বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪

তুরস্কের নতুন রণতরীকে ”গেম চেঞ্জার” বললেন মার্কিন সমরবিদ

নাহিয়ান হাসান ও সাজিদ আহসান


তুরস্কের নির্মিত পৃথিবীর প্রথম ড্রোনবাহী রণতরী ‘টিসিজি আনাদোলুকে’ দেশটির জন্য গেম চেঞ্জার বলে আখ্যা দিয়েছেন অভিজ্ঞ মার্কিন সমরবিদ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক রিচ আউটজেন।

অবসরপ্রাপ্ত মার্কিন কর্নেল রিচ আউটজেন ইরাক, আফগানিস্তান, সুদান, লিবিয়া, সিরিয়া, জেরুসালেম সহ বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি দেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ও সামরিক মিশন সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন।

অভিজ্ঞ এই সমরবিদ ‘টিসিজি আনাদোলু’ সম্পর্কে বলেন, “তুরস্কের নৌবাহিনীর জন্য ডিজাইন করা এই ড্রোনবাহী রণতরিটি যেকোনো সময় যুদ্ধের পরিস্থিতি পরিবর্তন করে দিতে সক্ষম। কারন এটি একই সাথে সমুদ্রপথে আক্রমণের পাশাপাশি স্থলে হামলা চালানোর সরঞ্জামও বহন করার ক্ষমতা রাখে যা শত্রুপক্ষের জন্য দ্বৈত হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াতে সক্ষম।”

তুরস্কের সর্ববৃহৎ এই রণতরীটি একই সাথে যুদ্ধবিমান ও ফাইটার ড্রোন বহনে সক্ষম। অন্যান্য জঙ্গি বিমানের পাশাপাশি তুরস্কের তৈরি টিবিটি-৩ ও কিজিল এলমার মতো আধুনিক ফাইটার ড্রোনগুলো এই রণতরীতে সফলভাবে অবতরণ ও উড্ডয়ন করতে পারবে।

ড্রোনবাহী রণতরীটির উদ্বোধনকালে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান এর নির্মাতাদের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

বহুমুখী ব্যবহারের উপযোগী আধুনিক রণতরী সম্পর্কে উচ্ছাস প্রকাশ করে তিনি বলেন, এর মাধ্যমে আমরা দ্রুততম সময়ে বিশ্বের যে কোনো প্রান্তে যেকোনো ধরণের সামরিক অভিযান ও মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করতে সক্ষম হব।

উল্লেখ্য, তুরস্ক প্রথমে এফ-৩৫ মডেলের যুদ্ধবিমান বহনে সক্ষম এমন একটি রণতরী তৈরি করতে চেয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত পাল্টে পৃথিবীর সর্বপ্রথম ড্রোনবাহী রণতরী নির্মাণের পরিকল্পনা সাজায়।

মূলত পৃথিবীর সর্বাধুনিক জঙ্গি বিমান নির্মাণে আমেরিকার অন্যতম সহযোগী হিসেবে এফ-৩৫ প্রজেক্টে কাজ করে আসছিলো তুরস্ক। চুক্তি ছিলো এফ-৩৫ প্রজেক্টটি সফল হলে তুরস্কের কাছে পৃথিবীর সর্বাধুনিক ও ৫ম প্রজন্মের যুদ্ধ বিমানটি বিক্রি করতে বাধ্য থাকবে এর প্রধান নির্মাতা যুক্তরাষ্ট্র।

কিন্তু ২০১৯ সালে রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার চুক্তি সম্পাদিত হলে এফ-৩৫ যুদ্ধ বিমান সংশ্লিষ্ট চুক্তি থেকে পিছু হটে আমেরিকা। চুক্তি অনুযায়ী নির্মাণ সহযোগী দেশটির কাছে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান বিক্রির ক্ষেত্রে বিশ্বাসঘাতকতা করে বসে পরাশক্তিধর দেশটি।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img