সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

যে কারণে এরদোগানের নির্বাচনী ইশতেহারকে বলা হচ্ছে ‘তুর্কি শতাব্দীর সঠিক পদক্ষেপ’

আগামী ১৪ মে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামীর বিশ্বের সম্ভাব্য পরাশক্তিধর রাষ্ট্র তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন।

যার হাত ধরে তুরস্ক সম্ভাব্য পরাশক্তিধর রাষ্ট্রের অবস্থানে উঠে এসেছে সেই এরদোগানও শেষবারের মতো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন এবারের নির্বাচনে।

সম্প্রতি তার দল ৩১টি ধারা সম্বলিত একটি নির্বাচনী ইশতেহারের ঘোষণা দেয় যা মূলত চলতি শতাব্দীকে সম্পূর্ণ নিজেদের করে নেওয়ার একটি রোডম্যাপ। তাই এর নামও দেয়া হয়েছে ‘তুর্কি শতাব্দীর সঠিক পদক্ষেপ’। এটি এরদোগানের দলের এবারের নির্বাচনী স্লোগান হিসেবেও নির্ধারিত হয়েছে।

ইশতেহার ও এরদোগানের ভবিষ্যত লক্ষ্য উদ্দেশ্য নিয়ে দেয়া সম্প্রতি বিভিন্ন বক্তব্যের সারসংক্ষেপ:

  • গত ২ দশক ছিলো তুর্কি শতাব্দীর প্রস্তুতি পর্ব। বিশাল বিশাল অবকাঠামোগত উন্নয়ন, উন্নত প্রযুক্তি ও বিশ্বমানের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলা, বিদ্যুৎ ও শক্তি বিনিয়োগ, স্বাস্থ্য খাত সহ অন্যান্য খাতগুলোতে প্রয়োজনীয় উন্নয়ন ছিলো তুরস্ককে বিশ্বশক্তিতে রূপান্তরের কার্যকরী পদক্ষেপ। এগুলো আমাদেরকে বিশ্বশক্তি হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার পথে নিয়ে যাবে।
  • দেশের প্রতিটি খাতে দক্ষ জনবল ও অভিজ্ঞ ক্যাডার গড়ে তোলার লক্ষ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ আরো থেকেই আমরা হাতে নিয়ে রেখেছি। কেননা কোনো বিশ্বশক্তি দক্ষ জনবল ও অভিজ্ঞ ক্যাডার ছাড়া বেশিদিন টিকে থাকতে পারে না।
  • এছাড়া বিশ্বব্যবস্থার ভারসাম্য পুনর্বিন্যাসের এই জটিল ক্রান্তিকালীন সময়ে তুরস্ককে রক্ষায় জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির ক্ষমতায় থাকাটাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
  • তুরস্ক ভবিষ্যতে তাদের পররাষ্ট্র নীতিতে একটি সমন্বিত পদ্ধতি অনুসরণ করবে। পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে ২টি ধারা বেছে নেওয়া হবে। ১ম ধারা হবে তুর্কি পিভট (তুরস্কই হবে সবকিছুর কেন্দ্রবিন্দু) আর ২য় ধারা হবে ইফেক্টিভ ফরেন পলিসি (কার্যকরী পররাষ্ট্রনীতি)।
  • শক্তি অর্জন করে নিজ অঞ্চলকে রক্ষার মাধ্যমে দেশকে নিরাপদ ও শান্তিময় করে তোলার বিকল্প আমাদের হাতে নেই। কেননা কার্যকরী পররাষ্ট্রনীতির ধারক হওয়ার প্রথম শর্তই হলো যেকোনো ধরণের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সক্ষম উন্নত সমরশক্তি থাকা। আর আমরা সে পথেই এগিয়ে যাচ্ছি।
  • এছাড়া আমাদের সরকার তুরস্কের অক্ষকে এমন বৈদেশিক নীতি দিয়ে গড়ে তুলার পথে হাটছে যেখানে তুরস্ক ও তার পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্রের জনগণ শান্তি ও স্থিতিশীলতা উপভোগ করবে। এক্ষেত্রে বহুত্ববাদ (রাজনৈতিক তত্ত্ব প্লুরালিস্ট থিওরি), সহায়তা, মানবিক কূটনীতি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার দিকটি প্রাধান্য পাবে।
  • পররাষ্ট্র ও নিরাপত্তা নীতির সম্পূর্ণ দৃষ্টি থাকবে স্বাধীনতার উপর। এর উপর ভিত্তি করেই আমরা সর্বোচ্চ স্তরের নিরাপত্তা প্রদান, সামরিক শক্তি বৃদ্ধি, বড় পরিসরে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এবং গণতন্ত্রকে সুসংহত করার পদক্ষেপ নিবো।
  • এছাড়া ৩টি ভিশন বাস্তবায়নে আমরা কাজ করবো। ১ম ভিশন আমাদের অঞ্চলকে বাকি অঞ্চলের জন্য একটি নিরাপদ, স্থিতিশীল ও সমৃদ্ধশালী করিডরে রূপান্তর করবে।
  • ২য় ভিশন হবে, ২০১৯ সালে নতুন শুরু করা এশিয়া ইনশিয়েটিভ প্রজেক্ট জারি রাখা এবং তুরস্ককে এমন একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া যা অচিরেই বিশ্বের বিভিন্ন করিডরগুলো তত্বাবধান করবে। যাতে কাউকে জবাবদিহিতা করা ছাড়াই পুরো মুসলিম বিশ্বের সাথে শক্তিশালী সম্পর্ক এবং আফ্রিকা মহাদেশের সাথে মুসলিম বিশ্বের পূর্বেকার যোগসূত্রকে জোরদার করে দৃষ্টান্তমূলক অংশীদারিত্ব স্থাপন করা যায়।
  • ৩য় ভিশন হবে, পুরো বিশ্বে অধিক ন্যায়পরায়ণ হিসেবে তুরস্কের উত্থান ঘটানো। যাতে করে উসমানী আমলের মতো তুরস্ক হয়ে উঠে পৃথিবীর সকল মাজলুমের আশ্রয় কেন্দ্র ও একমাত্র ত্রাতা।
  • আমাদের সরকার শুধু সামরিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রেই নয় বরং শিক্ষা, পরিবহন, জ্বালানি এবং কৃষিতেও তুরস্কের শক্তি বাড়াতে বদ্ধপরিকর। এছাড়া মানবিক কূটনীতিতে তুরস্কের শীর্ষস্থানীয় অবস্থান ও অভিবাসন ব্যবস্থাপনাকে আরো সুসংহত করতে চাই আমরা।
  • আমরা দেশের কূটনৈতিক অবকাঠামো শক্তিশালী ও বিদেশে কূটনৈতিক মিশনের সংখ্যা বৃদ্ধি করছি। বিদেশী কূটনৈতিক প্রতিনিধির সংখ্যার দিক থেকে বর্তমানে আমরা পঞ্চম স্থানে অবস্থান করছি।

এরদোগানের বিগত ও সাম্প্রতিক শাসনামল এবং আসন্ন নির্বাচনের সুপরিকল্পিত ও উচ্চাভিলাষী ইশতেহার দেখে বিশ্লেষকগণ বলছেন, তুরস্কের ভবিষ্যতের জন্য আসন্ন নির্বাচনের গুরুত্ব আগেকার নির্বাচনগুলোর তুলনায় বহুগুণে বেশি। কারণ নির্বাচনে জয়ী জোট ও দলগুলো সরকার গঠন করবে। তাদের মাধ্যমেই নির্ধারিত হবে নতুন বিশ্বব্যবস্থা ও নতুন মেরুকরণের দিকে ছুটে চলা পৃথিবীতে তুরস্কের আগামীর পথচলা।

এক্ষেত্রে সফলতার সাথে দেশ পরিচালনা করে আসা জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি ও ঐতিহাসিক মূল্যবোধ ধারণকারী স্বপ্নবাজ প্রভাবশালী মুসলিম নেতা এরদোগান যদি নির্বাচনে জয়ী হোন তবেই তুর্কি ও পুরো বিশ্ব দেখতে পাবে “তুর্কি শতাব্দী”। যা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে তিনি অনেক আগ থেকেই কাজ শুরু করে দিয়েছিলেন। এখন দরকার শুধু নতুন মেয়াদে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার।

এছাড়া আগামীর জটিল বিশ্বব্যবস্থায় তুরস্ককে অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক হুমকি থেকে রক্ষা এবং প্রতিরোধমূলক সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করতে দারুণ ভাবে মুন্সিয়ানা দেখানো অভিজ্ঞ এরদোগানের বিকল্প পাওয়াও এখন দুষ্কর। তাই আসন্ন নির্বাচনে রাষ্ট্রক্ষমতায় এরদোগানের বিপরীতে কেউ ক্ষমতায় আসলে তুরস্ককে অনেক ধরণের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। কারণ সুকৌশলে পরাশক্তিদের সাথে পাল্লা দিয়ে এরদোগান তুরস্ককে যে অবস্থানে নিয়ে গিয়েছেন সেই পরিমাণ দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা না থাকায় দেশটির অবস্থা মুহুর্তেই শোচনীয় পর্যায়ে এসে ঠেকবে।

উল্লেখ্য, খেলাফত পরবর্তী কামাল আতাতুর্কের তুরস্ক ‘আধুনিক’ খেতাব পেলেও খুইয়েছিলো তার হাজার হাজার বছরের শৌর্যবীর্য, ঐতিহ্য ও স্বকীয়তা। আবদ্ধ হয়ে পড়েছিলো বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চুক্তির গেঁড়াকলে। বিশ্ব শাসনের প্রতীক জীবন্ত আয়াসোফিয়াকে পরিণত করা হয়েছিলো নিথর জাদুঘরে।

কিন্তু দিন যতই গড়িয়েছে এরদোগানের মতো ঐতিহাসিক মূল্যবোধ ধারণকারী স্বপ্নবাজ তুর্কিরা ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তাদের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়িয়েছে ভৌগোলিক ভাবে বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান বলে বিবেচিত হওয়া তুরস্কও।

বর্তমানে দেশটি দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বিশ্বের আনাচে-কানাচে। বিপর্যস্ত দেশে দিচ্ছে ত্রাণ সহায়তা। বিবাদরত দেশের মাঝে করছে মধ্যস্থতা। পক্ষ নিচ্ছে অপর দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায়। পাঠাচ্ছে বায়রাক্তারের মতো টপ ক্লাস ফাইটার ড্রোন। নির্মাণ করছে টিসিজি আনাদোলুর মতো বিশ্বের সর্বপ্রথম ফাইটার ড্রোন ও ল্যান্ড ভেহিক্যালস ক্যারিয়ার, টেসলাকে পাল্লা দিতে সক্ষম টোগের মতো দেশীয় প্রযুক্তির গাড়ি, এফ-১৬ ও এফ-৩৫ কে পাল্লা দিতে সক্ষম কা’ন জঙ্গি বিমান ও ফাইটার ড্রোন কিজিল এলমা। স্থাপন করছে বিশ্বের বড় বড় ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারকে টেক্কা দিতে সক্ষম ইস্তাম্বুল ফিন্যান্স সিটি। বিশ্বকে দেখাচ্ছে ২ মাসের মধ্যেই কীভাবে স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্প থেকে ঘুরে দাঁড়াতে হয়। শেখাচ্ছে পুনরায় জেরুসালেমকে মুসলিমদের কর্তৃত্বে নিয়ে আসতে কীভাবে আংশিক হামিদিয়া হেজাজ রেলওয়ে পুনরায় চালুর মাধ্যমে কৌশল অবলম্বন করতে হয়। কীভাবে লুজান চুক্তি শেষ হওয়ার আগেই আয়াসোফিয়াকে পুনরায় মসজিদে রূপান্তরিত করতে হয়। আবিস্কার করতে হয় খায়রুদ্দীন বারবারোসার দাপিয়ে বেড়ানো ভূমধ্যসাগরে বিশাল গ্যাসক্ষেত্র।

যেনো এরদোগানরা বিশ্বকে জানান দিতে উঠেপড়ে নেমেছেন যে, তুর্কিরা আসছে; আসছে আগামীর শতাব্দী নিজেদের করে নিতে।

মুহিউদ্দিন আতমান
সূত্র : ডেইলি সাবাহ

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img