রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪

কোটা পদ্ধতি চালুর মাধ্যমে সরকার বৈষম্য ফেরানোর চেষ্টা করছে : চরমোনাই পীর

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম চরমোনাই পীর বলেছেন, কোটা পদ্ধতি চালুর মাধ্যমে সরকার বৈষম্য ফেরানোর চেষ্টা করছে। যা ছাত্রদের আন্দোলনের মাধ্যমে ২০১৮ সালে বাতিল করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, সরকার আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে আবার কোটাপ্রথা চালু করতে চাচ্ছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রতিবন্ধী ও নারী কোটা থাকলেও তা সর্বোচ্চ ১০ শতাংশের বেশি নয়। উন্নত সকল দেশে মেধার ভিত্তিতেই চাকরিতে নিয়োগ দেয়া হয়। ব্যতিক্রম একমাত্র আমাদের দেশে। বাংলাদেশের বেকারত্বের হার দিন দিন বাড়ছে এমতাবস্থায় ৫০ শতাংশের অধিক কোটার কারণে বেকারত্ব যেভাবে বাড়বে একই সাথে দেশ থেকে মেধা পাচার হয়ে যাবে। বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থা বহাল রেখে মেধাবীদের অবমূল্যায়ন করার কোন যৌক্তিকতা নেই। এমতাবস্থায় সরকারকে দ্রুত শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিয়ে বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থা বাতিল করতে হবে।

আজ রবিবার (৮ জুলাই) গনমাধ্যমকে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

চরমোনাই পীর বলেন, সত্যিকারের মেধাবীদের উপস্থিতি থাকা সত্ত্বেও অনেক ক্ষেত্রে কম যোগ্যতা সম্পন্ন ও স্বল্প মেধাবীরা কোটা পদ্ধতির কারণে সরকারী চাকরিতে নিয়োগ পাচ্ছে। কোটা বৈষম্যের কারণে এভাবে মেধাবী ও যোগ্য প্রার্থীদের সরকারী চাকরি থেকে লাগাতার বঞ্চিত করা হলে প্রশাসনে এক সময় নিশ্চিত ভাবেই স্থবিরতা নেমে আসবে। রাষ্ট্র ও প্রশাসনের নিজ স্বার্থেই কোটা পদ্ধতির আমূল সংস্কার করে যোগ্যতার ভিত্তিতে মেধানুসারে চাকুরীর নিশ্চয়তা দিতে হবে। সুতরাং সন্তানসম শিক্ষার্থীদের কোটা প্রথা বাতিলের দাবী যৌক্তিক ও ন্যায্য বলে মনে করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সকল দাবী মেনে নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

ভারতে সাথে রেল ট্রানজিট চুক্তির বিষয়ে তিনি বলেন, সরকার কিসের বিনিময়ে ভারতের সাথে রেল, স্যাটেলাইট ও সামরিক চুক্তি করল তা দেশের জনগণ কিছুই জানেন না। এটা জানার অধিকার জনগণের আছে। এজন্য চুক্তিগুলো জাতির সামনে প্রকাশ করা জরুরি।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img