রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

গাজ্জায় সাহায্য প্রেরণের আহ্বান জানিয়ে দেওনার পীরের সংবাদ সম্মেলন

গাজ্জায় ইসরাইলী বাহিনীর গণহত্যার প্রতিবাদে ও ফিলিস্তিনের মজলুম মুসলমানদের পাশে মানবিক সহায়তা নিয়ে দাঁড়ানো, দেশ বিরোধী ও জাতি ধ্বংসে এনজিওদের অপতৎপরতা রোধে ব্যবস্থা নেওয়া এবং কোরবানীর চামড়ার ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তির দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছে কওমি মাদরাসা শিক্ষক পরিষদ।

আজ বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন কওমি মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি দেওনার পীর অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, ক‌ওমি মাদ্রাসা শিক্ষা পরিষদের সহ সভাপতি মাওলানা জুবায়ের আহমদ,
মুফতি ইকবাল, মহাসচিব মাওলানা মুস্তাকিম বিল্লাহ হামিদী, যুগ্ম মহাসচিব মুফতি ইমরানুল বারী সিরাজী, মাওলানা শুয়াইব আহমদ আশরাফী, মাওলানা মাজহারুল ইসলাম, মাওলানা ফয়জুল্লাহ, এনামুল হক আইয়ুবী, মাওলানা জালাল আহমদ, মাওলানা নাসির উদ্দিন, মাওলানা নজরুল ইসলাম, মাওলানা আবুল খায়ের ভৈরবী, শায়েখ ইসমাইল হোসাইন সাইফী, মুফতি মুয়াবিয়া আল হাবিবী, মুফতি রফি উদ্দীন মাহমুদ নুরী, মুফতি ওমর ফারুক যুক্তিবাদী, মুফতি খালিদ সাইফুল্লাহ নোমানী প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যে অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, ১৯৪৮ সালে সম্পূর্ণ অন্যায় ও অবৈধ ভাবে ফিলিস্তিনি ভূখন্ডের ৭৭% ভূমি জবর দখল করে আন্তর্জাতিক আইনকানুনের কোন তোয়াক্কা না করে ইসরাইল নামক একটি রাষ্ট্র গঠিত হয়। অবৈধ ভাবে গঠিত রাষ্ট্রটি ৭৬ বছর যাবত হাজার হাজার ফিলিস্তিনি জনগণকে হত্যা, গুম, ধর্ষণ, কারাগারে বন্দি করা সহ নিপিড়ন নির্যাতন চালিয়ে আসছে এবং ক্রমাগত ফিলিস্তিনি ভূমি বেআইনী ভাবে জবর দখল করে ফিলিস্তিনিদেরকে বাস্তচ্যুত করে আসছে। ফিলিস্তিনি জনগণ যেন “নিজ ভূমে পরবাসী”।

মূল ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের আয়তন ছিল ২৭ হাজার বর্গকিলোমিটার। দখলদার ইসরাইল রাষ্ট্রের জবর দখলের পর এখন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের আয়তন মাত্র ৬,২২০ বর্গ কিলোমিটার। তন্মধ্যে পশ্চিম তীরের আয়তন ৫,৮৬০ বর্গ কিলোমিটার এবং গাজ্জার আয়তন মাত্র ৩৬০ বর্গ কিলোমিটার। পশ্চিম তীরে ৩০ লক্ষাধিক মানুষের এবং গাজ্জায় ২০ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস।

তিনি বলেন, গাজ্জার মাত্র ৩৬০ বর্গ কিলোমিটারের ছোট্ট ভূখন্ডে ২০ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস যা ইসরাইল নামক অবৈধ রাষ্ট্রটির সামরিক বাহিনী অবরূদ্ধ করে রেখেছে, বর্হিবিশ্বের সাথে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে যাতে করে বাহির থেকে তাদের কাছে কোন প্রকার ত্রাণ সামগ্রী না পৌঁছে। উপরন্ত তাদের উপর ক্রমাগত বোমা বর্ষন ও গণহত্যা করে যাচ্ছে।

২০২৩ সনের ৭ অক্টোবরের পর হতে মার্কিন-ব্রিটিশদের মদদ পুষ্ট হয়ে বর্বর ইসরাইলী সামরিক বাহিনী ব্যাপক বোমা হামলা, নির্বিচার গণহত্যা ও যুদ্ধে এই পর্যন্ত ৩৭,১৬৪ জন ফিলিস্তিনি শহীদ হয়েছেন, যাদের মধ্যে ১৫ হাজারের অধিক শিশু এবং ১০ হাজারের অধিক নারী রয়েছেন। আহত হয়েছেন ৮৪,৮৩২ জন ফিলিস্তিনি এবং নিখোঁজ রয়েছেন ১০ হাজারেরও অধিক। প্রয়োজনীয় উদ্ধার সামগ্রী না থাকার কারনে ধ্বংস স্তপের নিচে অসংখ্য ফিলিস্তিনি চাপা পড়ে মৃত্যু বরণ করছে। ৬২% বাড়িঘর ধ্বংস করেছে যা সংখ্যার হিসাবে ৩ লক্ষ ৭০ হাজার বাড়ি, বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ১০ লক্ষাধিক মানুষ। গাজ্জার ১২টি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সবগুলোই ধ্বংস করেছে। হাসপাতালগুলি তারা সম্পূর্ণ রূপে ধ্বংস করে দিয়েছে। বেশীর ভাগ মসজিদ মাদরাসা দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করেছে।

ইতিমধ্যে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ যুদ্ধ বিরতির প্রস্তাব পাশ করেছে, কিন্তু এধরনের প্রস্তাব ও চুক্তি গাদ্দার ইহুদী গোষ্ঠি ইসরাইল কোন তোয়াক্কা করে নাই এবং সকল চুক্তি ভঙ্গ করেছে এবং দোষ চাপিয়ে দেয় নিরীহ ফিলিস্তিনদের উপর। তাদের এ ধরনের যুদ্ধ বিরতির প্রস্তাব ও চুক্তি আমেরিকার পাতানো সাজানো নাটক।

এমতাবস্থায় সার্বিক বিবেচনায় ফিলিস্তিনি বিশেষভাবে গাজ্জার বিষয়ে আমাদের প্রস্তাব হচ্ছে-

ক। ফিলিস্তিনে বিশেষভাবে গাজ্জার মুসলমানদের জন্য আর্থিক সহায়তা করা ঃ এ ক্ষেত্রে দেশের বিত্তবানসহ দেশের সকল জনগণকে ফিলিস্তিনি বিশেষভাবে গাজ্জার মুসলমানদের জন্য আর্থিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি। যেহেতু সামনেই ঈদুল আযহায় কোরবানী রয়েছে সেক্ষেত্রে যাদের উপর কোরবানী দেওয়া ওয়াজিব তারা ওয়াজিব পরিমাণ কোরবানী দিয়ে বাকী টাকা এবং যারা নফল কোরবানী করেন এবং প্রতি বছর নফল হজ্জ ও ওমরাহ পালন করেন তারা উক্ত কোরবানী ও হজ্জ ও ওমরাহ খরচের টাকা বিধ্বস্ত ফিলিস্তিন গাজ্জার মজলুম মুসলমান ভাইদের সাহায্য করলে অনেক বেশি প্রতিদান পাবেন ইনশাআল্লাহ। “কওমি মাদরাসা শিক্ষক পরিষদ”এর দায়িত্বশীলদের নিকট দাতাগন কোন অনুদান প্রদান করলে উক্ত অনুদানের টাকা ফিলিস্তিনি বিশেষ ভাবে গাজ্জার রাফায় মানবেতর জীবন-যাপনকারী মুসলমানদের নিকট বৈধ উপায়ে পৌঁছানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করিবে। অনুদান পাঠানোর মাধ্যম পরবর্তীতে জানিয়ে দেওয়া হবে।

খ। ইসরাইলী বর্বরতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ অব্যাহত রাখা ঃ ইসরাইলী বর্বরতার বিরুদ্ধে এবং ফিলিস্তিনির পক্ষে সারা বিশ্বের ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে প্রতিবাদ বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। এমনকি মানবিক কারণে ইউরোপ আমেরিকার অধিকাংশ বিশ্ব বিদ্যালয়গুলোতে অমুসলিম ছাত্র-ছাত্রীরা ফিলিস্তিনের পক্ষে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে। এ ক্ষেত্রে পার্শ্ববর্তী মুসলিম রাষ্ট্র সমুহে তেমন কোন প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি । এমনকি ৯২% মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশেও তেমনটি দেখা যাচ্ছে না। সরকার ও রাজনৈতিক দলগুলো শুধু মাত্র মুখে মুখে নিন্দা প্রকাশ ছাড়া কার্যকরী তেমন কোন ভ‚মিকা রাখছে না। এমতাবস্থায় ইসরাইলী বর্বরতার বিরুদ্ধে এবং ফিলিস্তিনির পক্ষে আমাদের দল মত নির্বিশেষে সোচ্চার হতে হবে। এবং সমস্ত ইসলামিক সংঘঠন গুলো এবং ওলামা মাশায়েখগনকে নিজেদের মধ্যে সকল ভেদাভেদ ভুলে এই ইস্যুতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জোরালো ভ‚মিকা রাখার আহŸান জানাচ্ছি।

গ। সংবাদ মাধ্যমের পৃষ্ঠপোষকতা ঃ সংবাদ মাধ্যম গুলো ফিলিস্তিনের পক্ষে তাদের বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার কারণে বিশ্ব বাসি আজ মজলুম ফিলিস্তিনিদের পক্ষে দাড়িয়েছে। আপনাদের এই প্রচার প্রচারণার ধারা অব্যাহত রাখার জন্য এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আপনাদের প্রতি জোরালো সুপারিশ করছি।

ঘ। পূনর্গঠণ ও পূনর্বাসনে সহায়তা ঃ বিধ্বস্ত ফিলিস্তিন পূনর্গঠণ ও পূনর্বাসন এবং মৌলিক চাহিদা পূরনের জন্য রাষ্ট্রীয় ও সংস্থা ভিত্তিক সহায়তা প্রদান করা।

ঙ। রাজনৈতিক সহায়তা ঃ সারা বিশ্বে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের স্বীকৃতির জন্য সর্বাতœক প্রচেষ্টা চালানো এবং ইসরাইলের দখল দারিত্ব অবসানে কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা।

চ। ইসরাইলী পন্য বর্জন করা ঃ সকল প্রকার ইসরাইলী পন্য সম্পূর্ণ রূপে বর্জন ও বয়কট করে তাদেরকে আর্থিক ভাবে দূর্বল করা।

ছ। ফিলিস্তিনির মুসলমানদের হেফাজত ও বিজয়ের জন্য দোয়া করা ঃ ফিলিস্তিনি মুসলমানদের জান মালের হেফাজত এবং মসজিদুল আকসাকে ইসরাইলী দখলদারি থেকে মুক্ত করা এবং ফিলিস্তিনিদের বিজয়ের জন্য সকল মসজিদ-মাদরাসায় বিশেষ দোয়ার এহতেমাম করা।

এনজিও সংস্থাগুলো অপতৎপরতার বিষয়ে অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার পর বিভিন্ন অজুহাতে বাংলাদেশে নিজেদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। শুরু থেকেই উলামায়ে কেরাম ও সচেতন মহলের সরকার ও জাতিকে এনজিওদের অপতৎপরতার বিষয়ে অবগত করে আসছেন। প্রকৃতপক্ষে সেবার ছদ্মাবরণে অর্থনৈতিক শোষন, ধর্মান্তরীতকরণের মাধ্যমে জাতি গোষ্ঠীর মধ্যে বিভেদ তৈরি করে দেশের স্বাধীনতা বিনষ্টের কারণ হয়ে দাড়িয়েছে ।

এনজিও সংস্থাগুলো অর্থনৈতিক সাহায্যের নামে অর্থনৈতিক শোষণ চালাচ্ছে। তারা ২০% থেকে ৬০% কোন কোন সংস্থা ২২৬% ও ২০০% এরূপ উচ্চ সুদের হারে অর্থ লগ্নী করে। এ সুদ তারা দৈনিক ও সাপ্তাহিক উশুল পদ্ধতির মাধ্যমে সংগ্রহ করে। আর এই সর্বনাশা ঋণ পরিশোধ করতে গিয়ে অনেক পরিবার ভিটে-বাড়ি ছাড়া হয়েছে, অনেকে আতœহত্যা করেছে, অনেকে সন্তান বিক্রি করেছে, অনেকে তাদের যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে। বিভিন্ন সমীক্ষার রিপোর্ট অনুসারে দারিদ্র বিমোচনের পরিবর্তে এনজিওগুলোর কারণে উল্টো দরিদ্রতা সমাজকে আরও চরমভাবে গ্রাস করে নিচ্ছে।

এনজিওগুলো দুঃস্থ জনসাধারণকে সাহায্য-সহযোগীতার নামে অনুমোদন লাভ করে এবং কোনরূপ রাজনৈতিক কর্মতৎপরতা আইনি ভাবেই তাদের জন্য নিষিদ্ধ। কিন্তু বিদেশী খৃষ্টান মিশনারীদের দ্বারা পরিচালিত এনজিওগুলো শক্তিশালী রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে আতœপ্রকাশ করেছে। বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তারা প্রকাশ্যে অংশগ্রহণ করছে। এনজিওগুলো শুধু নির্বাচন কালে সক্রিয় থাকে এমন নয়, বরং প্রত্যেকটি রাজনৈতিক ইস্যুতেই তারা কোন না কোন ভাবে নগ্ন হস্তক্ষেপ করে থাকে। এবং আমাদের দেশের উন্নয়নকে ব্যহত করার জন্য আমাদের শিল্প কারখানা ধ্বংস করার জন্য মালিক-শ্রমিকদের মধ্যে দ্বন্দ এবং আন্দোলন সংগ্রামের সৃষ্টি করে অর্থনৈতিক উনয়ন্নে ক্ষতিগ্রস্ত করার নেপথ্যে এই সকল এনজিও কাজ করে যাচ্ছে যা আমাদের স্বাধীনতা, শান্তি, শৃঙ্খলা, উন্নয়নের ও সার্বভৌমত্বের জন্য চরম হুমকি স্বরূপ।

এনজিওগুলো অন্যান্য ক্ষেত্রের ন্যায় ধর্মীয় ক্ষেত্রেও মারাতœকভাবে প্রভাব বিস্তার করে চলেছে। মুসলমানদেরকে খৃষ্টধর্মে ধর্মান্তরিত করার লক্ষ্যে তারা হরেক রকমের অপকৌশল অবলম্বন করছে। শিক্ষা প্রদানের নামে এনজিও পরিচালিত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তারা কোমলমতি শিশুদের মগজ ধোলাই করছে। ‘ইসলাম’ ও ‘আল্লাহ’ সম্পর্কে বিভ্রান্তির বীজ তাদের মনে ঢুকিয়ে দিচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার ২৩/০৫/২০২৪ ইং তারিখে বক্তব্যে যথার্থই বলেছেন যে, “এদেশের একটি অংশ নিয়ে পূর্ব তিমুর এর মত ভিন্ন একটি খৃষ্টান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করার ষড়যন্ত্র চলছে।”

এমতাবস্থায় এনজিওদের অপতৎপরতারোধে আমাদের দাবী হলো –
ক। যে সকল অঞ্চলে খৃষ্টান এনজিও ও মিশনারী সেবার নামে খৃষ্টান বানানোর অপতৎপরতায় অনেক দূর এগিয়ে গেছে অবিলম্বে তাদের সকল কার্যক্রম বন্ধ করা, ঐ সকল স্থানে ইসলামি ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে অথবা অনুমোদিত মুসলিম এনজিওদের মাধ্যমে দ্বীনি শিক্ষা ও দাওয়াতের মেহনতের সুযোগ সৃষ্টি করা।

খ। জাতীয় শিক্ষা কারিকুলামে একটা নির্দিষ্ট স্তর পর্যন্ত মুসলিম সন্তানদের জন্য ইসলামি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা। বর্তমানে প্রচলিত বিতর্কিত শিক্ষা কারিকুলাম সম্পূর্ণরূপে বাতিল করা।

গ। ব্রিটিশদের প্রবর্তিত শিক্ষা কারিকুলামে মূল লক্ষ্যই ছিল ধর্মহীন কর্ম শিক্ষার মাধ্যমে জাতিকে ইসলাম শূণ্য করা তা বর্তমানে ৯৮% সফলভাবে কার্যকর হয়েছে। মুসলিম জাতিসত্ত¡া আজ হুমকির সম্মুখীন। এমন পরিস্থিতিতে দেশের প্রত্যেক গ্রামে পাড়া মহল্লায় মক্তব মাদরাসা কায়েম করে মুসলমান সন্তানদের বাল্যকালেই দ্বীনি শিক্ষা প্রদান নিশ্চিত করা।

কওমি মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, দেশে চামড়াজাত পণ্যের দামের তুলনায় চামড়ার দাম একেবারেই নগন্য। যার কারণে চামড়ার দাম কমে যাওয়ার ফলে গোস্তের দাম বৃদ্ধি পেঁয়েছে। চামড়ার তৈরি পণ্যের মূল্য আকাশচুম্বী। এক জোড়া জুতা কিংবা একটি চামড়ার ব্যানিটি ব্যাগের কমপক্ষে মূল্য যেখানে ৩ হাজার থেকে শুরু করে ১ লক্ষ টাকার অধিক, সেখানে একটি গরুর চামড়ার দাম মাত্র ৪০০/৫০০ টাকা এবং একটি ছাগলের চামড়ার তো কোন মূল্যই নেই। যে চামড়ার দ্বারা এত দামি পণ্য তৈরি হয় সেই চামড়ার মূল্য এত কম কেন? এখানে মধ্যসত্ত¡ ভোগি সিন্ডিকেট দায়ী। এ দ্বারা স্পষ্টতঃই প্রমাণিত হয় যে, দেশী বিদেশী ষড়যন্ত্রকারী সিন্ডিকেট চামড়ার অবমূল্যায়নের সাথে জড়িত। উল্লেখ্য যে কোরবানির চামড়ার মূল্য সম্পূর্ণ গরিবদের হক। এ বিষয়টি দীর্ঘদিন যাবত সরকারের কাছে বার বার দাবি করা সত্তে¡ও কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করা হচ্ছে না। আমাদের দাবি হলো সিন্ডিকেটের মূল হোতাদের খুজে বের করে দোষীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img