সোমবার, জুলাই ২২, ২০২৪

ইসরাইলের সাথে চুক্তির সময় যে বিষয়টি গোপন করেছিল আরব আমিরাত

ফিলিস্তিনি জনগণসহ মুসলিম উম্মাহর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে ২০২০ সালে আমেরিকার মধ্যস্থতায় ‘আব্রাহাম চুক্তি’ স্বাক্ষরের মাধ্যমে ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দিয়ে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে আবুধাবি, দুবাই, শারজাহ নিয়ে গঠিত দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত।

তখন এ ঘটনায় মুসলিম বিশ্বে অসন্তোষ দেখা দিলে আরব আমিরাতের পক্ষ থেকে বলা হয়, এই চুক্তির মাধ্যমে ফিলিস্তিনের ওপর ইসরাইলের অবৈধ দখলদারিত্বের অবসান ঘটবে। একই সাথে ইসরাইলের পাশাপাশি ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠন বা দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানের জন্যও এই চুক্তি কাজ করবে বলে দাবি করেছিলো আরব আমিরাত।

চুক্তির স্বাক্ষরের ৩ বছর পূর্ণ হওয়ার পর দেখা যাচ্ছে এসব দাবির কোনটিই পূর্ণ হয়নি। উল্টো ফিলিস্তিনিদের ওপর জুলুম-নিপীড়ন আরো বেড়েছে।

গত সপ্তাহে আব্রাহাম চুক্তির তিন বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে আমেরিকায় নিযুক্ত আমিরাতের রাষ্ট্রদূত বিষয়টি এক প্রকার স্বীকার করে নেন।

রাষ্ট্রদূত ইউসুফ আল উতাইবা ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর জুড়ে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর প্রশাসন অবৈধ দখলদারিত্ব চালিয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন।

এই বিষয়ে আরব আমিরাতের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে রাষ্ট্রদূতবলেন, “এটি শিষ্টাচারহীন কারণ এটি ঘটেই চলেছে, এবং আমি মনে করি এটি এমনভাবে ঘটছে যা দেখা যাচ্ছে না। এ বিষয়টি দি-রাষ্ট্রীয় সমাধানের পথকে আরো কঠিন করে তুলবে।”

‘আব্রাহাম চুক্তি’ স্বাক্ষরের সময় ইসরাইল ফিলিস্তিনি ভূমি দখলের বড় একটি পরিকল্পনা বাতিল করেছিলো। তখন আরব আমিরাতসহ ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেওয়া দেশগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছিলো, চুক্তির ফলে ফিলিস্তিনিদের ওপর দখল দারিত্ত্ব বন্ধ হয়েছে।

কিন্তু রাষ্ট্রদূত আল উতাইবা জানান, দখল দারিত্ব বন্ধের সেই চুক্তিটি ছিলো নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। অর্থাৎ নির্দিষ্ট একটা সময় পর্যন্ত ইসরাইল ফিলিস্তিনের ভূমি দখল করবে না। যদিও চুক্তিকালিন সময় বিষয়টি গোপন রেখেছিলো আরব আমিরাত।

রাষ্ট্রদূত আল উতাইবা বলেন, “একটি নির্দিষ্ট সময়ের উপর ভিত্তি করে আমাদের চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়েছিল, সেই নির্দিষ্ট সময় প্রায় শেষের পথে। সুতরাং আব্রাহাম চুক্তির মেয়াদ পরবর্তী সময়ে নেওয়া সিদ্ধান্ত গুলো সম্পর্কে আমাদের কিছু করার সামর্থ্য নেই।”

মূলত রাষ্ট্রদূত আল উতাইবা এই বার্তা দিতে চেয়েছেন, যে আগামীতে ফিলিস্তিনের ওপর ইসরাইলী দখলদারিত্বের বিষয়ে আরব আমিরাতের কিছুই করার নেই।

একই সাথে তিনি আগামীতে যারা ইসরাইলকে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে, তারা যেন দখলদারিত্ব বন্ধে সচেষ্ট হোন, সেই আহ্বানও জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, “আমি মনে করি এটা সেই সব দেশের পক্ষে সম্ভব, যারা ভবিষ্যতে এই বিশেষ পন্থা অবলম্বন করবে। তবে ইসরাইলের অভ্যন্তরে যা ঘটছে তা নিয়ে খুব কমই করতে পারবে সংযুক্ত আরব আমিরাত।”

আমিরাতি রাষ্ট্রদূতের এই মন্তব্য যে, সৌদি আরবের দিকে ইংগিত করে দেওয়া হয়েছে, তাতে বিশ্লেষকরা একমত। কারণ ইতোমধ্যেই ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্থাপনের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেছেন মুহাম্মদ বিন সালমান।

অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে গত তিন বছরে ইসরাইল ও আরব আমিরাতের মধ্যে সম্পর্ক কতটা গভীর হয়েছে তা তুলে ধরেন আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত ইউসুফ আল উতাইবা। তিনি বলেন, একসময় ইসরাইল ও আরব আমিরাতের মধ্যে সরাসরি কোন ফ্লাইট না থাকলেও বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে ১৫২টি সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়। প্রতি বছরে প্রায় ৩ বিলিয়ন ডলার মূল্যের বাণিজ্য বিনিময় হয়। আশা করা হচ্ছে এটি ১০ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছে যাবে।

সূত্র: দি টাইমস অব ইসরাইল ও মিডল ইস্ট মনিটর

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img