সোমবার, জুলাই ২২, ২০২৪

যে কারণে তুরস্কের সংবিধানে ব্যাপক পরিবর্তন আনতে চাচ্ছেন এরদোগান

সামরিক অভ্যুত্থানের মতাদর্শ থেকে গৃহীত সংবিধান থেকে তুর্কিদের মুক্ত করে একটি প্রজাতন্ত্রমুখর ও বেসামরিক এবং স্বাধীনতাবাদী সংবিধান প্রণয়নের কথা জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান।

সোমবার (৭ আগস্ট) রাজধানী আঙ্কারায় অনুষ্ঠিত মন্ত্রীসভা বৈঠকের পর এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

এরদোগান বলেন, বর্তমান সংবিধান সংশোধনের বিষয়টি গত জুন মাসে নির্বাচিত নতুন সরকারের প্রতিশ্রুতির একটি অংশ।

তিনি আরো বলেন, ১৯৮২ সালের পর থেকে এখন পর্যন্ত যে সংবিধানটি রয়েছে তা একটি সামরিক অভ্যুত্থানের ফসল যেটি বেশ কয়েকবার সংশোধন করা হয়েছে।

১৯৮০ সালের রক্তক্ষয়ী সামরিক অভ্যুত্থান তুরস্কের ইতিহাসে একটি অন্ধকারাচ্ছন্ন অধ্যায়। যার ফলে হাজার হাজার মানুষকে গ্রেফতার, নির্যাতন ও মৃত্যুদণ্ডের মুখোমুখি হতে হয়েছিল।

সংবিধানের প্রস্তাবিত পরিবর্তনগুলোতে স্বাধীনতা, ন্যায়বিচার, জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের অধিকার, বাকস্বাধীনতা, নারী ও প্রতিবন্ধীদের অধিকারের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সংবিধানের এসব পরিবর্তনের পরিকল্পনা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মানবাধিকার গোষ্ঠীর পর্যবেক্ষণ, প্রতিবেদন ও সহযোগিতার মাধ্যমে করা হয়েছে।

এ পরিকল্পনায় আরো স্থান পেয়েছে মানবিক মর্যাদা, প্রতিটি জনগণের জন্য নিরপেক্ষভাবে পরিষেবা প্রদান, জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষায় আইনের শাসনকে সুদৃঢ় করার পাশাপাশি সমালোচনা অথবা ভিন্ন চিন্তা ধারণের জন্য কাউকে বঞ্চিত না করা।

এরদোগান বলেন, আগামী শরৎকালে তুরস্কের পার্লামেন্টের অধিবেশন পুনরায় শুরু হবে যেখানে নারীদের হিজাব ও পারিবারিক ইস্যু উত্থাপন করা হবে। তুর্কি সংবিধানের ২৪ নং অনুচ্ছেদে ‘চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ও ধর্মীয় স্বাধীনতার’ কথা বলা হয়েছে। এছাড়াও ৪১ নং অনুচ্ছেদে ‘পরিবার ও শিশু অধিকারের’ বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

রাজনৈতিক দল গুলোর কাছে নারী স্বাধীনতার প্রতি ইঙ্গিত করে তারা যেন হিজাব পরিধান করতে পারে সে জন্য বৈধভাবে প্রয়োজনীয় সাংবিধানিক আইন প্রনয়নেরও আহ্ববান জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট এরদোগান।

গত বছরের ডিসেম্বরে মেয়েদের হিজাব পরার সাংবিধানিক অধিকার দেওয়ার জন্য পার্লামেন্টে সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাব পেশ করে ক্ষমতাসীন এরদোগানের একে পার্টি।

সংশোধনী প্রস্তাবটিতে বলা হয়েছিল, সরকারি অথবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির ক্ষেত্রে কোন নারী যদি হিজাব পরিধান করে তাহলে তাকে কোনভাবেই অভিযুক্ত, নিন্দা অথবা তার সাথে কোন ধরনের বৈষম্যমূলক আচরণ করা যাবে না।

তুরস্কের হিজাব পরিহিতা নারীরা দীর্ঘদিন ধরেই আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। যেখানে স্কুলগুলোতে ছাত্রী হিসেবে এবং সরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মী হিসেবে কর্মরতদের হিজাব পরিধান নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। যদিও দেশটিতে মহিলাদের মধ্যে হিজাব পরিধানের প্রচলন রয়েছে।

তুর্কিদের মধ্যে হিজাব বিরোধী মনোভাব জুগিয়েছিল দেশটির ধর্মনিরপেক্ষ দল সিএইচপি। এছাড়াও হিজাব নিষিদ্ধের আইন সমর্থন করেছিল তারা। আধুনিক তুরস্কের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে খ্যাত কামাল আতাতুর্ক দেশটির সকল সরকারি প্রতিষ্ঠানে হিজাব পরা নিষেধ বলে উল্লেখ করেছিলেন সংবিধানে।

১৯৯০ ও ২০০০ এর দশক জুড়ে তুরস্কে হিজাব নিষিদ্ধের বিষয়টি দেশটির জনগণ ও রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে একটি আলোচ্য বিষয়ে পরিণত হয়।

১৯৮০ এর দশকে ব্যাপকভাবে হিজাব নিষিদ্ধকরণ করা হয়। তবে ১৯৯৭ সালে তা আরো কঠোর আকার ধারণ করে যখন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নাজিমুদ্দিন এরবাকানকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়। যেটি উত্তর আধুনিক সামরিক অভ্যুত্থান নামে পরিচিত।

২০০৮ সালে তুরস্কের বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত ছাত্রীদের উপর থেকে হিজাব পরার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় দেশটির পার্লামেন্ট। যদিও এ বিষয়ে সিএইচপি দলের আইন প্রণেতারা সাংবিধানিক আদালতে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলেও তা ব্যর্থ হয়। এক্ষেত্রে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছিল দলটির প্রধান কামাল কিলিসদারোগলু।

এছাড়াও ২০১৩ সালে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরত নারীদের উপর থেকে হিজাব নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় দেশটির পার্লামেন্ট। গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার উদ্দেশ্যেই মূলত এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছিল তৎকালীন সরকার।

২০১৭ সালে তুরস্কের সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের উপর থেকে হিজাব পরিধানের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়।

সূত্র: ডেইলি সাবাহ ও আনাদোলু নিউজ এজেন্সি

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img