রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

ইসলামের বিজয়ে জন্য যেকোনো ত্যাগের ইচ্ছা থাকতে হবে : মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান বলেছেন, সকল নবী-রাসূলগণই দ্বীন কায়েমের এ মহান কাজে নিয়োজিত ছিলেন। কেহ দ্বীনকে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে কায়েম করতে সক্ষম হয়েছেন, কেহ হননি। কিন্তু সকলেই দ্বীন কায়েমের প্রচেষ্টায় আপোসহীন ছিলেন। ইসলামী আন্দোলনের বিজয়ে আমাদের যে কোনো ত্যাগ কুরবানী প্রদর্শনের আগ্রহ ইচ্ছা থাকা জরুরি। এ-ধারা চলমান এমন কি সাহাবীগণের মাঝেও এমন কোনো সাহাবী খুঁজে পাওয়া যায় না যিনি ইকামাতে দ্বীনের কাজ হতে বিরত ছিলেন। সাহাবীগণ জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহর কাজে সকলেই ছিলেন নিবেদিত প্রাণ। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল এদেশে কুরআনের সমাজ বিনির্মাণ করা। ইকামাতে দ্বীনের বিজয়ের জন্য আমরা সে লক্ষ্যেই যাবতীয় প্রচেষ্টা সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছি।

তিনি আজ মঙ্গলবার (১৮ জুন) ঈদুল আজহা পরবর্তী সময়ে নিজ এলাকা সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়ায় সাধারণ জনতার সাথে সৌজন্যতা বিনিময় কালে উপস্থিত নেতাকর্মীদের এসব কথা বলেন।

রফিকুল ইসলাম খান বলেন, ত্যাগ ও কুরবানীর চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে ইসলামী সমাজ কায়েমের পথে এগিয়ে যেতে হবে। হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ডাকে ইসলামকে টিকিয়ে রাখার লক্ষ্যে সাহাবারা বদরের প্রান্তরে একত্রিত হয়ে বাতিলের বিপক্ষে যুদ্ধ করে বিজয় অর্জন করেলি। একইভাবে বাংলাদেশে ইকামাতে দ্বীনের আন্দোলনে যদি আমরা সে বিশ্বাস লালন করে সামনে অগ্রসর হতে পারি তাহলে মহান আল্লাহ আমাদেরেও বিজয় দান করবেন ইনশাআল্লাহ। ইসলামী আন্দোলনের কুরআনিক পরিভাষা হচ্ছে ‘জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ’। একাজে অংশগ্রহণ প্রত্যেক মুসলমানের ঈমানের অপরিহার্য দাবি। বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে এ মহান কাজ শুধুমাত্র আমাদের উপর ফরজই নয় ইহা ফরজে আইন তথা অবশ্যই পালনীয় বিষয়।

তিনি বলেন, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অহি পাওয়ার পর তার বিশ্রামের সুযোগ হয়নি, অতএব আমাদেরও বসে থাকার সময় নেই। যেহেতু ইসলামী আন্দোলন ঈমানের অপরিহার্য দাবি, তাই আসুন সবাই মিলে ইসলামী আন্দোলনের কাজে ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা পালন করি।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img