সোমবার, জুলাই ২২, ২০২৪

ইসরাইলের অবৈধ দখলদারিত্ব স্মরণ করিয়ে দিতে আমেরিকায় নাকাবা দিবস পালিত

ইহুদিবাদী ইসরাইলের অবৈধ দখলদারিত্ব স্মরণ করিয়ে দিতে মুসলিম, খ্রিস্টান ও ইহুদিদের অংশগ্রহণে আমেরিকায় নাকাবা দিবস পালিত হয়েছে।

সোমবার (১৫ মে) ওয়াশিংটন স্মৃতিস্তম্ভের সামনে দিবসটি পালন করে আমেরিকার জনগণ।

মুসলিম আমেরিকানস ফর প্যালেস্টাইন, দা প্যালেস্টাইন ইয়ুথ মুভমেন্ট ও দা প্যালেস্টাইন ক্রিশ্চিয়ান ইউনিয়ন ফর পিস সহ আরো অন্যান্য সংগঠন নাকাবা দিবসটিকে অর্থবহ করে তুলতে আমেরিকার প্রথম প্রেসিডেন্টের স্মরণে নির্মিত ওয়াশিংটন স্মৃতিস্তম্ভের সামনের জায়গাটি বেছে নেয়, যা দেশটির কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলের একদম নিকটেই অবস্থিত।

কর্মসূচি হিসেবে তারা বিক্ষোভ-মিছিল, ফিলিস্তিনের জাতীয় সংগীতের আয়োজন ও নাকাবা দিবসের পরিচিতি মূলক লিফলেট বিতরণ করে। লিফলেটে অবৈধ দখলদারিত্বের মাধ্যমে কীভাবে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীরা ফিলিস্তিনের বুকে তাদের অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে তা তুলে ধরা হয়। এছাড়া অবৈধ রাষ্ট্রটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে কীভাবে তাদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি করছে, নিরীহ ও নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের হত্যা করছে, গাছপালা, ক্ষেতখামার ও ঘরবাড়ি ধ্বংস করছে এর একটি চিত্রও তুলে ধরা হয়। ফিলিস্তিনিদের উপর ইহুদিবাদী ইসরাইলের বর্বরতার বিরুদ্ধে আমেরিকানদের আওয়াজ উঠানোর আহবান জানানো হয়, যারা শুরু থেকেই আমেরিকার সরকারের মদদ পেয়ে আসছে।

ফিলিস্তিন বিষয়ক সংগঠনগুলোর এই আয়োজনে রিলিজিয়াস জিউশ বা ধার্মিক ইহুদি আন্দোলন নামে একটি সংগঠনও অংশগ্রহণ করে।

আয়োজনে অংশগ্রহণকারী এনরোন লিবারম্যান নামক এক ইহুদি জানান, আমরা ফিলিস্তিনের বুকে ইসরাইল প্রতিষ্ঠা তত্ত্বে বিশ্বাস করি না। কেননা এটি খোদায়ী নির্দেশের চরম বিরোধী।

তিনি আরো বলেন, আমরা নিউইয়র্কের ব্রুকলিনে থাকি। প্রায়শই আমাদেরকে প্রকৃত ইহুদিবাদে অবিশ্বাসী কট্টর ইহুদি কর্তৃক হেনস্তার শিকার হতে হয়। কিন্তু এরপরও আমরা ইহুদিবাদী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা ও ইহুদিবাদী পলিসির বিরুদ্ধে নিজেদের প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাতে পিছপা হই না। আমরা সুযোগ পেলেই এসবের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাতে আমেরিকার যেকোনো জায়গায় ছুটে যাই।

প্রসঙ্গত; এরা হলো ইহুদি জাতির সেই অংশ যারা অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল প্রতিষ্ঠার মূল উদ্যোক্তা অস্ট্রিয়ার ইহুদি সাংবাদিক, নাট্যকার ও রাজনীতিক থিওডোর হারজেলের ইহুদিবাদ ও ইহুদিদের ভবিষ্যত পরিকল্পনার চরম বিরোধী ছিলো এবং তৎকালীন উসমানীয় খেলাফতের প্রতি সম্পূর্ণ ভাবে অনুগত ছিল।

কেননা তাদের কাছে যে তাওরাত সংরক্ষিত ছিলো তাতে ইহুদিবাদীদের স্বতন্ত্র রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় খোদার তরফ থেকে নিষেধাজ্ঞার বিবরণ ছিল। তাই তারা ফিলিস্তিনের বুকে পবিত্র কুদসকে রাজধানী বানিয়ে ইহুদিবাদী ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাকে তাওরাত ও ঐশী বাণীর অবমাননা ও বিরোধীতা বলে মনে করতো।

আর তাদের তাওরাতে ঐশী বাণী অমান্য করায় আগেকার ইহুদী জাতির উপর কী ধরণের অপমান ও অলৌকিক শাস্তি নেমে এসেছিলো এর বর্ণনা থাকায় তারা ধর্মের বিপরীতে যেতে সাহস করতো না। তারা খুবই ধর্মভীরু ছিল। তারা এও দাবী করতো যে, থিওডোর হারজেল একজন ধোঁকাবাজ। সে মোটেও ইহুদী ধর্মে বিশ্বাসী নয়। তার কথা মানার অর্থ হবে তাওরাতের বিপরীতে যাওয়া। আর তাওরাতের বৈপরীত্য করলে তাদের উপর আবার আমৃত্যু অপমান ও অলৌকিক শাস্তি নেমে আসবে।

আর তারা একারণে উসমানী খেলাফতের অনুগত ছিলো যে, উসমানী খেলাফত তাদেরকে উসমানী সাম্রাজ্যে ঠাই দিয়েছিলো, ইসলামী শরীয়া আইনের নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসরণ করে ধর্ম পালনে পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছিলো এবং খেলাফতের নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে সম্মানজনক জীবনযাপনের সুযোগ দিয়েছিলো, যা তারা তৎকালীন আর কোনো সাম্রাজ্যেই পায়নি। বরং এর আগে তারা ছিলো চরম অবহেলিত যাযাবর। কোনো সাম্রাজ্যই তাদেরকে ঠাই দেওয়া তো দূরের কথা মানুষ হিসেবে নূন্যতম সম্মান দিতেও রাজি ছিলো না। অথচ ইসলামী শরীয়া আইন অমুসলিমদের জন্য যেসব নির্দিষ্ট নিয়ম রেখেছে সেসব ছাড়া তাদের মধ্যে আর ইসলামী সাম্রাজ্যের অন্যান্য নাগরিকদের মধ্যে কোনো পার্থক্যই ছিলো না। তারা অন্যান্য মুসলিমদের মতোই ইসলামি খেলাফতের অধীনে সম্মানজনক জীবনযাপনের সুযোগ লাভ করেছিলো।

এই ইহুদি গোষ্ঠীদের প্রকৃত নাম বর্তমানে নির্ণয় করা কঠিন করে তুলেছে হারজেলের মতো ধূর্ত ইহুদিবাদীরা। পৃথিবীর সামনে তাদের শত বিভক্তিকে লুকানোর ইহুদিবাদী পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বিভিন্ন নাম-উপনামে পরিচিত ইহুদি গোষ্ঠী কিংবা উপজাতিগুলোকে একেকটি ব্যাপক শব্দের আওতায় নিয়ে আসে।

ব্রিটিশরাও দাপ্তরিকভাবে এই গোষ্ঠীগুলোকে তাদের প্রকৃত নামের পরিবর্তে ইহুদিবাদীদের দেয়া নামে চিহ্নিত করতে শুরু করে।

যেমন বর্তমানে মিজরাহী ইহুদি গোষ্ঠী বলতে প্রকৃত মিজরাহীদের প্রতি দিকনির্দেশ করে না। বরং আরব-অনারব ও প্রাচ্যের সকল ইহুদিদের প্রতি দিকনির্দেশ করে। চাই তারা ভিন্ন ভিন্ন তাওরাত মান্যকারী হোক কিংবা কথিত পুরোনো তাওরাতের কোনো অংশ মান্যকারী-অমান্যকারী হোক। ইহুদি ধর্মে অবিশ্বাসী বংশগত ইহুদি হোক কিংবা ধর্ম পালনকারী ইহুদি হোক।

নাকাবা দিবস:

নাকাবা মানে বিপর্যয়। ১৯২৩ সালে খেলাফত বিলুপ্তির পর থেকে ১৯৪৮ সালের ১৪ মে’র আগ পর্যন্ত উসমানী খেলাফতের অধীনে থাকা ফিলিস্তিন ছিলো ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রণে।

ব্রিটিশদের সহায়তায় স্বাধীন ফিলিস্তিনে পারি জমানো ইহুদিরা ১৯৪৮ সালের ১৪ মে’র রাত্রিতে তেলে আবিব থেকে ইসরাইল প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয়।

এর আগে তাদেরই অনবরত সন্ত্রাসী হামলা ও আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে ১৪ মে দিনের বেলায় ফিলিস্তিন ছেড়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলো ব্রিটিশরা।

ইহুদিবাদীদের ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণার ফলে ১৫ মে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ বাধে খেলাফত ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়া আরব দেশ ও ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের মাঝে।

কুখ্যাত দুর্ধর্ষ ব্রিটিশ গোয়েন্দা লরেন্সের প্ররোচনায় প্ররোচিত হয়ে খেলাফতের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বসা আরবরা পরবর্তীতে বিলুপ্ত খেলাফতের অভাব দূর করতে সৌদি, মিশর, সিরিয়া, লেবানন, জর্ডান ও ইরাকের মতো দেশগুলোকে নিয়ে আরব লীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলো।

কিন্তু যে খেলাফত অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ, পবিত্র ও বহু স্মৃতি বিজড়িত পবিত্র কুদস ও ফিলিস্তিনকে রক্ষা করে এসেছিলো একেবারে বিলুপ্তির আগ পর্যন্ত, তা ব্রিটিশরা চলে যাওয়ার পর খেলাফতের বিকল্প আরব লীগরা রক্ষা তো করতে পারেইনি উল্টো মার খেয়ে হেরে যাওয়ার উপক্রম হয়।

তবে মিশরীয় বাহিনী এক্ষেত্রে কিছুটা সফলতা দেখিয়েছিলো। কথিত ইসরাইলের রাজধানী তেল আবিবের একদম কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলো মিশরীয় সেনারা। কিন্তু সেই মুহুর্তেই জাতিসংঘ থেকে যুদ্ধবিরতি চুক্তির ডাক সামনে আসে। এতে করে তখনকার মতো নিস্তার পেয়ে যায় গোলাবারুদ ও রসদ ফুরিয়ে আসতে থাকা ইহুদিবাদীরা।

মূলত অবৈধ দখলকৃত জায়গাতে রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়ে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীরা যে নজিরবিহীন নৃশংসতা চালিয়ে শত শত ফিলিস্তিনিকে শহীদ ও লক্ষ লক্ষ ফিলিস্তিনির উপর অমানবিক নির্যাতনের মাধ্যমে নিজেদের ঘর ও ফিলিস্তিন ছাড়তে বাধ্য করেছিলো সেই নির্মম ঘটনাকে নাকাবা বা বিপর্যয় বলা হয়।

জানা যায়, ব্রিটিশদের সহায়তায় ফিলিস্তিনে আগমনের পর থেকেই অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আগে এবং পরে ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৪৯ সাল  পর্যন্ত হাগানাহ, স্টার্ন গ্যাংসহ অন্যান্য ইসরাইলী সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীরা ফিলিস্তিনের ৫৩০টি গ্রামকে সম্পূর্ণ জনমানবহীন গ্রামে পরিণত করে। ১৫ হাজার ফিলিস্তিনিকে শহীদ করে। ৭ লক্ষাধিক ফিলিস্তিনি গৃহহীন উদ্বাস্তুতে পরিণত করে।

১৯৪৮ সালের নির্মম ও মর্মান্তিক নাকাবার ইতিহাস যদিও ৭৫ বছরের পুরোনো কিন্তু তা দিবস হিসেবে পালন শুরু হয় প্রকৃতপক্ষে ১৯৯৮ সাল থেকে।

১৯৯৮ সালে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের যখন তাদের কথিত স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ঘটা করে উদযাপনের প্রস্তুতি নেয়, তখন ফিলিস্তিনিদের কিংবদন্তি নেতা ও প্রেসিডেন্ট ইয়াসির আরাফাত সিদ্ধান্ত নেন যে তারাও তাদের নাকাবার ৫০ বছর পূর্তি পালন করবেন। তিনি ইসরাইলের স্বাধীনতা দিবসের পরের দিনটিকে নাকবা দিবস হিসেবে ঘোষণা দেন।

আর জাতিসংঘ এবছরই (২০২৩ সাল) প্রথমবারের মতো দিবসটি আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করছে। যারা কি না ব্রিটিশদের অনুরোধে ফিলিস্তিনে অবৈধ ইহুদিবাদী সন্ত্রাসী অভিবাসীদের থাকার জন্য স্বীকৃতি দিয়ে সহায়তা করেছিলো এবং যুদ্ধবিরতি চুক্তির ফাঁদে ফেলে মিশরীয় সেনাদের তেলআবিব দখল থেকে রুখে দিয়েছিলো।

ফিলিস্তিনি জনগণের অবিসংবাদিত অধিকার আদায়বিষয়ক জাতিসংঘ কমিটি (ইউএনসিআইআরপিপি) নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দপ্তরে নাকাবা দিবস পালনের আবেদন উত্থাপন করলে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২০২২ সালের ৩০ নভেম্বর তার অনুমোদন দেয়।

সূত্র: আল জাজিরা মুবাশির, আল জাজিরা ও অন্যান্য।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img