বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪

শিয়া স্কলারের কওমী মাদরাসা সফর

সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার


বেশ কয়েকটি কওমী মাদরাসায় ইরানের একজন শিয়া ”মেহমানের” সফর নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

বাংলাদেশের সিংহভাগ মানুষের কাছে শিয়াদের বিষয় স্পষ্ট নয়। তারা শিয়াদের একটি মাজহাব হিসেবেই মনে করে।

এর অনেকগুলো কারণ আছে। যেমন বাংলাদেশে শিয়া জনগোষ্ঠীর মানুষ কম থাকা, ইরানী বিপ্লব, রেডিও তেহরান কেন্দ্রিক ইরানী মিডিয়ার প্রভাব ও ইরানী দূতাবাসের ”দাওয়াতী” কার্যক্রম।

(এক)
ইরানী বিপ্লবের পর আমাদের দেশের ইসলামপন্থী নেতৃত্বের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ শিয়াদের বিষয়ে সফট কর্নার দেখিয়ে ইরানের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন করে। এই নিয়ে জল অনেক ঘোলা হয়েছিলো। তখন থেকে বাংলাদেশের একাধিক ইসলামী রাজনৈতিক দল ইরানকে ”আকিদাগত মতপার্থক্যের” বাহিরে রেখে ইসলামি বিপ্লবের আইডল হিসেবে প্রাধান্য দিত!

আমাদের দেশের অনেক বিজ্ঞ আলেম-উলামারাও ইরানের বিপ্লবকে শিয়াদের বিপ্লব হিসেবে না দেখে ইসলামের বিপ্লব হিসেবে দেখলেন।

তাদের ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে আফগানিস্তানে যুদ্ধ, ইরাকে হামলা ও সিরিয়া-ইয়েমেনের ধ্বংসের পর। আফগান যুদ্ধে হামলাকারীদের তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছিলো এই ইরানীরা। ইরাক যুদ্ধ ও যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে রীতিমত সুন্নি মুসলমানদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছে ইরানীরা। রক্তপিপাসু বাসার আল আসাদের পক্ষ নিয়ে সিরিয়ায় ইতিহাসের নারকীয় হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে এই ইরানীরা। তাদের হস্তক্ষেপের কারণে ইয়েমেন ধ্বংসের মুখে। যদিও ইয়েমেনে হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে সৌদি ও আমিরাতী রাজপরিবারগুলো।

উল্লেখিত প্রত্যেকটি ঘটনায় ইরান মুসলিম রাষ্ট্র নয় শিয়া রাষ্ট্র হিসেবে অবস্থান নিয়েছে। সুন্নি মুসলিম রাষ্ট্রগুলোকে ধ্বংস করতে কথিত ”চিরশত্রুকেও” সহযোগিতা করেছে।

(দুই)
বাংলাদেশের মূল ধারার মিডিয়া ইসলামী বিশ্বের খবর এড়িয়ে চলে। যে কয়েকটা মিডিয়া মুসলিম বিশ্বকে গুরুত্ব দেয়, এদের অনেকে সূত্র হিসেবে নির্ভর করে রেডিও তেহরান বা পার্স টুডের ওপর। এর অন্যতম কারণ রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগ বেশ একটিভ। বিশেষ করে কাশ্মীর-ফিলিস্তিন ইস্যুতে তারা মজলুমদের পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়ে থাকে।

তবে একই সাথে তারা সিরিয়া, ইরাক, আফগানিস্তান ও ইয়েমেন ইস্যুতে নিজ ধর্ম ও আকিদার পক্ষে অবস্থান নিয়ে জালিমদের সহযোগিতা করে।

মিডিয়ায় কাজ করতে গিয়ে আমাকে বেশকিছু বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে। বিশেষ করে কাসেম সোলেমানীর মৃত্যুর পর ইনসাফে প্রকাশিত কিছু নিউজ নিয়ে আমাকে নানা রকম প্রশ্ন করা হয়েছে। সিরিয়া-ইরাকের গণহত্যার অন্যতম মহানায়ক কাসেম সোলেমানীকে এই দেশের মানুষের সামনে হিরো হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে। যখন এর বিপক্ষে আমরা অবস্থান নিয়ে বাস্তবটা তুলে ধরার চেষ্টা করলাম, তখন এক শ্রেণীর কথিত উদারবাদীগণ আমাদের নিয়ে সমালোচনায় মেতে উঠেছিলো।

(তিন)
বাংলাদেশে দীর্ঘদিন ধরে ইরানী দূতাবাসের কথিত ”দাওয়াতী কার্যক্রম” পরিচালিত হয়ে আসছে। এর অংশ হিসেবে তারা ছাত্রদের স্কলারশিপ দিয়ে থাকে, মাঝে মধ্যে ওয়ার্কশপ করায়, বই পড়তে দেওয়া হয় ইত্যাদি। ইতোমধ্যে তারা সফলতাও পেয়েছে। তাদের চিন্তায় প্রভাবিত তরুণের সংখ্যা ধীরে ধীরে বাড়ছে। অনেকে শিয়াদের আকিদাকে সমর্থন করছেন। আর কেউ বা তাদের আকিদাকে মাজহাব হিসেবে মেনে নিচ্ছেন। এসব কাজে তাদের সহযোগিতা করছেন আমাদের মধ্য থেকেই কিছু মানুষ।

(চার)
এবার আসি মূল কথায়। এবারের ইরানী স্কলারের মাদরাসা সফর আমার দৃষ্টিতে আহামরি কোন সমস্যা নয়। একজন বিদেশী ভিন্ন ধর্মী স্কলার আমাদের দ্বীনি প্রতিষ্ঠানগুলো ঘুরে দেখতে পারেন। এই নিয়ে অতি মাতামাতির কিছু আছে বলে আমি মনে করি না। এটা শুধু বাংলাদেশে নয়, ভারত পাকিস্তানেও শিয়াদের সাথে সমন্বয় করে চলে থাকেন দেওবন্দী আলেম-উলামারা।

পাকিস্তানে একটি রাজনৈতিক জোট আছে। নাম মুত্তাহিদা মজলিশে আমাল। এটি ২০০২ সালে গঠিত হয়েছিল। এর বর্তমান সভাপতি জমিয়তের মাওলানা ফজলুর রহমান। এই জোটে জামায়াতে ইসলামী যেমন আছে, তেমনি শিয়াদের দল তেহরিকে জাফরিয়াও আছে। গত নির্বাচনেও জোটগতভাবে ভোট করেছে এই দলগুলো।

পাকিস্তানের সম্মেলিত মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড ”ইত্তেহাদ-এ-তানজিমাত মাদারিস পাকিস্তান”। এই বোর্ডের বর্তমান সভাপতি মুফতী তাক্বী উসমানী। আর সেক্রেটারি রেজভী আকিদার মুফতী মুনিবুর রহমান। মোট ৬টি বোর্ডের সমন্বয়ে এই বোর্ড গঠন করা হয়েছে। ছয়টি বোর্ড হচ্ছে, কওমীদের বেফাকুল মাদারিস, রেজভীদের তানজিমুল মাদারিস, আহলে হাদিসদের বেফাকুল মাদারিস সালাফিয়্যা, শিয়াদের বেফাকুল মাদারিস আল শিয়া ও রাবতাতুল মাদারিস।

পাকিস্তানের মতো রাষ্ট্রে, যেখানে শিয়াদের হাতে অসংখ্য বিশিষ্ট আলেমদের প্রান দিতে হয়েছে, সেখানে যদি শিয়াদের নিয়ে রাজনৈতিক জোট ও সরকার গঠন করা যায়, শিক্ষা বোর্ড পরিচালনা করা যায়, তাহলে বাংলাদেশে একজন শিয়া আলেমের মাদরাসা সফর নিয়ে বিতর্ক করার কি আছে!

তবে অবশ্যই শিয়াদের শিয়া হিসেবেই দেখতে হবে। তাদের চার মাজহাবের মতো আরো একটি মাজহাব হিসেবে দেখার কোন সুযোগ নেই। তারা শুরু থেকেই নিজেদের আলাদা করে রেখেছে। তারা মুসলিম বিশ্বের পিঠে ছুরিকাঘাত করেছে জন্মলগ্ন থেকেই। সাফাভী থেকে হাসান সাবা, তাদের ইতিহাস বিশ্বাসঘাতকতার।

#ইনসাফসম্পাদকেরকথা

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img