রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

ব্রিটেনে লকডাউন ঘোষণা: সামনে কঠিন সময়, আশঙ্কা বরিসের

নতুন ধরনের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ব্রিটেনে জাতীয় লকডাউন ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত অনুমতি ছাড়া কোন নাগরিক বাড়ির বাইরে বের হতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি।

সোমবার (৪ জানুয়ারি) ডাউনিং স্ট্রিটে টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে এ ঘোষণা দেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী।

বরিস জনসন বলেন, ‘এটা পরিষ্কার যে করোনার নতুন ধরন নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমাদের আরও অনেক কিছু করতে হবে। তার মানে হলো সরকার আবারও আপনাদের ঘরে থাকার নির্দেশ দিচ্ছে।

তিনি জানান, সব স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকবে। মঙ্গলবার থেকে শিক্ষার্থীরা অনলাইনে শিক্ষাকার্যক্রম গ্রহণ করবে।

বরিস জনসন আশঙ্কা করছেন আগামী কয়েক সপ্তাহ খুব কঠিন সময় যাবে। এই সময় করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, চার জনগোষ্ঠীর মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আগামী মাসের মাঝামাঝিতে প্রথম টিকার ডোজ দেওয়া হবে।

কেয়ার হোমের বাসিন্দা এবং তাদের যারা দেখাশুনা করেন, ৭০ বা তার বেশি বয়সী ব্যক্তি, ফ্রন্টলাইন স্বাস্থ্য ও সমাজকর্মী এবং ক্লিনিক্যালি যারা অত্যন্ত দুর্বল- তাদের ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝিতে টিকার ডোজ দেওয়া হবে।

এখন থেকে ব্রিটেনের নাগরিকরা ৫ কারণ ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হতে পারবেন না।

এগুলো হলো-

*যারা বাড়িতে কাজ করতে পারবেন না, যেমন, নির্মাণ শ্রমিকরা।

*প্রয়োজনীয় খাবার ও ওষুধ কিনতে বের হতে পারবেন।

*দিনে একবার বাড়ির বাইরে ব্যায়ামের জন্য বের হতে পারবেন।

*দুর্বল লোকদের যত্ন বা সহায়তা প্রদান করতে।

*চিকিৎসা সেবা নিতে, কোভিড টেস্ট এবং সহিংসতার মুখে পড়লে বাড়ি থেকে বের হতে পারবেন।

এদিকে স্কটল্যান্ডে নাগরিকদের জন্য ‘স্টে অ্যাট হোম’ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

ওয়েলসে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত স্কুল কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়া শুরু করে যুক্তরাজ্য। তবে নতুন ধরনের করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় বিপাকে পড়েছে দেশটি।

সূত্র: বিবিসি

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img