বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২১, ২০২১

লিবিয়ায় পুনরায় দূতাবাস চালু করলো জার্মানি

মুয়াম্মার গাদ্দাফি পরবর্তী বিশৃঙ্খল লিবিয়ায় ধীরে ধীরে শৃঙ্খলা ফিরে আসতে থাকায় পুনরায় দেশটিতে নিজেদের দূতাবাস চালু করেছে জার্মানি।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) ত্রিপোলিতে পুনরায় জার্মান দূতাবাসের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস।

লিবিয়াতে পুনরায় জার্মান দূতাবাস চালুর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আজ পুনরায় দূতাবাস চালুর মাধ্যমে আমরা দেখাতে চাই যে জার্মানি হচ্ছে লিবিয়ার একজন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ অংশীদার যারা ভবিষ্যতেও এটা বজায় রাখবে।

অতীতে লিবিয়ার উন্নয়ন, স্থিতিশীলতা ও পারস্পরিক সুসম্পর্কের দিকে ইঙ্গিত করে এসময় হেইকো মাস বলেন,আমরা এখানে আবারো সাড়া পেতে চাই।

বিশৃঙ্খলা পরবর্তী লিবিয়ার সামগ্রিক উন্নতি সাধনে অব্যাহতভাবে আন্তর্জাতিক তৎপরতার প্রয়োজন রয়েছে উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি বলেন, বর্তমানে লিবিয়ায় জাতীয় ঐক্যের সরকার রয়েছে। তেলের উপর যে নিষেধাজ্ঞা ছিলো তাও শেষ হয়ে গিয়েছে। অস্ত্রের ঝনঝনানিও এখন ক্ষীণ। তাই সামগ্রিক উন্নয়ন অর্জন করতে গেলে তাদের অবশ্যই অব্যাহতভাবে আন্তর্জাতিক তৎপরতার প্রয়োজন।

প্রসঙ্গত, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সামরিক জোট ন্যাটোর অপতৎপরতায় গৃহযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে সাজানো-গোছানো তেলসমৃদ্ধ দেশ লিবিয়া। তারই ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে দেশটির প্রভাবশালী নেতা ও শাসক কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির ক্ষমতাচ্যুতি ঘটে এবং নির্মমভাবে শহীদ করা হয় তাকে।

২০১৪ সালে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রীয় কাঠামো গঠনে ব্যর্থ হলে আবারো অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে দেশটি, দেখা দেয় বিশৃঙ্খলা। ত্রিপোলি ও তবরুক দুই অংশে দুই সরকারে বিভক্ত হয়ে পড়ে দেশটি। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি প্রাপ্ত জিএনএর সরকারের হাতে রাজধানী ত্রিপোলির নিয়ন্ত্রণ থাকলেও পূর্ব লিবিয়ার তবরুকের কর্তৃত্ব চলে যায় বিদ্রোহী সরকার হিসেবে খ্যাতি পাওয়া তাদের প্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে।

এসময় জার্মানি লিবিয়া থেকে নিজেদের দূতাবাসের কার্যক্রম গুটিয়ে নেয় এবং পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র তিউনিসিয়া থেকে নিজেদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখে।

সর্বশেষ গত অক্টোবরে প্রতিদ্বন্দ্বীদের দু’পক্ষই জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়।

জানা যায়, রাজনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে বিদ্রোহী গোষ্ঠী ও আন্তর্জাতিক সমর্থন পাওয়া জিএনএর সরকারের মধ্যকার অভ্যন্তরীণ যুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটাতে বার্লিন প্রসেস নামে একটি রাজনৈতিক আলোচনা সভার উদ্যোগ নেয় জার্মানি, যা যুদ্ধবিরতি কালেই অনুষ্ঠিত হয়। তাছাড়া এবছরের জুনেও দ্বিতীয় বার্লিন কনফারেন্সের আয়োজন করে তারা।

সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img