রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

‘ভারতের উদ্ভাবিত করোনা ভ্যাকসিন ঝুঁকিপূর্ণ’

ভারত বায়োটেকের ভ্যাকসিনকে ঝুঁকিপূর্ণ এবং ব্যবহার না করার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির সাবেক মন্ত্রী শশীর থারুর।

তিনি বলেন, নিরাপত্তা এবং কার্যকরিতার পর্যাপ্ত তথ্য প্রকাশ ছাড়াই তাড়াহুড়ো করে এ টিকার অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

রোববার ভারত বায়োটেকের তৈরি ‘কোভ্যাক্সিনের’ জরুরি অনুমোদন দেয় মোদি প্রশাসন। বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ না করায় টিকার ব্যবহার নিয়ে প্রশ্ন এখন সর্বত্র।

ভারতের ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল (ডিসিজিআই) জরুরি অনুমোদনের বিষয়টি ঘোষণা করেন। ঘোষণা অনুষ্ঠানে তিনি কারো প্রশ্ন গ্রহণ করেননি। টিকা অনুমোদনকে ভারতের স্বনির্ভরতার আরেকটি অধ্যায় আখ্যা দিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং তার মন্ত্রিসভার সদস্যরা।

করোনা সংক্রমণরোধে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা প্রয়োগেরও অনুমোদন দেয় ভারত। নতুন কোনো ভ্যাকসিনের অনুমোদন না দেয়া পর্যন্ত দেশটির টিকাদান কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেবে এটি।

সরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যৌথভাবে ভারত বায়োটেক কোভ্যাকসিন তৈরি করেছে। এরমধ্যে দিয়ে অল্প যে কয়টি দেশ নিজেদের তৈরি টিকার অনুমোদন দিয়েছে সেই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলো ভারত।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজার ধরার জন্য অকুজেন আইএসি’র সঙ্গে অংশীদারিত্বমূলক চুক্তি করেছে ভারত বায়োটেক। এটি ক্রয়ের জন্য নন-বাইন্ডিং চিঠিতে সই করেছে ব্রাজিল।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, কোভ্যাকসিন নিয়ে ১০ দেশটিরও বেশি দেশের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

এক বিবৃতিতে ভারত বায়োটেকের চেয়ারম্যান কৃষ্ণা এলা জানান, যদিও এ মহামারীর মধ্যে যে পরিমাণ টিকার প্রয়োজন তা আমরা মেটাতে পারবো না। তারপরও আমাদের লক্ষ্য বিশ্বে যাদের বেশি প্রয়োজন তাদের কাছে টিকাটি পৌঁছে দেয়া।

তিনি বলেন, কোভ্যাকসিন প্রয়োগ অ্যতন্ত নিরাপদ। বহুমুখী ভাইরাসের বিরুদ্ধে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে চৎমকার কাজ করছে। পরীক্ষামূলক প্রয়োগে সেরকম তথ্য আমরা পেয়েছি।

ভারত বায়োটেক কিংবা দেশটির সেন্ট্রাল ড্রাগস স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন এ টিকার কার্যকরিতার কোনো ফলাফল প্রকাশ করেনি।

টিকাটি উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত একজন ব্রিটিশ গণমাধ্যম রয়টার্সকে জানান, দু’ডোজ নেয়ার পর তাদের তৈরি টিকার কার্যকরিতা ৬০ শতাংশের বেশি হতে পারে।

চীন বৃহস্পতিবার একটি টিকার অনুমোদন দেয়। বেইজিংও কার্যকরিতার বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেনি। তবে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান মধ্যবর্তী ট্রয়ালে পাওয়া তথ্য প্রকাশ করেছে।

ট্রান্সপারেন্সি অ্যাকটিভিস্ট সাকেত গোখেল টুইটারে প্রশ্ন করেছেন, নিরাপত্তা এবং কার্যকরিতা বিষয়ে ভারত বায়োটেক যথেষ্ট তথ্য প্রকাশ না করারও পরও কিসের ভিত্তিতে তাদের টিকার অনুমোদন দেয়া হলো?

রোববার অনুমোদন দেয়া দুটি টিকার নিরাপত্তা এবং অন্যান্য উপাত্য চেয়ে ভারতের তথ্য অধিকার আইনে একটি আবেদন করেছেন গোখালে।

সূত্র: আল জাজিরা

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img