শনিবার, জুন ১৫, ২০২৪

উইঘুর মুসলিমদের গণহত্যার অভিযোগ ও তদন্তের আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আইসিসি

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান

চীনের বিরুদ্ধে উইঘুর মুসলিমদের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসি।

মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) চীনের বিরুদ্ধে উইঘুরে মুসলিম গণহত্যা ও মানবতা বিরোধী অপরাধ তদন্তের আবেদনকে তারা নাকচ করে দেয় বলে খবর প্রকাশ করে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা আল জাজিরা।

খবরে বলা হয়, গত জুলাইয়ে উইঘুর নাগরিকরা আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসির কাছে চীনের বিরুদ্ধে আরোপিত অভিযোগের প্রমাণ সম্বলিত একটি বিশাল ডজিয়ার বা নথি উত্থাপন করে। সেখানে বলা হয় যে, চীন এক মিলিয়নেরও বেশি উইঘুর নাগরিকদের পুনঃশিক্ষা কেন্দ্রে আটকে রেখেছে এবং সেই বন্দীদের অধিকাংশই হল মুসলিম। এমনকি তারা উইঘুর নারীদের জোরপূর্বক স্টেরিলাইজিং বা বাচ্চা জন্মদানের ক্ষমতা দূর করে দিচ্ছে!

এই বিষয়ে আইসিসির কাছে জানতে চাওয়া হলে আইসিসির প্রসিকিউটরদের অফিস ফ্যাটিউ বেনসুদার পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা চীনের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নিতে অক্ষম। কেনোনা তাদের বিরুদ্ধে যে অপরাধের অভিযোগ আরোপিত হয়েছে, তা সংঘটিত হয়েছে চীনের ভূখণ্ডে। আর চীন হেগ ভিত্তিক আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসির সাক্ষরিত রাষ্ট্র নয়।

হতাশা ব্যক্ত করে তারা আরো বলে, আঞ্চলিক অপরাধ বিষয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের আঞ্চলিক এখতিয়ার প্রয়োগের ক্ষেত্রে সাক্ষরিত রাষ্ট্র হওয়ার যে পূর্বশর্ত রয়েছে তা গুরুতর অভিযোগের ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণের ক্ষেত্রে অসম্মানজনকও বটে।

ফ্যাটিউ বেনসুদার পক্ষ থেকে এছাড়াও উল্লেখ করা হয় যে, তাজিকিস্তান ও কম্বোডিয়া থেকে উইঘুর নাগরিকদের জোর করে চীনে পাঠিয়ে দেওয়ার পৃথক পৃথক ভাবে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা আমলে নেওয়ারও কোনো ভিত্তি নেই।

উইঘুর অভিযোগকারীরা আইসিসির কাছে চীনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এই যুক্তিও প্রদর্শন করেছিল যে, মানবতা বিরোধী অপরাধ চীনের মাটিতে সংঘটিত না হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইসিসি অক্ষম হলেও তাজিকিস্তান ও কম্বোডিয়া অঞ্চলে উইঘুরদের নির্যাতনের ব্যাপারে তারা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সক্ষম। কেনোনা, তাজিকিস্তান ও কম্বোডিয়া উভয়েই আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসির সাক্ষরিত ও সদস্য রাষ্ট্র।

আইসিসির আইনজীবী কর্তৃক প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, উইঘুরদের পক্ষে আইনী লড়াই চালানো আইনজীবীরা আদালতকে নতুন তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে তাদের অভিযোগটি পুনর্বিবেচনা করতে আইসিসিকে অনুরোধ জানিয়েছে।

চীন তাদের বিরুদ্ধে আরোপিত অভিযোগকে ভিত্তিহীন আখ্যায়িত করে বলেছে, কারাগার হিসেবে ভুল উপস্থাপন করা উত্তর-পশ্চিম জিনজিয়াং অঞ্চলের কেন্দ্রটি মূলত, সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি ও কঠোর দৃষ্টিভঙ্গি থেকে সেখানকার মানুষকে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে গড়ে তুলা একটি পুনঃশিক্ষা ও চাকরি-প্রশিক্ষণ কেন্দ্র।

উল্লেখ্য, মানবাধিকার কর্মীরা চীনের জিনজিয়াং এর যেসমস্ত কেন্দ্রকে কন্সান্ট্রেশন বা নিবির পরিচর্যা কেন্দ্ররূপে আখ্যায়িত করছে, সেখানে মূলত নিজ ইচ্ছার বিরুদ্ধে ১০ লক্ষেরও বেশি উইঘুর মুসলিমদের আটকে রাখা হয়েছে।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img