রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

‘কাশ্মীরে উপনিবেশবাদ পাকাপোক্ত করতে সামরিক কলোনি স্থাপন করছে ভারত’

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


কাশ্মীরীদের ভূমিতে কব্জা জমিয়ে দখলকৃত পুরো জম্মু-কাশ্মীরকে নিজেদের উপনিবেশিক কলোনি বানাতে ভারত উঠেপড়ে লেগেছে বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তান শাসিত জম্মু-কাশ্মীরের প্রেসিডেন্ট মাসুদ খান।

শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) আনাদোলুর বরাত দিয়ে মিডলইস্ট মনিটরে এই সংবাদ প্রকাশিত হয়।

মাসুদ খান বলেন, বিভিন্ন আইন ও নীতিমালার আওতায় সুপরিকল্পিত ভাবে দখলকৃত কাশ্মীরের সকল ভূমিতে কব্জা জমিয়ে অতিদ্রুত তাকে নিজেদের উপনিবেশিক কলোনিতে রূপান্তর করতে উঠেপড়ে লেগেছে ভারত।

মোদি সমর্থিত আইওজেকের (ইন্ডিয়ান অকুপাইড জম্মু এন্ড কাশ্মীর) সরকার, দখলকৃত কাশ্মীরের সর্বপ্রথম সামরিক কলোনি স্থাপনের জন্য বুদগাম জেলাস্থ ২৫ একরের বিশাল কৃষি জমি সেনাদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়ার ঘটনায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

তার বক্তব্য মতে, দখলকৃত পুরো জম্মু-কাশ্মীরকে দ্রুততম উপায়ে নিজেদের উপনিবেশিক কলোনি হিসেবে প্রস্তুত করাতে বন্দোবস্ত নীতি গ্রহণ করে সাবেক ভারতীয় সেনাদের হাতে কাশ্মীরীদের ভূমির মূল মালিকানা বুঝিয়ে দিচ্ছে উগ্র হিন্দুত্ববাদী মোদি সরকার।

তাছাড়া, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সরকারি কর্মকর্তা অনলাইন ভিত্তিক ভারতীয় পত্রিকা দা প্রিন্ট ডট ইনকে জানায়, মূলত, জম্মু-কাশ্মীরে দায়িত্বপালনকারী অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারপরিজনকে আবাসন সুবিধা দেওয়ার জন্য এই সামরিক কলোনিটি স্থাপন করা হচ্ছে।

জম্মু-কাশ্মীরে নিহত হওয়া সেনা কর্মকর্তাদের স্ত্রী-সন্তানদেরকেও এই সামরিক কলোনিতে আবাসন সুবিধা দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

আরেকজন ভারতীয় সরকারি কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ভারতীয় অনলাইন পত্রিকা দা প্রিন্ট ডট ইন উল্লেখ করে, সামরিক কলোনির জন্য ভূমি সনাক্তকরণ প্রক্রিয়াকে নির্দিষ্ট সময়ের আগে গত অক্টোবরেই সম্পাদন করে ফেলেছে ভারত। কেনোনা, সেখানে অন্যান্য অঞ্চলের সেনা সমাবেশ ঘটিয়ে তাদের স্থায়ীভাবে রেখে দিতে চায় সরকার।

এছাড়াও, প্রস্তাবিত সামরিক সুবিধার আওতায় স্থানীয় কাশ্মীরী সেনাদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে বলে জানান সেই কর্মকর্তা।

এই ব্যাপারে মতামত স্বরূপ সেই সরকারি কর্মকর্তা বলেছিলেন, তারা আগে রাষ্ট্রের দেখভাল করেছে আর এখন স্থায়ী নিবাস গড়তে যাচ্ছে।

হিন্দুত্ববাদী ভারতের এই পদক্ষেপের সমালোচনা করে সর্বশেষ মাসুদ খান বলেছিলেন, দখলকৃত কাশ্মীরে গণহত্যা পরিচালনাকারী প্রাক্তন সেনাদেরকে স্থায়ীভাবে রেখে দিতেই এই প্রথম সামরিক কলোনি স্থাপন করছে ভারত।

উল্লেখ্য, অতীতে ভারত কর্তৃক এধরণের সামরিক কলোনি স্থাপনের প্রচেষ্টা স্থানীয়দের বাধার সম্মুখীন হয়েছিল।

দখলকৃত কাশ্মীরের সায়্যিদ আলী গিলানীর নেতৃত্বাধীন স্থানীয়দের স্বাধীনতাকামী একটি সংগঠন তৎকালীন হিন্দুত্ববাদী ভারত সরকারকে এধরণের সামরিক কলোনি স্থাপনের ব্যাপারে হুশিয়ারী দিয়েছিল, যার কারণে সেই পদক্ষেপ গ্রহণ করা থেকে ফিরে এসেছিল তৎকালীন ভারত সরকার।

সূত্র: মিডলইস্ট মনিটর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img