সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

সৌদি-ইরান বৈরিতা যেভাবে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করেছে মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে

চীনের মধ্যস্থতায় দীর্ঘ সাত বছর পর গত মার্চের ১০ তারিখ ইরান ও সৌদি আরব পুনরায় তাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে রাজী হয়েছে। যার ফলে দুই দেশের মধ্যে আবারও বাণিজ্য ও নিরাপত্তা সহযোগিতা শুরু হতে চলেছে। একই সাথে আগামী দুই মাসের মধ্যে উভয়েই পরস্পরের রাজধানীতে খুলতে যাচ্ছে দূতাবাস।

কিন্তু মধ্যপ্রাচ্যের নেতৃত্ব দেওয়া এই শিয়া ও সুন্নি মুসলিম শক্তি বছরের পর বছর ধরে মতবিরোধে লিপ্ত ছিল যা এই অঞ্চলের বিভিন্ন দেশে চলমান ছায়াযুদ্ধে প্রতিপক্ষকে সমর্থন করে।

সিরিয়া:
২০১১ সালে সিরিয়া যুদ্ধ শুরু হয়। এর ফলে প্রতিদ্বন্দ্বীরা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে পড়ে। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদকে সমর্থন করে ইরান। আসাদ বিরোধী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য সামরিক বাহিনী ও অর্থ প্রদান করেছিল শিয়া অধ্যুষিত দেশটি। অন্যদিকে প্রেসিডেন্ট আল আসাদকে উৎখাত করার জন্য যুদ্ধরত বিরোধী গোষ্ঠীগুলোকে সমর্থন করে সৌদি আরব।

কিন্তু ইরানের সমর্থনে ঘুরে দাঁড়ায় বাসার আল আসাদ। বিদ্রোহীদের উপর থেকে কমতে থাকে সৌদি আরবের রাজনৈতিক ও সামরিক সমর্থন। তাই সৌদি আরব সিরিয়ার সঙ্গে পুনরায় সম্পর্ক স্থাপনে আলোচনা শুরু করেছে। সৌদি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে আরব লীগে ফিরতে পারে সিরিয়া।

লেবানন:
ভূমধ্যসাগরের ছোট একটি দেশ লেবানন। এখানে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য শাসকগোষ্ঠী পূর্ব থেকেই বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভর করত। ইরান ও সৌদি আরবের শত্রুতার কারণে লেবাননের স্থিতিশীলতা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

অনেক বছর ধরে লেবাননের সুন্নি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সমর্থন জানায় সৌদি আরব। যার দরুন দেশটির সঙ্গে
বেশ ভালো সম্পর্ক চলছিল সৌদির। কিন্তু ২০১৬ সালের নির্বাচনের পর লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিচেল আওনকে ইরান সমর্থিত হেজবুল্লাহ সমর্থন দিলে সমস্যার সৃষ্টি হয়।

লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি ২০১৭ সালের নভেম্বরে হত্যা চেষ্টা ও ইরানপন্থি হেজবুল্লাহর প্রভাবকে দায়ী করে সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদ থেকে পদত্যাগ করেন। পরবর্তীতে তিনি পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার করে নেন। কিন্তু তার এসব সিদ্ধান্তের কারনে লেবাননের রাজনৈতিক সংকট চরম আকার ধারণ করে।

ইরাক:
প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের ক্ষমতাকালীন সময়ে ইরাকে তেমন সুবিধা করতে পারেনি ইরান। কিন্তু ২০০৩ সালে সাদ্দাম হোসেনের পতনের মধ্য দিয়ে ইরাকের ওপর প্রচণ্ড প্রভাব বিস্তার করে ইরান।

ইরাকের শিয়া রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত আধাসামরিক বাহিনীগুলোকে সমর্থন দেয় ইরান। যার উদ্দেশ্য ছিল দায়েসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য একটি কার্যকর বাহিনী গঠন করা। পরবর্তীতে ইরানের আর্থিক ও সামরিক সহায়তার মাধ্যমে এই বাহিনীটি দেশটিতে একটি শক্তিশালী অবস্থান নেয়।

তবে সৌদি আরব এর বিপরীতে গিয়ে বাগদাদে প্রতিষ্ঠিত সরকারকে সমর্থন দেয়।

ইয়েমেন:
২০১৫ সালের মার্চ মাসে হুথি বিদ্রোহীদের দমন করতে ও প্রেসিডেন্ট আবদো-রাব্বু মানসুর হাদিকে ক্ষমতায় পুনরায় বসাতে সৌদি নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত বাহিনী যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন নিয়ে ইয়েমেনে সামরিক অভিযান শুরু করে। সৌদির অভিযোগ ছিল দেশটিতে ইরানের প্রভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কিন্তু ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলীয় শিয়া সম্প্রদায় হাদি সরকারের বিরুদ্ধে গিয়ে ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদের পক্ষে অবস্থান নেয়। ২০১৪ সালে তারা ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলীয় বেশ কিছু এলাকা দখল করতে সমর্থ হয়। বিদ্রোহীরা রাজধানী সানার দিকে আসতে শুরু করলে হাদি প্রেসিডেন্সিয়াল ভবন থেকে পালিয়ে সৌদি আরবের গন্তব্যে রওনা হন। এর ফলে ইয়েমেন জুড়ে সৃষ্টি হয় অস্থিতিশীলতা ও এর সুযোগে আরও বেশ কিছু সশস্ত্র গোষ্ঠীর উত্থান হয়। যার মধ্যে আল কায়েদা ও এসটিসি অন্যতম।

এদিকে বিভিন্ন পরিসংখ্যান বলছে ২০১৫ সাল নাগাদ ইয়েমেনে সৌদি নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত বাহিনী প্রায় ২৪ হাজারেরও বেশি বিমান হামলা চালিয়েছে।

অন্যদিকে, ইরান সমর্থিত ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা আরব সাগরে সৌদি আরবের তেল ও গ্যাস ট্যাঙ্কারগুলোতে তাদের হামলা অব্যাহত রাখে।

জাতিসংঘ কর্তৃক উভয়ের মধ্যে আলোচনার কয়েকটি উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা সফলতার মুখ দেখেনি। ২০২২ সাল পর্যন্ত দেশটির ৩ কোটি জনসংখ্যার অর্ধেক লোক খাদ্য সঙ্কটে পড়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img