সোমবার, জুলাই ২২, ২০২৪

টুইন-টাওয়ারের শহর নিউইয়র্ক আজানের ধ্বনিতে মুখরিত

প্রথমবারের মতো আজানের আল্লাহু আকবার ধ্বনিতে মুখরিত হলো আমেরিকার অর্থনৈতিক রাজধানী নিউইয়র্ক সিটি। শুক্রবার পবিত্র জুমার দিন মাইকে আজান দেওয়া হয় বিশ্বের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শহর নিউইয়র্কে।

নিউইয়র্ককে বলা হয়, বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্র আমেরিকার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শহর। এই শহর থেকেই নিয়ন্ত্রিত হয় পৃথিবীর অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিশেষ করে বিশ্বের অর্থনৈতিক রাজধানী মনে করা হয়  নিউইয়র্ককে। এই শহরেই ছিলো চলতি শতাব্দীর সবচেয়ে আলোচিত ভবন টুইন টাওয়ার।

আমেরিকার এই শহরে এতদিন মুসলিমদের প্রকাশ্যে বা মাইকে আজান দেওয়ার অনুমতি ছিলো না। সম্প্রতি নিউইয়র্ক সিটি কর্পোরেশন এক আদেশে শহরটির মসজিদ বা ইসলামিক সেন্টারগুলোতে শুক্রবারের জুমার আজান ও  পবিত্র রমজানে মাগরিবের আজান মাইকের মাধ্যমে দেওয়ার অনুমতি দেয়।

শুক্রবার যখন নিউইয়র্ক সিটির মসজিদগুলোর মাইকে আজান হচ্ছিলো, তখন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো আমেরিকার ইতিহাসের এমন বিরল ঘটনা তুলে ধরতে সে দৃশ্য সরাসরি সম্প্রচার করে।

নিউইয়র্ক ইসলামিক সেন্টার বা মারকাজ মসজিদের ইমাম শায়েখ আব্দুল্লাহ সালেম এই ঘটনাকে ঐতিহাসিক বলে আখ্যায়িত করে বলেন, বাইরের মাইকে আজান দেওয়ার অনুমোদন আমেরিকান মুসলিমদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক হয়ে থাকবে।

নিউ ইয়র্ক শহরে প্রায় ১ কোটি লোক বসবাস করে। নিউ ইয়র্ক শহর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে জনবহুল নগরী।নিউ ইয়র্ক বাস্তবিক অর্থেই একটি বিশ্বনগরী; এখানে বহু জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোত্রের অভিবাসী সম্প্রদায় পাশাপাশি বাস করে।

নিউইয়র্কের প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষ খ্রিষ্টান। এর মধ্যে ৩৩ শতাংশ ক্যাথলিক খ্রিষ্টান ও ২৩ শতাংশ প্রোটেস্টান। এই শহরে ইসরাইলের রাজধানী তেল আভিভের চেয়েও বেশি ইহুদী বসবাস করে। শহরের ৮ শতাংশ মানুষ ইহুদী ধর্মাবলম্বী। ২০১৪ সালের হিসেব মতে নিউ ইয়র্ক সিটির মোট জনসংখ্যার ৪ শতাংশ মুসলিম। এছাড়াও হিন্দু-বোদ্ধ-সহ অন্যান্য ধর্মের লোকেরাও রয়েছে এই শহরে। নিউইয়র্কের মানুষ ৮০০রও বেশি ভাষায় কথা বলে।

বিগত দুইশত বছর ধরে নিউ ইয়র্ক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় ও সবচেয়ে সম্পদশালী নগরী। শহরটি একসময় আমেরিকার রাজধানী ছিল। বর্তমানে নিউ ইয়র্ক শহর বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাণিজ্যিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষা কেন্দ্রগুলির একটি।

জাতিসংঘের সদর দপ্তর নিউইয়র্ক শহরেই অবস্থিত যার কারণে একে আন্তর্জাতিক কূটনীতির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান বলা যায়। ২০০২ সালে ধ্বংসপ্রাপ্ত আলোচিত টুইন-টাওয়ার এই শহরেই অবস্থিত ছিলো।

এদিকে নিউইয়র্কে আজানের অনুমতির পর আমেরিকার অন্যান্য শহরের মুসলিমরাও মাইকে আজানের অনুমতি দেওয়ার দাবি জানিয়েছে।

মেরিল্যান্ড রাজ্যের বাল্টিমোরের মুসলিমরাও তাদের সিটি কর্পোরেশনের কাছে নিউইয়র্কের ন্যায় মাইকে আজানের অনুমতি দেওয়ার জন্য দাবি জানিয়েছে। গত শুক্রবার এই দাবিতে তারা বাল্টিমোর মিউনিসিপ্যালিটি অফিসের সামনের পার্কে জুমু’আর নামাজেরও আয়োজন করে।

এতে অংশগ্রহণ করা ইয়েমেনী বংশোদ্ভূত আব্দুস সামাদ নামের একজন মুসলিম বলেন, অন্যান্য আমেরিকানদের মতো আমরা ইয়েমেনী মুসলিমরাও বাল্টিমোরে একত্রে বসবাস করে আসছি। স্থানীয় সরকার, কাউন্সিল, মেয়র ও সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী ব্যক্তিত্বদের সাথে যোগাযোগে আমাদের প্রতিনিধিও রয়েছে, যারা আমাদের বিভিন্ন সুবিধা-অসুবিধার কথা তাদের কাছে তুলে ধরেন। এখন পর্যন্ত শহর কর্তৃপক্ষকে আমাদের মতো অন্যান্য সংখ্যালঘুদের ব্যাপারে বেশ উদারই পেয়েছি আমরা।

এবিষয়ে বাল্টিমোর মিউনিসিপ্যালিটির এক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বাল্টিমোরের মেয়র মুসলিম ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের সাথে কিভাবে কাজ করা যেতে পারে এবিষয়ে নতুন ধারণা,পরামর্শ ও তাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষায় ইতিমধ্যে একটি কমিটি গঠন করেছেন।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img