রবিবার, মে ১৯, ২০২৪

শিকাগোতে ইসরাইল বিরোধী বিক্ষোভে আমেরিকান পুলিশের বাধা; গ্রেফতার শতাধিক

গাজ্জায় ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের ধারাবাহিক গণহত্যার বিরুদ্ধে বিক্ষোভে বাধা ও গ্রেফতার অভিযান পরিচালনা করলো আমেরিকার পুলিশ প্রশাসন।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) আমেরিকার শিকাগোতে শতাধিক বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করে স্টেটটির পুলিশ প্রশাসন।

অনলাইনে প্রকাশিত ভিডিও ফুটেজে শিকাগোর শত শত নাগরিককে বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড হাতে রাস্তায় ইসরাইল ও বাইডেন প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে। নামাজের সময় হয়ে যাওয়ায় রাস্তাতেই নামাজ আদায় করছেন।

সংবাদমাধ্যমের তথ্যমতে, বিক্ষোভ প্রদর্শনে বাধা প্রদান করে আমেরিকানদের নাগরিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করে শিকাগো পুলিশ। বিক্ষোভটি ইসরাইল বিরোধী হওয়ায় শতাধিক বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করে। শিকাগো পুলিশের এমন কাণ্ড সমালোচনার জন্ম দেয়।

উল্লেখ্য, ব্রিটেন, আমেরিকা ও ইউরোপের প্রত্যক্ষ মদদে গাজ্জায় গণহত্যা পরিচালনা করে যাচ্ছে বিশ্ব মানবতার শত্রু ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল। অবৈধ রাষ্ট্রটির হামলায় এখন পর্যন্ত ৩৩ হাজার ৭৯৭ ফিলিস্তিনি নিহত হয়। আহত হয় ৭৬ হাজার ৪৬৫ জন। তন্মধ্যে শিশুর সংখ্যাই রয়েছে সাড়ে ১৪ হাজারের বেশি।

এছাড়া ফিলিস্তিন স্বাধীনতাকামী ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস স্থায়ী যুদ্ধবিরতি চায়লেও ইসরাইল ও আমেরিকা চায়ছে অস্থায়ী যুদ্ধবিরতির বিনিময়ে দলটির হাতে জিম্মি থাকা ইসরাইলীদের মুক্ত করার।

হামাস বলছে, অস্ত্রের জোরে বন্দীদের মুক্ত করতে ব্যর্থ হয়েছে নেতানিয়াহু ও তার সরকার। হামাসের সাথে স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে যাওয়া ছাড়া জিম্মিদের মুক্ত করার আর কোনো উপায় নেই ইসরাইলের।

ফিলিস্তিনি জনগণকে রক্ষা, রক্তপাত ও গণহত্যা বন্ধের একমাত্র নিশ্চয়তা স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে নিহিত। অথচ বন্দীদের মুক্ত করতে ইসরাইল অস্থায়ী যুদ্ধবিরতির সুযোগ নিতে চায়ছে। যাতে বন্দীদের মুক্তির পর তারা আবার যুদ্ধ ও গণহত্যা শুরু করতে পারে। গাজ্জার মতো ছোট্ট উপত্যকায় হামাসের মতো ছোট দলের বিরুদ্ধে ৬ মাস যাবত সর্বশক্তি প্রয়োগ করেও ইসরাইল এখনো ধুঁকছে। তারা বিজয়ী হতে পারেনি এবং পারবেও না ইনশাআল্লাহ।

হামাসকে নির্মূলে সাধারণ ফিলিস্তিনিদের হত্যা ও তাদের জীবন-যাপন বিপন্ন করাকে তিনি ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্রটির পরাজয়ের প্রতীক বলে উল্লেখ করেন। কাঙ্ক্ষিত বিজয়ের পূর্বাভাস এমন নয় বলে জানান।

ইসরাইলের কোনো গণ-সমর্থন নেই উল্লেখ করতে গিয়ে হামাস শীর্ষ নেতা বলেন, আন্তর্জাতিক গণ-সমর্থন হামাস ও ফিলিস্তিনিদের পক্ষে। পক্ষান্তরে ইসরাইল পরকীয়ার বদৌলতে জন্ম নেওয়া এক অবৈধ রাষ্ট্র।

অপরদিকে আমেরিকার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, নতুন যুদ্ধবিরতি ও বন্দী বিনিময় চুক্তিতে বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে হামাস। নতুন প্রস্তাবেও তারা যুদ্ধবিরতিতে যেতে সম্মত হচ্ছে না। অথচ চুক্তির নতুন প্রস্তাবে অনেক ছাড় দিয়েছে ইসরাইল।

দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ও সাবেক মুখপাত্র জন ক্যারবি বলেন, বন্দী বিনিময়, যুদ্ধবিরতি ও গাজ্জায় অবাধ সহায়তা প্রবেশের লক্ষ্যে হামাসের টেবিলে যথোপযুক্ত প্রস্তাব রাখা হয়েছে। তাদের উচিত নতুন প্রস্তাবটি লুফে নেওয়া।

সূত্র: আনাদোলু

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img