‘আফগান শান্তির জন্য পাকিস্তানের চেয়ে বেশি আগ্রহ আর কারো নেই’

মার্কিন-তালেবান শান্তি চুক্তিকে ঐতিহাসিক সুযোগ আখ্যা দিয়ে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি বলেছেন যে, আফগান-অভ্যন্তরীণ আলোচনার মধ্য দিয়ে অর্জিত অগ্রগতি সহিংসতা প্রশমন ও অস্ত্রবিরতির পরিবেশ সৃষ্টি করবে।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) পাকিস্তান সফররত আফগানিস্তানের ওলেসি জিরগার স্পিকার মির রহমান রহমানির সাথে বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

মেহমুদ কোরেশি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, যারা আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতার বিরোধী এবং যারা পাকিস্তান-আফগানিস্তান শক্তিশালী সম্পর্ক চায় না, তারা এই প্রক্রিয়া বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে।

আফগানিস্তানের অতিথিকে স্বাগত জানিয়ে পাকিস্তানী পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে, আফগানিস্তানের সাথে ভ্রাতৃপ্রতীম সম্পর্কে পাকিস্তান যথেষ্ট গুরুত্বের সাথে দেখে।

দুই দেশের পার্লামেন্টের মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর উপর গুরুত্ব আরোপ করে তিনি বলেন, পার্লামেন্টারি ফ্রেন্ডশিপ গ্রুপসের মাধ্যমে এবং দুই দেশের নারী পার্লামেন্ট সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানোর মাধ্যমে এটা অর্জিত হতে পারে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী শান্তিপূর্ণ, স্থিতিশীল ও সমৃদ্ধ আফগানিস্তানের প্রতি পাকিস্তানের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করে আফগান শান্তি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে পাকিস্তানের ইতিহাচক ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আফগান জনগণের পরে আর কোন দেশ নেই যারা পাকিস্তানের চেয়ে বেশি আফগানিস্তানের শান্তি চায়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন যে, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বার বার বলেছেন যে, আফগানিস্তানের সমস্যার কোন সামরিক সমাধান নেই এবং রাজনৈতিক পথেই এই সমস্যার সমাধান নিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন মার্কিন-তালেবান শান্তি চুক্তি আফগান নেতাদের জন্য একটা ঐতিহাসিক সুযোগ নিয়ে এসেছে যাতে তারা একসাথে মিলে একটা অন্তর্ভুক্তিমূলক সমন্বিত রাজনৈতিক সমাধানে পৌঁছাতে পারে। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আফগানিস্তান-পাকিস্তান অ্যাকশান প্ল্যান ফর পিস অ্যাণ্ড সলিডারিটি’র (এপিএপিপিএস) ভূমিকার উপর জোর দেন এবং বলেন যে, এই প্ল্যাটফরম সমস্ত প্রাসঙ্গিক ইস্যুগুলোর সমাধানের জন্য সবচেয়ে ভালো ভূমিকা রাখবে।

তিনি মনে করেন, দুই দেশের বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রগুলোতে সহযোগিতার যে বিশাল সুযোগ রয়েছে, সেটার সর্বোচ্চ ব্যবহার করা উচিত।

তিনি জানান, আফগান নাগরিকদের জন্য নতুন ভিসা নীতি চালু করেছে পাকিস্তান, যেটা দুই দেশের মানুষের মধ্যে বিনিময় আরও বাড়াবে।

২৩-২৫ অক্টোবর, তিন দিনের দ্বিপাক্ষিক সফরে রহমানি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল নিয়ে পাকিস্তানে অবস্থান করছেন। ২৬-২৭ অক্টোবর ইসলামাবাদে আয়োজিত ‘পাকিস্তান-আফগানিস্তান ট্রেড অ্যাণ্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরাম ২০২০ – পার্টনারশিপ ফর মিউচুয়াল বেনিফিট’ শীর্ষক সেমিনারেও তিনি অংশ নিবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *