রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

ইসরাইলী হামলায় শহীদ স্ত্রীর ফরজ হজ্ব আদায় করলেন আল জাজিরার সাংবাদিক দাহদুহ

ইসরাইলী হামলায় শহীদ স্ত্রীর ফরজ হজ্ব আদায় করলেন আল জাজিরার আলোচিত ফিলিস্তিনি সাংবাদিক ওয়ায়েল আদ-দাহদুহ।

গাজ্জায় দায়িত্ব পালন কালে পরিবারের অধিকাংশ সদস্যদের হারানো আলোচিত এই সাংবাদিক সৌদি সংবাদমাধ্যমকে জানান, এনিয়ে দু’বার হজ্ব পালন করেছেন তিনি।

তিনি বলেন, গত বছর (২০২৩) আমি আমার স্ত্রীকে হারিয়েছি। আমার স্ত্রীর রয়ে যাওয়া ফরজ হজ্ব আদায় করতে পেরে আমি আনন্দিত। স্ত্রীকে দেওয়া ওয়াদা রক্ষা করাটা আমার হজ্বে বাড়তি আনন্দ যোগ করেছে। আনন্দের আরেকটি কারণ হলো, এটি পৃথিবীর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ গণ-জমায়েত। মুসলিমদের অধিকাংশই এক স্থানে একই সময়ে হজ্বের উদ্দেশ্যে জড়ো হোন।

উল্লেখ্য, বিশিষ্ট সাংবাদিক ওয়ায়েল হামদান ইবরাহীম আদ-দাহদুহ আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার ফিলিস্তিন প্রতিনিধি ছিলেন। আরব বিশ্বে তিনি ‘আবু হামজা’ নামে পরিচিত।

২০২৩ এর ৭ অক্টোবর থেকে গাজ্জায় ইসরাইলী গণহত্যা শুরুর পর অত্যন্ত সাহসিকতার সাথে সর্বশেষ আপডেট বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরার জন্য তিনি পৃথিবী ব্যাপী প্রসিদ্ধি লাভ করেন।

বিশ্ববাসীর সামনে গাজ্জায় ইসরাইলের বর্বরতার তুলে ধরার জন্য তিনি একাধিকবার প্রাণনাশের হুমকি পান। এমনকি একবার তার অবস্থান লক্ষ্য করে হামলাও চালায় ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সেনারা। গুরুতর আহত হলেও ভাগ্যক্রমে তিনি বেঁচে যান। এরপর লোকজন তাকে ‘গাজী’ উপাধিতে ভূষিত করে।

গাজ্জায় ইসরাইলের ভয়াবহ হামলায় তিনি বেঁচে গেলেও হাজার হাজার নিরীহ ফিলিস্তিনির ন্যায় পৃথক পৃথক ইসরাইলী হামলায় শহীদ হয় তার ২ পুত্র, কন্যা, নাতনী এবং স্ত্রী।

২০২৪ এর ৭ জানুয়ারি থেকে তার পরিবারের সদস্যদের লক্ষ্য করে ধারাবাহিক প্রাণঘাতী হামলা শুরু হলে তার বড় সন্তান সাংবাদিক হামজা আদ-দাহদুহ (২৭), ভাতিজা আহমদ (৩০) ও মুহাম্মদ আদ-দাহদুহ নির্মমভাবে প্রাণ হারান। ১৬-১৭ জানুয়ারিতে কাতার ও মিশরীয় সাংবাদিকদের সিন্ডিকেটের তৎপরতায় ওয়ায়েল আদ-দাহদুহকে গাজ্জা থেকে প্রথমে মিশর তারপর কাতারে সরিয়ে আনা হয়। এর আগে তার আরো ৪ সন্তানকে মিশরে নেওয়া হয়।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img