আন নুহা ইউনিক এডুকেশন; শিক্ষাব্যবস্থার নতুন ধারা

জ্ঞানের কোনো সীমা-পরিসীমা নেই। মানুষের প্রয়োজন যেমন অসীম, তেমনি তার সেই সকল প্রয়োজন পূরণে তাকে ধরতে হয় অসংখ্য পথ ও পরিক্রমা। এসকল প্রয়োজনের সর্বোচ্চ ও প্রধানতম প্রয়োজন হচ্ছে জ্ঞান বিজ্ঞানে মানুষের উৎকর্ষ। মানুষের শিক্ষা ও জ্ঞানকে যদি সীমিত করে দেওয়া হয়, তাহলে ব্যহত হবে তার হাজার বছরের অগ্রযাত্রার এই পথ। তাই প্রতি যুগেই সেই সময়ের জ্ঞান-বিজ্ঞান মানুষের অন্ন-বস্ত্রের মতো আরেক মৌলিক প্রয়োজন।

বিগত শতকের শেষের দিকে দেশের প্রচলিত মাদরাসা শিক্ষাকে আরো উন্নততর করতে এবং যুগোপযোগী শিক্ষাব্যবস্থা হিসেবে গড়তে ব্যপকভাবে প্রয়াসী হন দেশের অন্যতম ইসলামিক স্কলার ও শিক্ষাবিদ মাওলানা আবু তাহের মেছবাহ। আল্লাহ তাকে শতায়ু প্রাণ দান করুন। প্রথম মাধ্যম হিসেবে শিক্ষায় মাতৃভাষাকে গ্রহণ করা, সে সময়ে সহজ কথা ছিলো না। আজও যে অনেকে ঐ পথের মসৃণতা মাড়িয়ে যাচ্ছে, তার পেছনে প্রধান অবদান তারই। বস্তুত শিক্ষায় ভাষা প্রশ্নটি একটি অমোঘ গুরুত্বপূর্ণ প্রসঙ্গ। শিক্ষায় ভাষার সহজায়ন না হলে এর প্রভাব যে শুধুই শিক্ষার সময়কালের উপর না পড়ে, বরং তৎপরবর্তীকালে বিগত সময়ের বিপুল ফায়দা (অর্থনৈনিক, সামাজিক, উচ্চশিক্ষাজনিত ইত্যাদি) থেকে বঞ্চিত হওয়ার প্রধান কারণ হিসেবেও দাঁড়াবে বা দাঁড়ায়, এই কথাটুকু যেন সামান্য ফারাক রেখে বাংলাদেশের জেনারেল ও কওমি এই দুই ধারাই বিস্মৃত হয়ে গিয়েছে।

শিক্ষাব্যস্থার এই প্রধানতম ত্রুটির সংশোধনকল্পেই মাদরাসার সিলেবাসকে নতুন করে নির্মাণে হাত দিয়েছিলেন মাওলানা আবু তাহের মেছবাহ। এটি ছিলো গত শতকের একটি উল্লেখযোগ্য সংস্কার,ধর্মীয় শিক্ষাপ্রকল্প। সাথে সাথে দ্বিতীয় প্রধান ভাষা হিসেবে আরবীকে হাজির করেন। যেহেতু উচ্চতর ধর্মীয় জ্ঞানের জন্য আরবী ভাষার বিকল্প নেই,তাই বাংলার পাশাপাশি দ্বিতীয় প্রধান হিসেবেই আরবীকে গুরুত্ব দেন তিনি। অল্প কয়েকদিনের মধ্যে এর ফলাফল ও যুগোপযোগীতা টের পেয়ে মাদরাসা শিক্ষাব্যবস্থায় এক ব্যপক পরিবর্তন শুরু হয়। সেই ধারাকে অনুসরণ করেই এবং সেইসব প্রয়োজন ও উপযোগিতার বিচার করেই, আন নুহা ইউনিক এডুকেশনের প্রতিষ্ঠা। ২০২০খ্রিস্টাব্দই হলো তার প্রতিষ্ঠাকাল। তবে প্রতিষ্ঠার পেছনে আছে সুদীর্ঘকালের স্বপ্ন, আকাঙ্খা, মেধা ও দুটি শিক্ষাব্যবস্থাকে সমন্বয় করে এক দুর্গম-দুঃসাধ্য পথকে সহজ করে তোলার অদম্য স্পৃহা। এরই মাধ্যমে বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় যেন কওমি-সাধারণের যুগপৎ তৃতীয় আরেকটি ধারার সূচনা হলো। ফলে কওমি শিক্ষা সিলেবাসে সাধারণ শিক্ষার যে বিষয়গুলোর অভাব বোধ হচ্ছিলো বা সাধারণ শিক্ষা সিলেবাসে ধর্মীয় অপরিহার্য যে শিক্ষা-দীক্ষার প্রয়োজন অনুভূত হচ্ছিলো, তার একটা সুরাহা ও সমাধান কল্পেই হাজির হয়েছে আন নুহা ইউনিক এডুকেশন।

মাদরাসার সিলেবাস হিসেবে মাদানী নেসাবের সিলেবাস, আর সাধারণ শিক্ষার সিলেবাস হিসেবে বৃটিশ ইংলিশ মিডিয়ামের সিলেবাস–এই দুই সিলেবাসের সমন্বিত রূপটিই হল আন নুহা ইউনিক এডুকেশনের সিলেবাস। এর জন্য শিক্ষাকাল ২/৩ বছর বর্ধিত হবে বটে তবে অর্জনের তুলনায় তা হবে খুব সীমিত মাত্র। ফলাফল যা হবে-

১-আরবী ও বাংলার মতই সাবলীল ও সরল হয়ে উঠবে প্রতিটি ছাত্রের ইংরেজী ভাষাও।
২-এই সিলেবাসে অনায়াসেই কোনো শিক্ষার্থী A লেভেল ও O লেভেলের পরীক্ষার্থী হতে পারবে।
৩-পাশাপাশি কম্পিউটার শিক্ষার জন্যেও বিশেষ সিলেবাস প্রণীত হওয়ায়, সমসাময়িক জাগতিক জ্ঞানকে জীবিকামাধ্যমরূপে গ্রহণ করতে পারবে সবাই।

কম্পিউটার শিক্ষায় থাকবে, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ভিডিও এডিটিং ও আউট সোর্সিংএর নানান বিষয়।

ধর্মহীন কর্মশিক্ষা আর কর্মহীন ধর্মশিক্ষা, দুটোই জাতির জন্য অভিশাপ! এই ধ্রুব বাক্যটির সফল বাস্তবায়নের চিন্তায়ই আন নুহা এডুকেশনের এই ভিন্ন প্রয়াস। আল্লাহ তায়ালা যেন সফল শিক্ষাব্যবস্থা হিসেবে এই প্রয়াস ও প্রচেষ্টাকে কবুল করেন।

আন নুহা ফাইভ মিনিট মাদরাসা-
যে সমস্ত প্রজেক্ট ও পরিকল্পনা নিয়ে আন নুহা গঠিত, তারই একটি মৌলিক অংশ হলো আন নুহা ফাইভ মিনিট মাদরাসা। প্রধানত মাদরাসা শিক্ষতদের জন্য দ্বিতীয়ত সাধারণ শিক্ষিতদের জন্য দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন মাদরাসা হিসেবেই পরিচিত ও পরিচালিত হবে এটি। এর ওয়েব সাইটে থাকবে-

১. কওমি মাদরাসার (প্রথম শ্রেনী থেকে দাওরা পর্যন্ত) প্রায় সকল পাঠ্যপুস্তকের জটিল বিষয়গুলোর উপর ছোট ছোট ক্লাস-ভিডিও।
২. মাদরাসার যে কোনো জামাতে ভর্তির সহজায়নের লক্ষ্যে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়বস্তু,পরামর্শ ও তথ্য সম্বলিত ডকুমেন্টারি।
৩. বাংলাদেশের সকল মাদরাসার প্রয়োজনীয় তথ্যাদি।
৪. দেশে বিদেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি সংক্রান্ত তথ্য।
৫.জেনারেলদের জন্য বিশেষ বিভাগ, যা থেকে অনায়াসেই তারা বিভিন্ন বিষয়ের ধর্মীয় সমাধানসহ নানান অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবে।
৬. সবিশেষে সবার জন্য থাকবে স্কিল ডেভেলপমেন্ট ও বেসিক কম্পিউটার শিক্ষার কোর্স।

আন নুহার বর্তমান কার্যক্রম-
ঘরবন্দি সময়ে সব কিছুর সাথে যখন স্কুল মাদরাসা ও বন্ধ তখনও নিয়মিত আপনবেগে ঘুরছে ঘড়ির কাটা। একদিন হয়ত সকল কিছু আগের মতই হয়ে উঠবে, তবু একটি সুদীর্ঘকালের শিক্ষাহীনতার দায় কি মানুষ এড়াতে পারবে? পারবে না। তাই আন নুহা বর্তমান সময়টিকে শিক্ষা দীক্ষায় স্বাভাবিকভবে বেগবান রাখতে মাদরসার সকল শ্রেনীর মৌলিক পাঠ্য বই-কিতাবগুলোর নিয়মিত ফ্রি অনলাইন ক্লাস চালু করেছে। এটি এসময়ের একটি উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম হিসেবেই বরিত হবে। ক্লাস গুলো করা যাবে (পেজের লিংক) এছাড়াও অনলাইনে ইতোপূর্বে যে সকল কাজ করেছে আন নুহা এডুকেশন তা নিম্নরূপ-

১. দেশের সর্বপ্রথম অনলাইন বক্তৃতা প্রতিযোগিতা। আরবী,বাংলা ও ইংরেজীতে। প্রায় অর্ধশত প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেছে এতে।
২. ফ্রী ইংলিশ লাইভ কোর্স। এতে অংশগ্রহণ করেছে ২৫০০ এর উপরে শিক্ষার্থী।
৩.জেনারেল শিক্ষিতদের জন্য ফ্রী কোরান লার্নিং কোর্স।
৪. ফরযে আইন কোর্স। বিষয় ভিত্তিক।এটিও জেনারেল শিক্ষিতদের জন্য।
৫.সমসাময়িক ইস্যুতে দেশের বড় বড় আলেমদের লাইভ,ভিডিও।
৬. কুইজ প্রতিযোগিতা ও অন্যন্য।

পরিশেষে-
নিঃসন্দেহে আন নুহা বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় একটি নতুন ধারার সূচনাই করেছে। যদিও তার মৌলিক শিক্ষাটি মাদরাসার মাদানী নেসাবের আদলেই তবুও দুই শিক্ষাব্যবস্থার একটি সমন্বিত রূপ হওয়ায় সময়োপযোগীতার প্রশ্নে উত্তীর্ণ একটি শিক্ষাব্যবস্থা হিসেবেই তা সবার কাছে গ্রহণীয় হবে। এই আশাবাদ ব্যক্ত করেই আগামীর দিকে চেয়ে আছি আমরা।

প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও
খন্দকার ফারাবী আহমাদ
আন নুহা ইউনিক এডুকেশন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *