রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

আজ নাকাবা দিবস

নাকাবা মানে বিপর্যয়। ১৯২৩ সালে খেলাফত বিলুপ্তির পর থেকে ১৯৪৮ সালের ১৪ মে’র আগ পর্যন্ত উসমানী খেলাফতের অধীনে থাকা ফিলিস্তিন ছিলো ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রণে।

ব্রিটিশদের সহায়তায় স্বাধীন ফিলিস্তিনে পা জমানো ইহুদিরা ১৯৪৮ সালের ১৪ মে’র রাত্রিতে তেলে আবিব থেকে ইসরাইল প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয়।

এর আগে তাদেরই অনবরত সন্ত্রাসী হামলা ও আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে ১৪ মে দিনের বেলায় ফিলিস্তিন ছেড়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলো ব্রিটিশরা।

ইহুদিবাদীদের ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণার ফলে ১৫ মে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ বাধে খেলাফত ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়া আরব দেশ ও ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের মাঝে।

কুখ্যাত দুর্ধর্ষ ব্রিটিশ গোয়েন্দা লরেন্সের প্ররোচনায় প্ররোচিত হয়ে খেলাফতের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বসা আরবরা পরবর্তীতে বিলুপ্ত খেলাফতের অভাব দূর করতে সৌদি, মিশর, সিরিয়া, লেবানন, জর্ডান ও ইরাকের মতো দেশগুলোকে নিয়ে আরব লীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলো।

কিন্তু যে খেলাফত অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ, পবিত্র ও বহু স্মৃতি বিজড়িত পবিত্র কুদস ও ফিলিস্তিনকে রক্ষা করে এসেছিলো একেবারে বিলুপ্তির আগ পর্যন্ত, তা ব্রিটিশরা চলে যাওয়ার পর খেলাফতের বিকল্প আরব লীগরা রক্ষা তো করতে পারেইনি উল্টো মার খেয়ে হেরে যাওয়ার উপক্রম হয়।

তবে মিশরীয় বাহিনী এক্ষেত্রে কিছুটা সফলতা দেখিয়েছিলো। ইসরাইলের রাজধানী তেলে আবিবের একদম কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলো মিশরীয় সেনারা। কিন্তু সেই মুহুর্তেই জাতিসংঘ থেকে যুদ্ধবিরতি চুক্তির ডাক সামনে আসে। এতে করে তখনকার মতো নিস্তার পেয়ে যায় গোলাবারুদ ও রসদ ফুরিয়ে আসতে থাকা ইসরাইলীরা।

মূলত অবৈধ দখলকৃত জায়গাতে রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়ে ইহুদিবারা যে নজিরবিহীন নৃশংসতা চালিয়ে শত শত ফিলিস্তিনিকে শহীদ ও লক্ষ লক্ষ ফিলিস্তিনির উপর অমানবিক নির্যাতনের মাধ্যমে নিজেদের ঘর ও ফিলিস্তিন ছাড়তে বাধ্য করেছিলো সেই নির্মম ঘটনাকে নাকাবা বা বিপর্যয় বলা হয়।

জানা যায়, ব্রিটিশদের সহায়তায় ফিলিস্তিনে আগমনের পর থেকেই অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আগে এবং পরে ১৯৪৭ থেকে সাল ১৯৪৯ পর্যন্ত হাগানাহ, স্টার্ন গ্যাং সহ অন্যান্য ইসরায়েলি সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীরা ফিলিস্তিনের ৫৩০টি গ্রামকে সম্পূর্ণ জনমানবহীন গ্রামে পরিণত করে। ১৫ হাজার ফিলিস্তিনিকে শহীদ করে। ৭ লক্ষাধিক ফিলিস্তিনি গৃহহীন উদ্বাস্তুতে পরিণত করে।

১৯৪৮ সালের নির্মম ও মর্মান্তিক নাকাবার ইতিহাস যদিও ৭৫ বছরের পুরোনো কিন্তু তা দিবস হিসেবে পালন শুরু হয় প্রকৃতপক্ষে ১৯৯৮ সাল থেকে।

১৯৯৮ সালে ইসরাইল যখন তাদের কথিত স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ঘটা করে উদযাপনের প্রস্তুতি নেয়, তখন ফিলিস্তিনিদের কিংবদন্তি নেতা ও প্রেসিডেন্ট ইয়াসির আরাফাত সিদ্ধান্ত নেন যে তারাও তাদের নাকাবার ৫০ বছর পূর্তি পালন করবেন। তিনি ইসরাইলের স্বাধীনতা দিবসের পরের দিনটিকে নাকবা দিবস হিসেবে ঘোষণা দেন।

জাতিসংঘ ২০২৩ সালে প্রথমবারের মতো দিবসটি আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করে। যারা কি না ব্রিটিশদের অনুরোধে ফিলিস্তিনে অবৈধ ইহুদিবাদী সন্ত্রাসী অভিবাসীদের থাকার জন্য স্বীকৃতি দিয়ে সহায়তা করেছিলো এবং যুদ্ধবিরতি চুক্তির ফাঁদে ফেলে মিশরীয় সেনাদের তেল আবিব দখল থেকে রুখে দিয়েছিলো।

ফিলিস্তিনি জনগণের অবিসংবাদিত অধিকার আদায়বিষয়ক জাতিসংঘ কমিটি নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দপ্তরে নাকাবা দিবস পালনের আবেদন উত্থাপন করলে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২০২২ সালের ৩০ নভেম্বর তার অনুমোদন দেয়।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img