রবিবার, জুলাই ২৫, ২০২১

ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেওয়া নিয়ে সৌদি বাদশাহ ও যুবরাজের মধ্যে বিভেদ চরমে

ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে স্বাভাবিক সম্পর্ক করতে আরব মিত্রদের সামনে ঠেলে দিলেও সৌদি আরব নিজে যে পিছিয়ে যাচ্ছে সেই ইঙ্গিত দিনে দিনে স্পষ্ট হচ্ছে। এর পেছনে সৌদি বাদশাহ সালমান ও যুবরাজ মুহাম্মাদের মতভেদই প্রধান কারণ।

বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত দুদিনে সৌদি রাজপরিবারের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দুই সদস্যের মুখে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে যা শোনা গেছে তাতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন ইসরাইলের নেতারা। সৌদি আরব পিছিয়ে গেলে বাকি আরব দেশগুলোর সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্কের ভবিষ্যৎ কী দাঁড়াবে তা নিয়েই উদ্বেগ।
লন্ডনে ভূ-রাজনৈতিক নিরাপত্তা বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারেস্টের প্রধান ড সাদি হামদি বলেন, সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বা প্রিন্স তুর্কি আল ফয়সলের বক্তব্যে এটা পরিষ্কার যে ইসরাইলের সাথে সম্পর্কের প্রশ্নে বাদশাহ সালমান এবং তার ছেলে যুবরাজ মুহাম্মাদের মধ্যে কতটা মতভেদ রয়েছে।

“প্রিন্স তুর্কি বাদশাহ সালমানের খুবই ঘনিষ্ঠ। তিনি মানামায় ইসরাইলকে আক্রমণ করে যা বলেছেন তা সৌদি বাদশাহের মনোভাবের প্রতিফলন। ফিলিস্তিনিদের কিছু না পাইয়ে দিয়ে ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্থাপনে সৌদি বাদশাহর তীব্র আপত্তি রয়েছে।”

এছাড়া, তিনি বলেন, সৌদি নেতৃত্বের বড় একটি অংশ এখনও সাধারণ আরব জনগণের মতামত নিয়ে চিন্তিত।

“তারা মুসলিম বিশ্বের নেতৃত্ব নিয়ে চিন্তিত। তলে তলে ইসরাইলের সাথে বেশ অনেকদিন ধরে নানা সম্পর্ক থাকলেও সৌদি নেতৃত্বের এই অংশটি এখনও দেখাতে চায় যে মক্কা ও মদিনার মসজিদের রক্ষক হিসাবে ফিলিস্তিন সমস্যার মত মুসলিম বিশ্বের মূল কিছু বিষয়কে সৌদি আরব গুরুত্ব দেয়।”

“সুতরাং এটা প্রজন্মের বিভেদ, বাবা ও ছেলের মধ্যে বিভেদ।”

ইসরাইলের কতটা উদ্বিগ্ন?

সৌদি প্রিন্স তুর্কি আল ফয়সল যখন বাহরাইনের মানামায় রবিবার ইসরাইলের কঠোর সমালোচনা করছিলেন তখন জেরুসালেম থেকে ভিডিও কলের অন্য প্রান্তে বসে তা শুনছিলেন ইসরাইলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গ্যাবি আশকেনাজি।

তার বক্তব্যের শুরুতেই ইসরাইলের মন্ত্রী সৌদি প্রিন্সের বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, “মধ্যপ্রাচ্যে যে পরিবর্তন শুরু হয়েছে, আমি মনে করি না সৌদি প্রতিনিধির এই ধরনের বক্তব্য তার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ।”

ইসরাইলি মন্ত্রী দাবি করেন, আরব বিশ্বের সাথে সম্পর্কের অর্থ এই নয় যে ফিলিস্তিনিদের স্বার্থ চাপা দেওয়া হচ্ছে। “বরঞ্চ আব্রাহাম চুক্তি এই সঙ্কট সমাধানের সুযোগ করে দিয়েছে।”

তিনি ফিলিস্তিনি নেতৃত্বের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, তারা যেন কোনও শর্ত ছাড়া ইসরাইলের সাথে মীমাংসা আলোচনায় এগিয়ে আসেন, যদিও এ ধরণের আহ্বানের কোনও গুরুত্বই নেই।

ইসরাইলে নিরাপত্তা বিষয়ক গবেষণা সংস্থা জেরুজালেম ইন্সটিটিউট অব স্ট্রাটেজি অ্যান্ড সিকিউরিটি‘র (জেআইএসএস) গবেষক ড. জনাথন স্পায়ার বিবিসি বাংলাকে বলেন, সম্পর্ক নিয়ে সৌদিদের এই দ্বিধা অবশ্যই ইসরায়েলের কাছে কিছুটা উদ্বেগের কারণ সৌদি আরব “খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি দেশ। অন্য কিছু দেশ তাদের সিদ্ধান্তের জন্য রিয়াদের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। যেমন, মরক্কো।”

ড. স্পায়ার বলেন, “ইসরাইলে বুঝতে পারছে, সৌদি নেতৃত্বের মধ্যে একটি প্রজন্মগত বিরোধ চলছে এবং আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক হতে সময় লাগবে।”

কিন্তু, তিনি মনে করেন, বেশ কয়েকবছর ধরে দুই দেশের মধ্যে গোপনে নিরাপত্তার ক্ষেত্রে যে সহযোগিতা চলছে তা অব্যাহত থাকবে।

spot_imgspot_img

আরও