মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

প্রতি রমজানে কেন আল আকসায় হামলা চালায় ইসরাইল?

প্রতি বছর রমজান মাস এলেই মসজিদ আল আকসায় নামাজরত মুসল্লিদের উপর হামলা চালায় ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরায়েলের দখলদার বাহিনী। গত কয়েক বছর ধরেই এমন হামলা চালিয়ে আসছে অবৈধ রাষ্ট্রটি। এ বছরো ঘটেনি ব্যাতিক্রম কিছু। রমজানের দ্বিতীয় সপ্তাতেই হামলা চালিয়ে আহত করেছে গোটা কয়েক ডজন ফিলিস্তিনিকে। এছাড়াও গ্রেফতার করেছে প্রায় ৪০০ ফিলিস্তিনিকে।

২০২২ সালের রমজানে আল আকসায় হামলা চালিয়ে প্রায় ৩০০ জন ফিলিস্তিনিকে আটক ও ১৭০ জনকে আহত করে দখলদার বাহিনী। শুধু তাই নয় এ ঘটনার প্রতিবাদে ফিলিস্তিনিরা জড়ো হলে তাদের উপর পুনরায় হামলা চালিয়ে ৩৬ জনকে নিহত করা হয়।

একইভাবে ২০২১ সালের রমজান মাসেও হামলা চালানো হয় আল-আকসায়। একের পর এক টিয়ার গ্যাস, বুলেট ও গ্রেনেড বিস্ফোরণে যেন কেঁপে উঠেছিল আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণ। আহত হন শতাধিক ফিলিস্তিনি। সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে চারিদিকে। এরপরই শুরু হয় ইসরাইলি বাহিনীর ভয়াবহ নিধনযোগ্য। ২৫৬ জন ফিলিস্তিনিকে নিহত ও প্রায় ১ হাজার ৯০০ ফিলিস্তিনি কে আহত করে দখলদার বাহিনী। যার মধ্যে ৬৬ জন শিশু ছিল।

প্রতিবছর রমজানেই কেন হামলা চলে আল আকসায়?

জেরুসালেমে দূতাবাস স্থানান্তর:
২০১৭ সালে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক তেল আবিব থেকে দূতাবাস জেরুসালেমে স্থানান্তরিত করা হয়। যার ফলে ফিলিস্তিনের মুসলমানদের মধ্যে আল আকসার উপর নিয়ন্ত্রণ থাকবে কিনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়। এজন্য ‘আল ফজর’ নামে একটি ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে প্রতি শুক্রবার সবাইকে জুমার নামাজ আদায়ের জন্য আল আকসায় জড় হতে বলা হয়। এরপর থেকে প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ ফিলিস্তিনে আল আকসায় জড়ো হয়।

পদক্ষেপটি ক্ষেপিয়ে তোলে দখলদার ইসরাইলকে। কারণ এতে আল আকসা দখলের পরিকল্পনা বাধাগ্রস্থ হয়। এরপর থেকেই আল আকসায় সেনা মোতায়েন বৃদ্ধি করে ইসরাইল। আর ঠিক সেই বছরের রমজান থেকেই শুরু হয় ফিলিস্তিনিদের উপর দখলদার বাহিনীর নির্বিচারে গুলি চালানো। যা পরবর্তী বছর থেকে আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করে।

প্যাসওভার উৎসব:
প্রতি বছর রমজান মাসেই ইহুদিদের প্যাসওভার উৎসবের দিন নির্ধারণ করা হয়। এদিকে রমজান মাসে তারাবি উপলক্ষে মুসলিমরাও মসজিদটিতে অবস্থান করে। অন্যদিকে আল আকসা মসজিদ ইহুদিদকে নিজের পবিত্রতম স্থান দাবি করে তারাও স্থানটিতে জড় হয় উৎসব পালনের জন্য। ইহুদিরা যেন আল আকসায় প্যাসওভার উৎসব নির্বিঘ্নে পালন করতে পারে তার নিশ্চয়তা দেয় দখলদার বাহিনী। যে কারনে রমজান মাসে তারাবি পড়তে আসা হাজার হাজার মুসল্লিকে মসজিদ প্রাঙ্গন থেকে বের করে দেয় তারা। এভাবেই শুরু হয় সংঘর্ষ যার মাধ্যমে নিভে যায় শতশত ফিলিস্তিনিদের প্রান।

এ বছর কি ঘটেছিল আল আকসা প্রাঙ্গণে:
প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও বুধবার (৫ এপ্রিল) ইহুদিদের প্যাসওভার উৎসব ছিল। এদিকে রমজান মাসের তারাবি উপলক্ষে মুসলিমরাও মসজিদটিতে অবস্থান করছিল। অন্যদিকে উগ্র ইহুদিরা আল আকসায় জড় হয়ে হামলা চালানোর জন্য স্লোগান দিতে থাকে। একদল ফিলিস্তিনি তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। শুরু হয় সংঘর্ষ। কিছুক্ষণ পরেই ঘটনাস্থলে ইহুদিদের পক্ষ নিয়ে হাজির হয় দখলদার ইসরাইলি বাহিনী। হামলা চালিয়ে কয়েক ডজন ফিলিস্তিনিকে আহত ও ৪০০ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

হামলার পক্ষে ইসরাইলি বাহিনীর দাবি:
প্রাথমিক ঘটনা এড়িয়ে গিয়ে দখলদার ইসরাইলি বাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, “চুক্তি অনুযায়ী রমজান মাসে রাতে কোন মুসল্লি মসজিদের ভেতর অবস্থান করতে পারবে না। কিন্তু তারা এই চুক্তি ভঙ্গ করে রাতে মসজিদে অবস্থান করছিল। এছাড়াও আমরা জানতে পেরেছি পাথর লাঠি ও আতশবাজি নিয়ে মসজিদে মুসল্লিরা অবস্থান করছে। এ খবর পেয়ে পুলিশ মসজিদের ভেতর প্রবেশ করে। আন্দোলনকারীদের পাথরের আঘাতে আমাদের একজন পুলিশ সদস্য পায়ে আঘাত পান। তারপর অভিযান পরিচালনা করা হয়”

হামলার বিষয় যা বলছেন ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী:
দখলদার বাহিনীর হামলার নিন্দা জানিয়ে ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শাতায়েহ বলেছেন, “আল আকসা মসজিদ আমাদের অধিকার। এখানে ফিলিস্তিনের নাগরিক, আরব ও মুসলিম বিশ্বের সকলের অধিকার রয়েছে। তাই এখানে ইবাদত করার জন্য দখলদার ইসরায়েলের অনুমতি নেওয়ার কোন প্রয়োজন নেই। আশা করি এ হামলার কারণে তাদের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে আন্দোলন আরও বেগবান হবে।”

হামলার বিষয়ে পশ্চিমা গণমাধ্যম:
বরাবরের মতো পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো এই হামলাকে পুনরায় সংঘর্ষ বলেই চালিয়ে দিয়েছে। এছাড়াও উত্তেজনা সৃষ্টি করার জন্য ফিলিস্তিনিদেরকেই দায়ী করা হয়েছে। আহত ও গ্রেফতারের বিষয়টি সুকৌশলে এড়িয়ে গিয়ে পাথর ছোড়ার তথ্যটিই উঠে এসেছে তাদের মূল সংবাদে।


এসব হামলায় ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ আনা হয় একটু ভালো করে লক্ষ্য করলেই দেখা যায়, তা কোন ক্ষেত্রেই ইসরাইলের নিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ নয়। আল আকসা জুড়ে ইহুদিবাদীদের সম্পূর্ণ সার্বভৌম ক্ষমতা যে অটুট আছে তা জানান দিতেই মূলত এসব হামলা চালানো হয়। যার জন্য বেছে নেওয়া হয় মুসলিমদের সবচেয়ে পবিত্র মাস রমজানকে।

সূত্র: আল জাজিরা, মিডল ইস্ট আই, মিডল ইস্ট মনিটর ও বিবিসি

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img