রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

সাইফুল আজম, যে বাংলাদেশি অবদান রেখেছেন আল আকসা রক্ষায়

মুসলমানদের প্রথম কিবলা পবিত্র আল আকসা রক্ষায় ইসরাইলের সবচেয়ে বেশি যুদ্ধবিমান ধ্বংস করে ইতিহাস সৃষ্টি করা লিভিং ঈগল সাইফুল আজমের আজ জন্মবার্ষিকী। তিনি ১৯৪১ সালে ১১ সেপ্টেম্বর পাবনা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

সাইফুল আজম ছিলেন একমাত্র বৈমানিক যিনি ৪টি দেশের হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন, এবং ৩টি দেশের হয়ে সরাসরি যুদ্ধে অংশ নিয়ে বীরত্বের পরিচয় দিয়েছেন। একই সাথে ইসরাইলের ৪টি যুদ্ধবিমান ধ্বংস করে বিশ্বের ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। তার সেই রেকর্ড গত ৫৬ বছরেও কেউ ভাঙতে পারেনি।

সাইফুল আজম ১৯৪১ সালে পাবনা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৬ সালে উচ্চতর শিক্ষার জন্য পশ্চিম পাকিস্তান যান। ১৯৫৮ সালে তিনি ভর্তি হন পাকিস্তান এয়ার ফোর্স ক্যাডেট কলেজে। দুই বছর পর ১৯৬০ সালে পাইলট অফিসার হয়ে শিক্ষা সম্পন্ন করেন। একই বছর তিনি জেনারেল ডিউটি পাইলট হিসেবে কমিশনপ্রাপ্ত হয়ে যোগ দেন পাকিস্তান বিমানবাহিনীতে।

সাইফুল আজম পাকিস্তান বিমানবাহিনীর হয়ে আমেরিকায় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। এই কোর্সে তিনি সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে ‘টপ গান’ খেতাব পান। ১৯৬৩ সালে তিনি পাকিস্তান বিমানবাহিনীর ঢাকার কেন্দ্রে নিযুক্ত হন। এরপর তিনি করাচির মৌরিপুর বর্তমানে যা মাশরুর এয়ার বেস এর টি-৩৩ বিমানের প্রশিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত হন।

১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধে পাকিস্তান বিমানবাহিনীর ১৭ নম্বর স্কোয়াড্রনের হয়ে যুদ্ধে অংশ নেন সাইফুল আজম। আকাশ যুদ্ধে ভারতীয় বিমান বাহিনীর ফ্লাইট অফিসার বিজয় মায়াদেবের বিমানকে তিনি ভূপাতিত করেন। একই সাথে যুদ্ধবন্দী হিসেবে আটক হোন বিজয় মায়াদেব।

১৯৬৫ সালের যুদ্ধে ভারতের বিরুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পাকিস্তানের তৃতীয় সর্বোচ্চ সামরিক পদক সিতারায়ে জুর্‌রাত্‌ খেতাবে ভূষিত হোন সাইফুল আজম।

১৯৬৭ সালে বাইতুল মোকাদ্দাসকে পূর্ণরূপে দখলের জন্য যুদ্ধ শুরু করে ইসরাইল। পশ্চিমাদের পূর্ণ সমর্থনে ইসরাইলী সেনারা একের পর এক হামলা চালাতে থাকে পার্শ্ববর্তী আরব মুসলিম দেশগুলোর ওপর। প্রথমেই তারা আক্রমণ চালায় তৎকালীন সময়ের সবচেয়ে শক্তিশালী মুসলিম দেশ মিশরের বিমানবাহিনীর ওপর। বোমাবর্ষণ করে মিশরীয় বিমানবাহিনীর সব বিমান অচল করে দেওয়া হয়।

মিশরের বিমানবাহিনীকে ধ্বংসের পর ইসরাইলী বাহিনী জর্দানের বিমান ঘাটির ওপর হামলার জন্য রওয়ানা দিলে ডাক আসে উম্মার বীরপুত্র সাইফুল আজমের। জর্দানের বিমানবাহিনীর হয়ে আকাশে যুদ্ধে লিপ্ত হোন সাইফুল আজম। অসামান্য দক্ষতা এবং সাহসিকতার সাথে ইসরাইল থেকে উড়ে আসা ৪টি যুদ্ধবিমানের মধ্যে দুইটিকে একাই ধ্বংস করে দেন তিনি। সাইফুল আজমের হামলায় প্রায় অকেজো হয়ে তৃতীয় ইসরাইলী বিমানটি ধোঁয়ার কুন্ডলি পাকিয়ে পালিয়ে যায় নিজেদের সীমানায়।

এ ঘটনার দুইদিন পর ইরাকের বিমান বাহিনীর হয়ে ইসরাইলকে ঠেকাতে আকাশে উড়েন সাইফুল আজম। সঙ্গে ছিলেন আরেক পাইলট ইহসান শার্দুম। আক্রমণ চালাতে উড়ে আসা ইসরাইলের ৬টি যুদ্ধবিমানের বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলেন সাইফুল আজম ও তার সঙ্গীরা। কয়েকটি ইসরাইলী যুদ্ধবিমানকে পরাস্ত করে  পাইলটকে যুদ্ধবন্দী করেন তিনি।

যুদ্ধে ঐতিহাসিক কৃতিত্বের জন্য জর্ডানের পক্ষ থেকে সাইফুল আজমকে ‘হুসামে ইস্কিলাল’ ও ইরাকের পক্ষ থেকে ‘নাত্‌ আল-সুজাহ্‌’ খেতাব দেওয়া হয়।

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে সাইফুল আজম সিদ্ধান্ত নেন নিজ মাতৃভূমির স্বাধীনতাকামীদের পাশে দাঁড়াবার। তার ছাত্র বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান বিমান নিয়ে পালিয়ে আসার সময় শহীদ হলে সাইফুল আজমকে আটক করে পাক সেনাবাহিনী। ২১ দিন অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাকে। যুদ্ধ শেষের পরও পাকিস্তানে গৃহবন্দী ছিলেন সাইফুল আজম। ১৯৭৪ সালে তিনি বাংলাদেশে ফিরত আসেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে ফেরার পর বাংলাদেশ বিমানবাহিনীতে যোগ দেন সাইফুল আজম। ১৯৭৭ সালে উইং কমান্ডার পদে পদোন্নতি পান। ১৯৭৯ সালে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী থেকে গ্রুপ ক্যাপ্টেন হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।

১৯৯১ সালে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির রাজনীতিতে যোগ দেন সাইফুল আজম। পঞ্চম ও ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি পাবনা ৩ আসন থেকে দুই দফায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হোন।

যুদ্ধক্ষেত্রে অনন্য সব অর্জনের স্বীকৃতি হিসেবে সাইফুল আজমকে ২০০১ সালে মার্কিন বিমান বাহিনী বিশ্বের ২২ জন লিভিং ঈগলসের একজন হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

মুসলিম উম্মার এই মহান বীর ২০২০ সালের ১৪ই জুন দুপুর ১টায় ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img