বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২১, ২০২১

বরিশালে করোনা চিকিৎসায় নারীদের জন্য আলাদা ইউনিট চালুর সিদ্ধান্ত

শের-ই বাংলা মেডিকেলের করোনা ওয়ার্ডে প্রায় প্রতিদিন বাড়ছে রোগী ভর্তি ও মৃত্যুর সংখ্যা। পিসিআর ল্যাবেও বেড়েছে শনাক্তের হার। মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) শেবাচিমের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি ছিলো ১২৩ জন করোনায় আক্রান্তসহ ৩২৭ জন রোগী। সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় করোনা ওয়ার্ডে মারা গেছে ১৪ জন রোগী। এর আগের দিন মৃত্যু হয়েছে করোনা ওয়ার্ডের ইতিহাসে সর্বাধিক ২৩ জন রোগীর।

সোমবার (২ আগস্ট) রাতে মেডিকেল কলেজের আরটি পিসিআর ল্যাবের সব শেষ রিপোর্টে নমূনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্তের হার ছিলো ৪৩.১৫ ভাগ। এর আগে রবিবারের (১ আগস্ট) রিপোর্টে করোনা শনাক্তের হার ছিলো ৫৫.৮৫ ভাগ।

শেবাচিমের করোনা ওয়ার্ডে শয্যা রয়েছে রোগীর চেয়ে কম ৩০০টি। আইসিইউ সেবা পাচ্ছেন ২৫ জন রোগী, ১৫ জন পাচ্ছেন হাই ফ্লো ন্যাসল ক্যানোলা সেবা এবং সেন্ট্রাল অক্সিজেন সেবার আওতয় রয়েছেন ৮৫ জন রোগী। বাকি রোগীর প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারছেন না কর্তৃপক্ষ। যথা সময়ে অক্সিজেন সুবিধা না পেয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন মুমূর্ষ রোগীরা। এমন পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে গত জুলাই মাসে জেনালের হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ড অন্যত্র স্থানান্তর করে সেখানে ৫০ শয্যার করোনা ওয়ার্ড চালু করে স্বাস্থ্য বিভাগ। এতেও পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে এবার নগরীর কালী বাড়ি রোডের মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে নারী রোগীদের জন্য ২০ শয্যার করোনা ইউনিট চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। পাশাপাশি নগরীর কালিজিরা এলাকার বেসরকারি সাউথ এ্যাপোলো মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে বিশেষায়িত করোনা হাসপাতাল করার প্রস্তাব কেন্দ্রে পাঠিয়েছে জেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগ।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে জেলা প্রশাসনের এক বিশেষ সভায় এই তথ্য জানানো হয়।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img