সোমবার, জুলাই ২২, ২০২৪

এরদোগানকে নির্বাচিত করতে তুরস্কের জনগণের প্রতি বিশ্বের প্রখ্যাত উলামা ও মুসলিম স্কলারদের আহ্বান

আগামী রোববার (১৪ মে) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে বর্তমান ইসলামপন্থী প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের লড়াই হতে চলেছে বামপন্থী নেতা কামাল কিলিচদার ওগলুর সাথে।

এদিকে এরদোগান ও তার দলকে নির্বাচিত করতে তুরস্কের জনগণের প্রতি আহবান জানিয়েছেন বিশ্বের প্রখ্যাত আলেম-ওলামা ও ইসলামী স্কলারগণ।

বুধবার ফিলিস্তিন ওলামা পরিষদের প্রধান ডক্টর নাওয়াফ হায়েল তাকরুরী এক বিশ্বের প্রখ্যাত আলেম-উলামাদের পক্ষ থেকে বিবৃতিটি প্রকাশ করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়,


তুরস্কের নির্বাচন ইসলামী ইস্যু সমূহের অন্যতম। এর ফলাফলের প্রভাব তুরস্ক এবং পুরো বিশ্বের মুসলিমদের উপর দৃশ্যমান হবে। তাই তদসংশ্লিষ্ট করণীয় ও যাবতীয় নসিহাহ পেশ করা থেকে আলেম-ওলামারা নিশ্চুপ থাকতে পারেন না।

এটা সকলেরই জানা থাকার কথা যে, তুরস্কের রাজনীতি রজব তাইয়েব এরদোগানের হাত ধরে বহু সুবিধা সমেত মুসলিমদের কাছে ফিরে এসেছে। দেশটির জনগণই প্রথম থেকে এর সুবিধা ভোগ করে আসছে। কেননা তার রাজনৈতিক পলিসি সকলের পূর্ণ স্বাধীনতা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে। হিজাব ও অন্যান্য বিষয়ের স্বাধীনতার উপর যেসব নিষেধাজ্ঞা ও বাঁধা ছিলো তা দূর করেছে। এমনকি কুরআ হিফজের চর্চা ও হাফেজের সংখ্যা বহুগুণে বেড়েছে। অধিক হারে মসজিদও নির্মিত হচ্ছে।

প্রকৃত শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসেবে উত্থান ঘটাতে তুরস্ককে রাজনৈতিকভাবে শক্তিশালী করা হয়েছে। এতে করে তারা আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুগুলোতে ক্ষমতাধরদের মতো জোরালো ভূমিকা পালনকারী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতা সত্ত্বেও অর্থনৈতিকভাবে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ২০টি দেশের কাতারে নিজেদের তুলে এনেছে। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে পৃথিবীর সর্বাধুনিক বৈদ্যুতিক গাড়ি টোগ তৈরি করেছে। নিত্যনতুন প্রাকৃতিক তেল ও গ্যাসের খনি আবিষ্কার করে যাচ্ছে যা দেশটিকে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে আরো সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

নিত্যনতুন অস্ত্রসমৃদ্ধ সাঁজোয়া যান, অত্যাধুনিক ফাইটার ড্রোন, জঙ্গি বিমান ও বিশ্বের সর্বপ্রথম ফাইটার ড্রোন ও স্থল যুদ্ধযানবাহী রণতরী নির্মাণের পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য হারে সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করার ক্ষেত্রেও সফলতা দেখিয়েছে।

স্বাস্থ্যসেবার মান বাড়ানোর পাশাপাশি দেশব্যাপী অত্যাধুনিক সুবিধা সম্পন্ন হাসপাতালের সংখ্যাও বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে করে স্বাস্থ্য খাতেও অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে দেশটি।

এসব উন্নয়নের সুবিধা শুধু তুরস্কই ভোগ করছে না বরং পুরো বিশ্বের মুসলিমরাও ভোগ করছে। কারণ এসবের মাধ্যমে তুরস্ক যে দেশকে যেভাবে সহায়তা করা প্রয়োজন সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে পারছে।

এছাড়া এরদোগানের হাত ধরে ২০ বছর আগের তুরস্ক কিভাবে পাল্টে গিয়েছে তুরস্কের ভোটাররা নিজেরাই জানেন এবং প্রত্যক্ষ করেছেন।

তার হাত ধরে ঐতিহাসিক ইস্তাম্বুল আজ বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর শহরগুলোর অন্যতম। শহরের জলাবদ্ধতা, স্যানিটেশন ও আবর্জনা সমস্যা অভাবনীয় উপায়ে দূর করেছেন তিনি।

এছাড়া পাশ্চাত্যের ইসলাম বিদ্বেষ ও পিতা-মাতা থেকে সন্তান বিচ্ছেদের মতো বিভিন্ন ইসলাম বিদ্বেষী আইন নিয়ে ভীত মুসলিম বাবা-মা এবং প্রাচ্যের নির্যাতিত কাশ্মীরী, উইঘুর ও রোহিঙ্গাদের মতো জুলুম-নির্যাতনের শিকার বিশ্বের প্রতিটি মুসলিমের আস্থার জায়গা ও নিরাপদ আশ্রয়স্থলেও পরিণত হয়েছে তুরস্ক। অধিকাংশ নির্যাতিত মুসলিম দেশটিতে কাঙ্ক্ষিত নিরাপত্তা, স্বাধীনতা, সম্মান ও ন্যায়বিচারের দেখা পেয়েছে।

একারণে পুরো বিশ্বের আলেম সমাজের একটি বড় অংশ, আহলে ফন, শ্রেষ্ঠ আলেম-ওলামা ও দ্বীনি ব্যক্তিত্বগণ তুরস্ককে তাদের আবাসস্থলে পরিণত করেছেন।

তাদের দীর্ঘদিন থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছিলো। সমাজ পরিবর্তনে তারা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং হয়ে উঠেছিলেন তুর্কি সমাজের ঘনিষ্ঠ অংশ। এক্ষেত্রে তাদের যথাযথ নিরাপত্তা ও সম্মানের প্রতিও পূর্ণ লক্ষ্য রাখা হয়েছিলো।

তুরস্ক বিভিন্ন দেশে সরাসরি হস্তক্ষেপও করে আসছে নিয়মিত যা মুসলিমদের জন্য কল্যাণ বয়ে আনছে। যেমন, আর্মেনিয়ার দখলকৃত অঞ্চল মুক্ত করতে আজারবাইজানকে সমর্থন, ২০১৭ সালের সংকটকালীন সময়ে কাতারকে সমর্থন, রক্তাক্ত সিরিয়ায় হস্তক্ষেপ ও তার উত্তরে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা, লিবিয়ায় হস্তক্ষেপ ও ত্রিপোলিতে হামলা বন্ধ।

এছাড়া রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে নিয়ে পশ্চিমাদের ক্রমাগত কটূক্তি, ব্যঙ্গচিত্র,অবমাননা ও ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে জোরালো ভূমিকা রেখে আসছে তুরস্ক।

রাসূলের ভবিষ্যদ্বাণী মোতাবেক বিজিত কনস্টান্টিনোপলের আয়াসোফিয়াকে তার বিজয় পরবর্তী অবস্থান জামে মসজিদে ফিরিয়ে নিয়ে যেতেও পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে ছিলো এরদোগানের নেতৃত্বে থাকা দেশটি।

পবিত্র কুদসকে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের হাত থেকে বাঁচাতে ও চলমান ফিলিস্তিন ইস্যুতেও একাধিক শক্তিশালী পদক্ষেপ নিয়েছে একসময় ইসলামী খেলাফতের নেতৃত্বদানকারী দেশটি।

আসন্ন নির্বাচনে এরদোগানের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দলের লক্ষ্য উদ্দেশ্য কারো কাছে অস্পষ্ট নয়। কেননা তারা তুরস্কের বর্তমান পলিসিকে আগের অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে স্পষ্ট ভাষায় প্রকাশ্যে কথাবার্তা বলে থাকে।

এই দলটি তুরস্ক ও মুসলিম বিশ্বের শত্রুদের কাছ থেকে যে বিপুল সমর্থন পায় সেটিও কোনো গোপন বিষয় নয়। পশ্চিমা মিডিয়াগুলোও প্রকাশ্যে এই বিষয়টি প্রচারে কুণ্ঠাবোধ করে না।

এগুলো সহ আরো অন্যান্য বিষয় যেগুলো এখানে বিস্তারিত বর্ণনার প্রয়োজন রাখে না সেসব কারণে ওলামাগণ পুরো মুসলিম বিশ্বকে নিম্নোক্ত দিকনির্দেশনা দেওয়ার প্রয়োজনবোধ করছেন।

এই নির্বাচনে ভোট দেওয়ার অধিকারী মুসলমানদের অবশ্যই নির্বাচনে যেতে হবে এবং প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান, জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি এবং তাদের সংস্কার প্রকল্পের পক্ষে ভোট দিতে হবে।

তুর্কি নাগরিক যাদের এই অধিকার নেই এবং বিশ্বের সকল মুসলিমকে আহবান জানাবো তারা যেনো অবশ্যই তুরস্কে তাদের ভাইদের সমর্থন করে। সাধ্যমতো মিডিয়া কভারেজ, সচেতনতা তৈরি, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও অন্যান্য সহায়তার জন্য এগিয়ে আসে। আর সফলতার জন্য দোয়া-দরূদের মাধ্যমে সর্বশক্তিমান আল্লাহ তায়ালার দিকে রুজু হয়।

আল্লাহ তায়ালাই একমাত্র সাহায্য প্রার্থনার উপযুক্ত। তিনিই একমাত্র ভরসাস্থল।


বিশ্ববরেণ্য যেসব আলেম এই বিবৃতিতে সাক্ষর করেছেন।

১। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের জেনারেল সেক্রেটারি ড. আলী আল-কারাহ দাগী।

২। লিবিয়ার গ্র্যান্ড মুফতি শায়েখ সাদেক আল গুরয়ানী।

৩। ইয়েমেনের জামিয়াতুল ঈমান আল ইয়ামানিয়ার প্রতিষ্ঠাতা শাইখ আব্দুল মাজিদ আল জিনদানী।

৪। তুর্কি মুসলিম ওলামা পরিষদের প্রধান শাইখ আব্দুল ওয়াহাব আকিঞ্জি।

৫। মৌরিতানিয়া ওলামা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রধান শাইখ মুহাম্মদ আল হাসান আল দাদৌ।

৬। ফিলিস্তিন ওলামা পরিষদের প্রধান ড. নাওয়াফ আল তাকরুরী।

৭। আন্তর্জাতিক নুসরাতুন নবী (সা:) সংস্থার প্রধান ড. মুহাম্মদ সগীর।

৮। রাবেতাতুল ওলামা মরক্কোর প্রধান ড. হাসান বিন আলী আল কাত্তানী।

৯। আলেম-ওলামাদের আন্তর্জাতিক সংস্থা রাবেতাতু ওলামাইল মুসলিমিনের প্রধান ড. মুহাম্মদ আল আবদাহ।

১০। পাকিস্তান ইত্তেহাদুল ওলামার প্রধান শায়েখ আব্দুল মালেক।

১১। ইরাকের রাবেতাতু খুতাবা ওয়াল আইম্মার প্রধান শায়েখ সাঈদ আল লাফী।

১২। আনসারুন নবী (সা:) একাডেমির প্রধান ড. আব্দুল হাই ইউসুফ।

১৩। রাবেতাতু ওলামায়ী আহলিস সুন্নাহর সেক্রেটারি জেনারেল ড. জামাল আব্দুস সাত্তার।

১৪। ফিলিস্তিনি রাবেতায়ে ওলামা পরিষদের প্রধান ড. নাসিম ইয়াসিন।

১৫। ওলামা ফোরামের সেক্রেটারি জেনারেল ড. সাঈদ বিন নাসের আল গামেদী।

১৬। ইমাম মুহাম্মদ বিন আব্দুল ওয়াহাব মসজিদের খতিব ড. আব্দুল্লাহ সাদাহ।

১৭। মালয়েশিয়া আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদ শাখার প্রধান শায়েখ ওয়ান সুবকী ওয়ান সালেহ।

১৮। কুর্দিস্তান আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের সদস্য ড. হামদ সাইয়েদ বাংজওয়ীনী।

১৯। আল আজহার ওলামা ফ্রন্টের সদস্য ড. জাফর আত-তলহাওয়ী।

২০। মৌরিতানিয়ার গ্রহণযোগ্য বিশিষ্ট আলেমদের অন্যতম শাইখ আব্দুল্লাহ আহমদ আমিন।

২১। মৌরিতানিয়ার গ্রহণযোগ্য বিশিষ্ট আলেমদের অন্যতম শায়েখ আহমদ আমাত।

২২। মৌরিতানিয়ার গ্রহণযোগ্য বিশিষ্ট আলেমদের অন্যতম শায়েখ মুহাম্মদ আমিন আত-তালেব ইউসুফ।

২৩। রাবেতাতুল ওলামা মরক্কোর উপ-মহাসচিব শায়েখ আহমদ আল হাসানি আশ-শানকিতী।

২৪। আলজেরিয়া আন্তর্জাতিক নুসরাতুন নবী (সা:) সংস্থার বোর্ড অফ ট্রাস্টি আল মুখতার বিন আল আরাবি মুমিন।

২৫। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের পরিবার বিষয়ক কমিটির প্রধান ড. ক্যামিলিয়া হিলমি তূলূন।

২৬। বুদ্ধিবৃত্তিক জ্ঞান সমাবেশ ও সভ্যতার সংলাপ বিষয়ক কমিটির প্রধান নুযাইহা আল মা’আরিজ

২৭। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের বোর্ড অফ ট্রাস্টির সদস্য ফাতেমা আযযাম।

২৮। আফগানের শরঈ রাজনীতি বিষয়ক প্রফেসর ড. মুহাম্মদ হুসাইন সাঈদ আফগানী।

২৯। জেরুসালেম গ্লোবাল নলেজ প্রজেক্টের প্রতিষ্ঠাতা ড. আব্দুল ফাত্তাহ আল ওয়াইসী।

৩০। ইরাক ফিকাহ একাডেমির সদস্য ড. হুসাইন গাজী আল সামিরা’য়ী।

৩১। সম্মিলিত শিক্ষা বিষয়ক আফগান ওলামা পরিষদের সদস্য শায়েখ মুহাম্মদ হারুন খতিবী।

৩২। জামিয়াতুয যায়তুনাহ তিউনিসিয়ার উস্তাদুল হাদিস ওয়াস সিরাত ড. ওমর শিবলী।

৩৩। জামিয়াতু সাবাহিদ্দীন যায়িমের উস্তাদুল ফিকহ ওয়াল উসূল ড. মুহাম্মদ হাম্মাম মুলহিম।

৩৪। উচ্চতর শরীয়াহ গ্র‍্যাজুয়েশন প্রফেসর ড. কামিল সাবাহি সালাহ।

৩৫। বাহরাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. খালেদ আব্দুর রহমান আল শানু।

৩৬। লেবানন দাওয়াহ সেন্টার ওয়াকফু বাইতিদ দাওয়াহ-র প্রধান শেখ আহমদ আল ওমরী।

৩৭। কুয়েতের বিশিষ্ট ইসলামী গবেষক ও দাঈ ড. মিশারী সাঈদ আল মিতরাফী।

৩৮। আনসারুন নবী (সা:) ওয়াকফের বিশিষ্ট কর্মকর্তা শাইখ হুসাইন আব্দুল আ’ল।

৩৯। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের বিশিষ্টজন ড. মুহাম্মদ আব্দুল হামিদ আল শাকলিদী।

৪০। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা সংস্থা আমেরিকার বিশিষ্ট সদস্য ড. সা’দ উদ্দিন হাসানাইন।

৪১। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের বিশিষ্টজন ড. মুনির জাম’আহ আহমদ।

৪২। ইদলিব বিশ্ববিদ্যালয়ের শরিয়া ও আইন অনুষদের প্রফেসর ড. আনাস আইরুত।

৪৩। কুয়েত বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী শরীয়া অনুষদের প্রফেসর ড. তারেক আল তাওয়ারী।

৪৪। কুয়েত ওয়াকফ মন্ত্রণালয়ের ইমাম ও খতিব ড. সালাহ আল মুহাইনী।

৪৫। আম্মানের বিশিষ্ট দাঈ শায়েখ আব্দুল্লাহ বিন তাহের বিআ’মার

৪৬। ইয়েমেনি রেনেসাঁ অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান ড. আব্দুল্লাহ আল জিনদানী।

আন্তর্জাতিক নুসরাতুন নবী (সা:) সংস্থার জেনারেল সেক্রেটারিয়েট বোর্ডের ৪৭। মুহাম্মদ ইলহামী। ৪৮। ড.মুহাম্মদ আল মুখতার মুহাম্মদ আলমামী। ৪৯। ড.মুহাম্মদ আল আমিন ইবনে মাজিদ।

৫০। আন্তর্জাতিক নুসরাতুন নবী (সা:) সংস্থার জেনারেল সেক্রেটারিয়েট সদস্য শায়েখ সাঈদ আস-সায়িদী।

৫১। রাবেতাতু ওলামায়িল মুসলিমিনের সদস্য শায়েখ হাসান সালমান।

৫২। ইরান দারুল উলূম জাহিদান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মুহাম্মদ ইসমাইল।

৫৩। আন্তর্জাতিক নুসরাতুন নবী (সা:) সংস্থার বোর্ড অফ ট্রাস্টির সদস্য শায়েখ হাসান কাতিরজী।

৫৪। ড. সালেহ হুসাইন আল রাকাব, ফিলিস্তিন।

৫৫। তুর্কিস্তান ওলামা পরিষদের শায়েখ মাহমুদ মুহাম্মদ আল তুর্কিস্তানী।

৫৬। তুরস্কের ইত্তেহাদুল ওলামা ওয়াল মাদারিসের প্রধান শায়েখ মোল্লা আনোয়ার আল ফারকিনী।

৫৭। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের সদস্য শায়েখ ইসলাম আল গামারি।

৫৮। তুরস্কের ইত্তেহাদুল ওলামা ওয়াল মাদারিসিল ইসলামিয়ার সহকারী প্রধান শায়েখ সা’দ ইয়াসিন।

৫৯। মালয়েশিয়া ইউনিভার্সিটি লেকচারার ড. আহমদ ইউসুফ।

৬০। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের সদস্য ড. মাহমুদ সাঈদ আল শাজরাওয়ী।

৬১। বাংলাদেশ ওলামা-মাশায়েখ কমিশনের সাধারণ সম্পাদক ও মাজলিসুল ফাতওয়া বাংলাদেশের প্রধান ড. মুহাম্মদ খলিলুর রহমান মাদানি।

৬২। আন্তর্জাতিক ইসলামী ওলামা ঐক্য পরিষদের সদস্য ড. আব্দুস সালাম আল-বাসয়ুনী।

৬৩। মরক্কোর মুহাম্মদ (১ম) ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ড. হাসান ইয়াশু।

৬৪। মৌরিতানিয়া ওলামা পরিষদের সাবেক প্রধান শাইখ মুহাম্মদ সালেম বিন দুদু।

৬৫। মৌরিতানিয়ার বিশিষ্ট কবি ও ওলামা পরিষদের সদস্য ড. মুহাম্মদ জারূক।

৬৬। কানাডার অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ড. জামাল বাদাওয়ী।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img