রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

মুসলিমদের বর্ষপঞ্জি হিজরি সালের ইতিহাস

নতুন হিজরি বর্ষ শুরু হয়েছে। সোমবার ১৪৪৫ হিজরি সাল শেষ করে ১৪৪৬ হিজিরি সালে পদার্পণ করেছে মুসলিমদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এই বর্ষপঞ্জিটি। আপাতদৃষ্টিতে অন্যান্য বর্ষের ন্যায় মনে হলেও হিজরি বর্ষ কিন্তু বাকিদের চেয়ে একেবারেই আলাদা।

হিজরি বর্ষের সাথে জুড়ে আছে ইসলামের উত্থানের গল্প, আধুনিক ইসলামী রাষ্ট্র ব্যবস্থা গঠনে ত্যাগ তিতিক্ষার শিক্ষা এবং এক আল্লাহর ইবাদাতের ক্ষেত্রে সময় নির্ধারণের সুস্পষ্ট ঐশী বার্তা।


আসুন প্রথমে জেনে নেই হিজরি শব্দের নাম করণের ইতিহাস


হিজরি শব্দটি আরবি শব্দ হিজরত থেকে উদ্ভুত। যার শাব্দিক অর্থ, দেশ ত্যাগ। মাতৃভূমি মক্কা থেকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মদিনায় হিজরতের সময়কে কেন্দ্র করে এই বর্ষ শুরু করায় নাম দেওয়া  হয় আস-সানাতুল হিজরিয়া। অর্থাৎ হিজরি সন বা হিজরি বর্ষ।


এবার জেনে নেই যার মাধ্যমে এই হিজরি সনের সূচনা হয়


হিজরি সনের প্রবর্তক হিসেবে হযরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর নামটি সর্বাধিক প্রসিদ্ধ। তবে প্রখ্যাত তাবেয়ী ইবনে শিহাব যুহরীর সূত্রে আল্লামা সুয়ুতী হাদিস বর্ণনার সময় একটি ভিন্ন বিষয় উল্লেখ করেছেন। সেখানে তিনি জানিয়েছেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের একটি চিঠিতে ‘৫ম হিজরি’ লিপিবদ্ধ করা হয়েছিলো।

এই সূত্র ধরে আল্লামা সুয়ুতী বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেই হিজরি সনের প্রবর্তক। উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু শুধু তাঁকে অনুসরণ করেছেন।


[ আশ-শামরীখ, পৃ:১২ – তারীখে তাবারী ২/২৮৮ – মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস বিশ্বকোষ:১/৫০]


এবার জানা যাক হজরত ওমরের হাত ধরে যেভাবে প্রতিষ্ঠা পেলো হিজরি বর্ষ


হিজরি সন প্রবর্তনের আগে উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু প্রচলিত অন্য কোনো সন ও তারিখ মুসলিমদের দাপ্তরিক কাজে ব্যবহার করা যায় কি না এবিষয়ে পর্যালোচনা করেন।

হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর আমলে ইসলামী খেলাফত পৃথিবীর বৃহৎ অংশে ছড়িয়ে পড়ে। স্বাভাবিকভাবেই এতে করে রাষ্ট্রের দপ্তরে চিঠিপত্র, রশিদ ও অন্যান্য নথিপত্র বাড়তে থাকে। ফলে কোনটা কোন বছরের তা বোঝা কঠিন হয়ে পড়ে।

খলিফাতুল মুসলিমিন হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর পক্ষ থেকে হজরত আবু মুসা আশআরী (রা.) এর কাছে সংবাদ পাঠানো হয় তিনি যেন সকল চিঠিতে তারিখ যুক্ত করেন।

এছাড়াও ইয়েমেন থেকে আগত এক ব্যক্তি হজরত হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুকে জানান ইয়েমেনবাসী নিজেদের চিঠিতে তারিখ যুক্ত করে থাকে। খলিফাকে তিনি চিঠিতে তারিখ দেওয়ার একটি নিয়ম তৈরি করতে পরামর্শ দেন।


[ আশ শামরীখ: ১৪-১৫ ~ মুস. উম্মা. ইতি. বিশ্বকোষ: ১/৪৯]


এক বর্ণনায় আছে, হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর কাছে একটি পত্র আসে, যাতে শুধু শাবান লেখা ছিল। এটি দেখে তখন তিনি বলেন, ‘কীভাবে বুঝবো এখানে কোন শাবানের কথা বলা হচ্ছে? এরপর তিনি সকলের সুবিধার জন্য কোন তারিখ অবলম্বন করা যেতে পারে সে বিষয়ে সাহাবাদের কাছে পরামর্শ চান।

এসময় অনেকে রোমানদের তারিখ অবলম্বন করার পরামর্শ দেন। কিন্তু হজরত উমর বলেন, ‘তাদের তারিখের হিসাব অনেক দীর্ঘ। তারা আলেকজান্ডারের যুগ থেকে তারিখ হিসাব করে। অর্থাৎ, পুরোনো রীতিতে হিসাব হওয়ায় সেই হিসাব ত্রুটি থেকে মুক্ত ছিলো না। আর আরব ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সাথেও এর মিল পাওয়া যায় না।

আবার অনেকে পরামর্শ দেন পারস্যবাসীর তারিখ গ্রহণ করার। কিন্তু হজরত উমর এই পরামর্শও নাকচ করে দেন। তিনি বলেন, তাদের তারিখ প্রত্যেক বাদশাহর সিংহাসন আরোহনের সময় থেকে নতুন করে শুরু হয়। অর্থাৎ পারস্যের তারিখও দীর্ঘমেয়াদি ছিলো না। বরং বাদশাহর ক্ষমতা থাকা- না থাকার মাঝে সীমাবদ্ধ ছিলো।

সাহাবিরা পরামর্শ ও পর্যালোচনা শেষে খলিফাতুল মুসলিমিন সিদ্ধান্ত নেন যে, অন্য কোন সাম্রাজ্য বা জাতির তারিখ নয়, বরং নিজেদের আলাদা বর্ষপঞ্জি প্রবর্তন করা হবে।


এবার জানা যাক রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হিজরত থেকেই কেনো হিজরি বর্ষের সূচনা হলো


নতুন বর্ষপঞ্জি তৈরির সিদ্ধান্তের পর হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু কবে থেকে এই বর্ষের সূচনা ধরা হবে, সে বিষয়ে পরামর্শ চাইলেন। এতে ৩ ধরণের মতামত আসে।

১- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জন্ম সাল থেকে।

২- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মদিনায় হিজরতের সাল থেকে।

৩- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইন্তেকালের সাল থেকে।

হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু মদিনায় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হিজরতের সময়কালকে হিজরি সনের সূচনা রূপে গ্রহণ করে নেন।

তিনি ঘোষণা দেন, হিজরতের সময় থেকে হিজরি বর্ষের সন গণনা করা হবে। কেননা হিজরতের মাধ্যমেই হক ও বাতিলের মাঝে পার্থক্য স্পষ্ট হয়েছিলো।


[আশ শামরীখ, পৃ:১১ – মুস.উ.ইতি.বিশ্বকোষ,১/৫০]


সূচনা সময় নির্ধারণের পর বিপত্তি তৈরি হয় কোন মাস থেকে বছর গণনা শুরু করা যায় তা নিয়ে


খলিফাতুল মুসলিমিন হজরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু যখন ঘোষণা দিলেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হিজরত সময়কাল থেকেই সূচনা হবে হিজরি সনের, তখন প্রথম মাস কি হবে তা নিয়ে বিপত্তি বাঁধে। কেননা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হিজরত হয়েছিলো রবিউল আওয়াল মাসে। অন্যদিকে আরবে ইসলাম পূর্ব যুগ থেকেই মাস গণনার প্রচলন ছিলো মুহাররম মাস থেকে।

তখন এবিষয়ে পরামর্শ চাওয়া হলে, সাহাবীদের অনেকে রবিউল আওয়ালকেই প্রথম মাস নির্ধারণের পরামর্শ দেন। আবার অনেকে রমজানের ফজিলতের প্রতি লক্ষ্য রেখে রামজানকে প্রথম মাস নির্ধারণের পরামর্শ দেন।

তবে হযরত উসমান (রা.) যে পরামর্শ দেন তাই সবচেয়ে উপযুক্ত বলে গণ্য হয় এবং তার মতকেই গ্রহণ করা হয়।

হযরত উসমান প্রথম মাস হিসেবে মুহাররমের মর্যাদা ও ফজিলত তুলে ধরেন। একই সাথে তিনি শেষ মাস হিসেবে জিলহজ্বের মাসের উপযুক্তাও তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ঈদুল আজহা ও হজ্ব জিলহজ্ব মাসে, হাজ্বিগণ মুহাররমেই হজ্ব থেকে প্রত্যাবর্তন করে থাকেন। অন্যদিকে মুহাররমের মর্যাদাও অনেক বেশি।


বিশুদ্ধ চন্দ্র বর্ষ ও হিজরি সনকে সমন্বয়


আরবে একই সময়ে ২ ধরণের চন্দ্র বর্ষের প্রচলন ছিলো। মক্কা ও তার আশপাশে যে চন্দ্র বর্ষের হিসাব হতো তাতে কোনো কোনো বছর ১৩তম একটি মাস যুক্ত করা হতো। অনদিকে মদিনায় ১২ মাসের বিশুদ্ধ চন্দ্র বর্ষের হিসাব করা হতো।

১৩ মাসের ধারনাটি ছিলো মূলত মুশরিকদের কারসাজি। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মদিনা হিজরতের ২২০ বছর পূর্বে মুশরিকরা বিশুদ্ধ চন্দ্র বর্ষে বিকৃতি তৈরি করে। হজ্বকে কেন্দ্র করে ব্যবসায়িক স্বার্থে মুশরিকরা এই বিকৃতি তৈরি করে।

এর কারণ ছিলো ১২ মাসের বিশুদ্ধ চন্দ্র বর্ষে ঋতু কখনো মাসের সাথে নির্ধারিত থাকে না। বরং বছর বছর একেক ঋতু একেক চন্দ্র মাসে আসে। মুশরিকরা যখন দেখলো যে, হজ্বের মাসে সব সময় এক ঋতু থাকে না। কখনো গরমে তো আবার কখনো শীতে হজ্বের মাস পড়ে যায়। ঋতু জনিত কারণে ফসল পাকা, ফসল কাটা ও বিক্রি কার্যক্রমও ব্যতিক্রম ব্যহত হত। যার প্রভাব তাদের ব্যবসায় গিয়ে পড়তো। আবার কা’বায় গিয়ে হজ্ব করাও ছিলো তাদের কাছে আবশ্যকীয় কর্তব্য ও সম্মানের। তাই সবকিছু ফেলে হজ্বের প্রস্তুতি নিয়ে হজ্বেও চলে যেতে হতো।

তাই প্রতি বছরের হজ্বকে একই মৌসুম বা ঋতুতে রাখতে তারা কখনো ৩ বছর আবার কখনো ২ বছর পর পর ১৩তম একটি মাসকে সংযুক্ত করার প্রচলন ঘটায়। ব্যবসায়িক স্বার্থ চরিতার্থ করতে সৌর বর্ষের সাথে চন্দ্র বর্ষের মাঝে যে ১১ দিনের তফাৎ তা কমিয়ে এনে চন্দ্র মাসকে মৌসুমের সাথে ঠিক রাখাই ছিলো তাদের মূল লক্ষ্য। এর ফলে মক্কা ও তার আশপাশে বিকৃত চন্দ্র মাস ও চন্দ্র বর্ষের প্রচলন ঘটে।

একে পবিত্র কুরআনের সূরা তাওবায় আল্লাহ পাক নাসী শব্দ দিয়ে উল্লেখ করেছেন। ইসলাম শক্তিশালী হয়ে উঠার পর বিদায় হজ্বে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই বিকৃত মাস ও বর্ষ গণনার বিলুপ্তি ঘটিয়েছেন।


হিজরি বর্ষের ব্যাপ্তি


হিজরি বর্ষের ব্যাপ্তি ৩৫৪/৩৫৫ দিন। আর মাস হিসেবে ১২ মাসে এর সমাপ্তি ঘটে। প্রতি মাসের ২৯/৩০তম দিনে আকাশে নতুন চাঁদ দেখা সাপেক্ষে নতুন মাসের আগমন ঘটে। তাই হিজরি বর্ষে দিন গণনা করা হয় মাগরিবের পর থেকে পরদিন মাগরিবের সময় পর্যন্ত।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img