বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪

চাদরের ভাজে শীতের উষ্ণতা

শীতের আগমনি বার্তা দিচ্ছে শিশির ভেজা দূর্বাঘাস আর কোয়াশাচ্ছন্ন প্রান্তর। শীত অবশ্যই উপভোগ্য ‍ঋতু, তবে এই ঋতুর প্রস্তুতিও কম না। এই ঋতুতে আপনার শীতের কাপড় অর্থাৎ গরম কাপড় না থেকে থাকলে আপনি পড়তে পারেন ভীষণ বিড়ম্বনায়। ঠাণ্ডা লেগে হয়ে যেতে পারেন অসুস্থ। তাই এই শীতকে উপভোগ করতে আপনার দরকার মানসম্মত শীতের পোষাক।

মনে রাখা উচিত, পরিধেয় কাপড় মানুষের রুচিশীলতার বহিঃপ্রকাশ। তাই পোষাক ক্রয়ের ক্ষেত্রে টেন্ডিংয়ের সাথে সাথে মাথায় রাখা জরুরী কোন পোষাক আপনার ব্যক্তিত্বকে কীভাবে প্রদর্শন করছে। এই বিষয়টি মাথায় রেখেই এবারের শীতে আপনার পছন্দের প্রথম তালিকায় রাখতে পারেন চাদর।

শীতে চাদর বা শাল মুড়ি দেয়ার রেওয়াজ নতুন নয় বরং আদীকাল থেকে। আর এই চাদরই বতর্মান সময়ের ফ্যাশনের একটি অনুসঙ্গ। এক সময় চাদর শুধুমাত্র কবি, সাহিত্যিক কিংবা পত্রিকার সম্পাদকদের ফ্যাশন হলেও বতর্মানে কবি নন এমন অধিক মানুষই নিত্যদিনের ফ্যাশন হিসাবে ব্যবহার করছেন চাদর। চাদর পরিধানে যেমন সৌন্দর্যতাকে বিকশিত করে, তেমনি এটি ব্যক্তিত্বের সাথেও বেশ মানানসই। তাই এই শীতে একটি চাদর আপনি অবশ্যই ব্যবহার করতে পারেন।

চাদরের মধ্যেও আছে প্রকারভেদ। যেমন: সিল্ক, খাদি, পশমি সুতা, মোটা সুতি ইত্যাদি কাপড়ের উপর নির্মিত হচ্ছে আমাদের দেশের ফ্যাশন হাউসগুলোর শীতের চাদর। বিভিন্ন মোটিফের চাদরে প্রাধান্য পাচ্ছে দেশিয় ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি। থাকছে নানা রকম সেলাই ও নকশার কাজ। এছাড়াও জরি, পুঁতি, চুমকি ও পাথরের করা চাদরও রয়েছে তরুণ-তরুণীদের চাহিদার তালিকায়।

দেশি চাদর ছাড়াও বিদেশি চাদরের চাহিদা রয়েছে আমাদের দেশে। বিশেষ করে কাশ্মীরি পশমিনা চাদর জনপ্রিয়তার শীর্ষে। তবে আমাদের দেশেও এখন তৈরি হচ্ছে পশমিনা চাদর। এছাড়াও লুদিয়ানা, জয়পুরি, চায়নিজ, বার্মিজ ও ইরানি চাদর হতে পারে শীতের অন্যতম ফ্যাশন। তবে আপনি চাইলে একরঙা চাদরে নিজের ইচ্ছেমতো নকশা করে ব্যবহার করতে পারেন। সেক্ষেত্রে শীতের ফ্যাশনে আপনার ব্যাক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলতে পারবেন।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img
spot_img