মঙ্গলবার, জুন ২৮, ২০২২

ইসরাইলপন্থীদের নিয়ন্ত্রণে ব্রিটেনের রাষ্ট্র ক্ষমতা; ডিসক্লাসিফাইডের প্রতিবেদনে চাঞ্চল্যকর তথ্য

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনসহ ব্রিটিশ মন্ত্রীসভার এক তৃতীয়াংশ সদস্য খোদ ইহুদিবাদী ইসরাইল অথবা কট্টর ইসরাইলপন্থী লবিং গ্রুপ কর্তৃক এতদিন যাবত অর্থায়িত হয়ে আসছেন।

দেশটির অনুসন্ধানধর্মী সংবাদমাধ্যম ডিক্লাসিফাইড ইউকের অনুসন্ধানে বছরের পর বছর ব্রিটিশ মন্ত্রীসভার সদস্যদের খোদ ইহুদিবাদী ইসরাইল অথবা কট্টর ইসরাইলপন্থী লবিং গ্রুপ কর্তৃক বিভিন্ন ভাবে অর্থায়িত হওয়ার নিন্দনীয় বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কট্টর ইসরাইলপন্থী লবিং গ্রুপগুলো নিজস্ব অর্থায়নে ইহুদিবাদী ইসরাইলে ভ্রমণসহ আরো বিভিন্ন উপায়ে ব্রিটিশ মন্ত্রীদের সাথে গোপনে অন্তরঙ্গতা গড়ে তুলে।

এমনকি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সর্বপ্রথম ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য হওয়ার ৩ বছর পর সাংসদ হিসেবে ৫ দিনের প্রথম যে সফরটি করেছিলেন সেটিও ছিলো ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলে তাদেরই অর্থায়নে!

ডিক্লাসিফাইডের তথ্যমতে, পার্লামেন্টের নিয়মনীতির কোনো তোয়াক্কা না করে তিনি এই সফরের বিষয়টি গোপন রেখেছিলেন। পরবর্তীতে ২০০৮ সালে পার্লামেন্টারি রেজিস্ট্রি অফ ইন্টারেস্টে ২০০৪ সালের ইসরাইল সফরের বিষয়টি উল্লেখ করলেও যাবতীয় খরচের হিসাবনিকাশ প্রদানের বিষয়টি তিনি চেপে গিয়েছিলেন।

তাছাড়া, ওই একই সফরে থাকা সাবেক চ্যান্সেলর জর্জ ওসবোর্নও ব্রিটিশ পার্লামেন্ট স্ট্যান্ডার্ড ভঙ্গ করে ইসরাইল সফরের বিষয়টি গোপন রেখেছিলেন এবং ফিরে আসার ২ সপ্তাহ পর ব্রিটিশ রেজিস্ট্রি বুক পার্লামেন্টারি রেজিস্ট্রি অফ ইন্টারেস্টে সফরের যাবতীয় বিষয়াদি লিপিবদ্ধ করিয়েছিলেন!

শক্তিশালী ওয়েস্টমিনস্টার লবিং গ্রুপ কনজার্ভেটিভ ফ্রেন্ডস অফ ইসরাইল (সিএফআই) যারা কি না তাদের তহবিল দাতাদের নাম ও ব্যয় খাত খুব কঠোরভাবে গোপন রাখে, তারা এতটুকু স্বীকার করে নিয়েছে যে তাদের ৮০ শতাংশ সদস্যই হলেন কনজার্ভেটিভ মন্ত্রীসভার সদস্য এবং তারা তাদের লক্ষ্যে সফল!

২০১২ সালে যুক্তরাজ্যের মেয়র নির্বাচনে উত্তর লন্ডনে ব্যাটেল বাস নামে বরিস জনসন যে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছিলেন সেটিও ছিলো সম্পূর্ণ সিএফআইয়ের অর্থায়ন এবং পরিকল্পনায়!

তাছাড়া আরো ৫ জন ব্রিটিশ এমপি অলোক শর্মা, কাওয়াসি কাওয়ারতেং, রবার্ট জেনরিক, অলিভার ডাউডেন, এবং আমান্ডা মিলিংকে ওই লবিং গ্রুপটি ২০১১ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্রটিতে ভ্রমণের বিনিময়ে বিশাল অংকের অর্থ প্রদান করেছিলো বলে জানা যায়।

কাওয়ারতেং এবং মিলিং এর গোপন ইসরাইল সফরটি ছিলো সাংসদ হওয়ার পরের বছরে আর ডাউডেনেরটি ছিলো সাংসদ হওয়ার পূর্বের।

যুক্তরাজ্য ভিত্তিক কট্টর ইসরাইলী লবিং গ্রুপ সিএফআই ছাড়াও এআইপিএসি নামে আরেকটি লবিং গ্রুপ রয়েছে যারা দেশটিতে ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের পক্ষে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে বলে জানা যায়। তবে সেটি পরিচালিত হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে!

কট্টর ইসরাইলী লবিং গ্রুপ এআইপিএসি বা আমেরিকান-ইসরাইল পাবলিক অ্যাফেয়ার্সও ব্রিটিশ মন্ত্রীসভার ২জন সদস্য মাইকেল গোভ এবং প্রীতি প্যাটেলকে আমেরিকার ওয়াশিংটন ডিসিতে ইসরাইল বিষয়ক একটি কনফারেন্সে অংশগ্রহণের জন্য অর্থায়ন করেছিলো।

তাদের মধ্যে আবার প্রীতি প্যাটেলকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে গোপন যোগাযোগ ও বৈঠকের অপরাধে ২০১৭ সালে ব্রিটিশ মন্ত্রীসভা থেকে বরখাস্ত করেছিলেন তৎকালীন কনজার্ভেটিভ নেতা এবং নারী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে।

ডিক্লাসিফাইডের তথ্যমতে, জনসন যুক্তরাজ্যের ক্ষমতায় আসার পর স্বরাষ্ট্রসচিব হিসাবে নিযুক্ত হওয়া সেই বরখাস্তকৃত প্যাটেলকে কট্টর ইসরায়েলপন্থী থিঙ্ক ট্যাঙ্ক হেনরি জ্যাকসন সোসাইটি (এইচজেএস) ২০১৩ সালে ওই
এআইপিএসি নামী ইসরাইলী লবিং গ্রুপের একটি ফোরামের প্রতিনিধি হওয়ার জন্য ২,৫০০ ইউরো (৩,৫৩০ ডলার) দিয়েছিলো।

ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে আরো বহু ব্রিটিশ রাজনীতিবিদের গোপন যোগসাজশ রয়েছে বলে জানা যায়।

জায়োনিজম ও ইসরাইলের স্বার্থ রক্ষায় এক্ষেত্রে বিশাল অংকের তহবিল গঠন ও অর্থায়নের মাধ্যমে মূল ভূমিকা পালন করে থাকে কট্টর ইসরাইলপন্থী অত্যন্ত প্রফেশনাল লবিস্ট গ্রুপগুলো!

অনবরত মানবাধিকার ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে যাওয়া অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল বিগত কয়েক মাসে তাদের সন্ত্রাসী কার্যক্রম আরো বাড়িয়ে দেওয়ায় হিউম্যান রাইটস ওয়াচ সহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ইহুদিবাদী ইসরাইলকে বর্ণবাদী রাষ্ট্র হিসাবে চিহ্নিত করেছে এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত করেছে।

অথচ মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকা বিষয়ক ব্রিটিশ মন্ত্রী জেমস ক্লেভারলি সম্প্রতি মন্তব্য করেছেন যে, ইসরাইল একটি চমৎকার রাষ্ট্র এবং এব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই!

এই ধুরন্ধর ব্রিটিশ মন্ত্রী অত্যন্ত সুকৌশলে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও ফিলিস্তিনের জনসাধারণের উপর তাদের আগ্রাসনকে সমর্থন জানিয়েছিলো এই বলে যে যুক্তরাজ্য জেরুসালেম ও ইসরাইলের বিভিন্ন স্থানে রকেট হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে।

হামাস ও অন্যান্য সশস্ত্র সংগঠনের প্রতিরোধ আন্দোলনকে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড আখ্যায়িত করে অবিলম্বে ইসরাইলের জনসাধারণকে নিজেদের রকেটের লক্ষ্যবস্তু বানানো থেকে বিরত থাকার আহবানও জানিয়েছিলেন তিনি!

তাছাড়া যুক্তরাজ্য, ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্ট কর্তৃক ইহুদিবাদী ইসরাইলের যুদ্ধাপরাধের বিষয়ে তদন্তেরও বিরোধিতা করে বলে জানান ব্রিটিশ মন্ত্রী ক্লেভারলি।

এতদিন যাবত ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী স্যার অ্যালান ডানকান যুক্তরাজ্যের রাজনীতিতে ইহুদিবাদী ইসরাইল ও কট্টর ইসরাইলী লবিস্টদের যে জঘন্য হস্তক্ষেপ থাকার কথা বলে আসছিলেন তা সকলেই অগ্রাহ্য করেছিলো।

কিন্তু ডিসক্লাসিফাইডের তদন্ত ও অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের সর্বশেষ রিপোর্টে বেরিয়ে আসলো যে স্যার ডানকান যা যা দাবী করেছিলেন তার সবই সত্য এবং প্রমাণিত।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img