বৃহস্পতিবার, জুন ২০, ২০২৪

পাকিস্তানে ভয়ংকর ষড়যন্ত্র করছে ভারত ও ইসরাইল; দাবী বিশ্লেষকদের

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


পাকিস্তানের মাটিতে ভারত ও ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের ভয়ংকর ষড়যন্ত্র চলছে বলে দাবী করেছেন দেশটির প্রবীণ সাংবাদিক ও বিশ্লেষক রানা আজিম।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারী) একটি অনুষ্ঠানে তিনি এই দাবি করেন।

ওই বিশ্লেষকের মতে, ভারতের হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ ও ইহুদিবাদী ইসরাইলের মোসাদ, এনডিএস এবং সিআইএ পাকিস্তানের অভ্যন্তরে তাদের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে বিভিন্ন সংস্থা ও এনজিওদের প্রচুর অর্থায়ন করে যাচ্ছে।

এছাড়াও তারা পাকিস্তানি প্রজন্মের চিন্তা-চেতনা পাল্টে দিতে শিক্ষা খাতেও প্রচুর অর্থ ঢালছে। এর অংশ হিসেবে তারা টার্গেট করেছে পাকিস্তানের বড় বড় ও মানসম্মত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে। সেই বড় বড় ও মানসম্মত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে তারা ব্যাপকহারে অর্থায়ন করছে এবং কৌশলে বাছাইকৃত মেধাবী শিক্ষার্থীদের ব্রেইন ওয়াশ করে তাদের চিন্তা চেতনাই পাল্টে দিচ্ছে।

ওই গবেষক বলেন, এক্ষেত্রে কিছু বেতনভোগী শিক্ষক রয়েছেন যারা তাদের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। করাচি, লাহোর, ইসলামাবাদ, পেশোয়ার এবং কোয়েটার শীর্ষস্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ইহুদিবাদী ইসরাইল ও ভারতের এই ষড়যন্ত্রে বিশেষভাবে জড়িত।

শিক্ষার্থীদের ব্রেইন ওয়াশের ধরণ সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রথমে প্রশিক্ষণের জন্য শিক্ষার্থীদের স্কুলের বাইরে একটি প্রাইভেট জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে গিয়ে তাদের এমনসব প্রামাণ্যচিত্র, ভিডিও ও ছবি দেখানো হয়, বাস্তবতার সাথে যার কোনো সম্পর্কই নেই।

বাস্তবতা বিবর্জিত ও ঘৃণা সৃষ্টিকারী ওই সমস্ত প্রামাণ্যচিত্র, ভিডিও এবং ছবিগুলো, বিশেষত পাক সেনাবাহিনী, পাকিস্তানের বিভিন্ন ধরনের প্রতিষ্ঠান এবং ইসলাম ধর্ম বিরোধী হয়ে থাকে।

ইহুদি ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো, আমলাতন্ত্রের সহায়তায় পাকিস্তানে নিজেদের ষড়যন্ত্রের জালকে পোক্ত করতে বিভিন্ন আমলাদেরকেও ব্যবহার করছে বলে দাবী করেন প্রবীণ এই সাংবাদিক ও বিশ্লেষক।

তিনি বলেন, আমলাতন্ত্রের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের মাধ্যমে ইহুদি ও হিন্দুত্ববাদী ওই সংস্থাগুলো প্রথমে আমলাদেরকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আনে। তারপর তাদেরকে পাকিস্তানের বিভিন্ন অধিদপ্তরে নিজেদের সুবিধানুযায়ী বিভিন্ন পদে বসিয়ে দেওয়া হয়।

এক্ষেত্রে যে সমস্ত আমলাদের বেতন থাকে ২৫০০০ টাকা, তাদেরকে ৪০,০০০ টাকা দিয়ে বিনিময়ে যেকোনো দলিল-দস্তাবেজ ও নথিপত্র বের করে নেয় ইহুদি ও হিন্দুত্ববাদী সংস্থাগুলো। শুধু তাই নয়; তাদের চাহিদা মোতাবেক যেকোনো নথিও বানিয়ে দেয় সেই আমলারা!

রানা আজিম বলেছিলেন যে আমাদের দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলি সক্রিয় রয়েছে এবং তারা বহু অভিযান চালিয়েছে।

তাছাড়া, পাকিস্তানের বড় বড় শহরের বাজারগুলোতে পাক ইন্টেলিজেন্স এমন সব আফগানদের উপস্থিতি সনাক্ত করেছে, যাদের আইডি কার্ড ব্লক করা!

রানা আজিম বলেন, বস্তুত, ব্লককৃত নাগরিক পরিচিতিমূলক আইডি কার্ডধারী সেই আফগানদের মাধ্যমেই ইহুদিবাদী ইসরাইল ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো পাকিস্তানে তাদের ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নকারী চাকরদের জন্য অর্থ প্রদান করে থাকে।

জানা যায়, এবিষয়ে এখন তারা একটি ইউনিয়ন গঠন করছে এবং সন্ত্রাসবাদে বিশ্বাসী ও মদদদাতাদের পিছনে প্রচুর অর্থ ঢালা হচ্ছে। ইতোমধ্যে, পাকিস্তানের কিছু আফগানীর হঠাৎ কোটি কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক বনে যাওয়ার খবরও পাওয়া গিয়েছে!

সূত্র: উর্দু পয়েন্ট

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img