারী বলেন, উত্তরপ্রদেশের মথুরা জেলায় প্রায় ৫০ টি রোহিঙ্গা পরিবারের বসবাস। যেখান থেকে সোমবার প্রায় ৫০ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

এখানকার আরেকজন রোহিঙ্গা নারী সাজিদা (৩২) জানান, এ অভিযানে তার স্বামীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। সাজেদাকে পুলিশ ভ্যানে উঠানো হলে তিনি তার পাঁচ বছরের বাচ্চাকে সাথে নিয়ে যাবেন না বলে প্রতিবাদ করেন। এতে তাকে পুলিশ ভ্যান থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়। তাদেরকে আটকের কারণ জিজ্ঞাসা করা হলে তার উত্তর না দিয়ে উল্টো লাঠিপেটা করে পুলিশ।

একই স্থানে বসবাসরত আলী হোসেন নামে ২০ বছরের এক রোহিঙ্গা সেখানে না থাকায় তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তিনি একটি ভিডিও কলে গণমাধ্যমকে জানান, “আমরা এই মুহূর্তে পুলিশের ভয়ে জঙ্গলে লুকিয়ে রয়েছি, তারা জানতে পারলে আমাদেরও গ্রেফতার করবে।”

অন্যদিকে, ভারত সরকারের একটি বিবৃতি বলা হয়েছে, অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে কিছু রোহিঙ্গা ভারতে বসতি স্থাপন করছে এমন তথ্য পাওয়ার পর দেশটির সরকার ও পুলিশ মহাপরিচালকের নির্দেশে এন্টি টেরোরিজম স্কোয়াড বিভিন্ন অঞ্চলে অভিযান চালিয়েছে। এসব অভিযানে মথুরা, আলিগড়, গাজিয়াবাদ, হাপুর, মিরাট এবং সাহারানপুর জেলার শরণার্থী শিবির থেকে ৭৪ জন রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের মধ্যে দশজন নাবালকও রয়েছে।

ভারতে কোন ধরনের শরণার্থী বা আশ্রয় আইন নেই। শরণার্থী বিষয়ক মূল আইন হলো ১৯৫১ ও ১৯৬৭ সালের শরণার্থী প্রটোকল আইন। যার কোনোটিতেই স্বাক্ষর করেনি ভারত।

১৯৬৭ সালের প্রটোকল অনুযায়ী শরণার্থী হচ্ছেন সেই ব্যক্তি― যিনি জাতি গোষ্ঠী, ধর্ম, বর্ণ, জাতীয়তা, নির্দিষ্ট সামাজিক সংগঠনের সদস্যপদ বা রাজনৈতিক মতাদর্শগত কারণে নিজ দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। নিজ দেশে নিরাপত্তা নেই তাই সেখানে ফেরত যেতে চান না।

মিয়ানমারের সীমন্ত ঘেঁষা প্রতিবেশী দেশগুলোর বেশিরভাগই এই কনভেনশনে সই করেনি। এই কনভেনশনে সই করলে কেউ আশ্রয় নিতে আসলে তাকে তার অমতে ফেরত পাঠানো যাবে না বলে রাষ্ট্রগুলো এ দায়িত্ব নিতে চায় না।

উল্লেখ্য; ২০২১ সালের মার্চ মাসে ভারতের জম্মু থেকে ২০০ জনেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলিমকে আটক করে দেশটির পুলিশ। এরপর তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়। তখন প্রশাসন থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, আটককৃত এসব লোকদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে। কিন্তু দুই বছর পেরিয়ে গেলেও এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি দেশটির সরকার।

সূত্র: স্ক্রল ডট ইন

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img