সোমবার, অক্টোবর ২, ২০২৩

নরেন্দ্র মোদির মিশর সফর কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?

বর্তমানে ২ দিনের মিশর সফরে রয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার এ সফর নিয়ে বিশ্লেষকদের মধ্যে জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। তবে বেশিরভাগ বিশ্লেষক এ সফরটিকে ‘গেম চেঞ্জার’ বলে আখ্যা দিয়েছেন। কারণ তারা ধারনা করছেন এ সফরের মাধ্যমে ভারতের বিনিয়োগ বৃদ্ধির পথ প্রশস্ত করবে উত্তর আফ্রিকার দেশটি। অন্যদিকে মিশরের জন্য ‘ব্রিকস’ অর্থনৈতিক ব্লগে প্রবেশের একটি পথ তৈরি হবে। ১৯৯৭ সালের পর কোন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর এটি প্রথম মিশর সফর।

মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দুল ফাত্তাহ আল সিসির ভারত সফরের মাত্র ছয় মাসের মধ্যেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মিশর সফরটি সময়ের দিক থেকে বেশ দ্রুতই বলে গণ্য করেছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

এ বিষয়ে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী বলেন, “আমরা দৃঢ়ভাবে আশা করছি যে এই সফর আমাদের দুই দেশের মধ্যেকার বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে।”

বিশ্লেষকরা বলছেন, মিশর যেমন পশ্চিমা বিশ্বের বাইরে তার বন্ধু খুঁজতে ব্যস্ত রয়েছে ঠিক তেমনি ভারতও কায়রোর মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকা অঞ্চলে তার কূটনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধি করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ভারতের জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক গবেষক আফতাব কামাল পাশা আল জাজিরাকে বলেন, মিশর ও ভারত বর্তমানে বেশ ভালো বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক উপভোগ করেছে।

তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদী জিসিসির (গাল্ফ কো-অপারেশন কাউন্সিল) অন্তর্ভুক্ত দেশগুলো থেকে কি ধরনের সুবিধা অর্জন করা যাবে তা জেনেশুনেই মিশরের দিকে অগ্রসর হয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, যেহেতু মিশর ব্রিক্সে যোগ দিতে ইচ্ছুক সেই হিসাবে ভারত মিশরকে সমর্থনের ঘোষণা প্রদান করবে বলে আশা করা যাচ্ছে। এছাড়াও ভারত পাকিস্তানকে বাধা দিতে চায় যার জন্য দিল্লি চীনের সাথে ভারসাম্যপূর্ণ সম্পর্ক গড়তে ইচ্ছুক।

তিনি বলেন, যদি নরেন্দ্র মোদী গুরুত্বপূর্ণ আরব দেশ মিশরের সমর্থন পায় তাহলে মুসলিম ও কাশ্মীরের প্রতি তার সরকারের নীতি কিছুটা হলেও ঢাকা পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

করোনা মহামারী ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে গত কয়েক বছর ধরে মিশরের অর্থনীতি ক্রমবর্ধমান খারাপের দিকে ধাবিত হচ্ছে, যা দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকেও প্রভাবিত করেছে।

২০২২ সালে গম রপ্তানির উপর বিধিনিষেধ আরোপ করা সত্ত্বেও ভারত প্রায় ৬১ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন গম চালান করে মিশরে। এতে দেশটি কিছুটা হলেও খাদ্য সংকট কাটিয়ে ওঠে।

যার ফলে মিশর তার বিদেশী ঋণের পরিমাণ কমাতে ও খাদ্য নিরাপত্তা বজায় রাখতে ভারতের দিকে ঝুঁকছে।

অন্যদিকে সুয়েজ খালের কারণে ভৌগলিকভাবে ব্যাপক গুরুত্ব রয়েছে মিশরের। কারণ বিশ্ব বাণিজ্যের ১২ শতাংশ সুয়েজ খালের মাধ্যমে হয়ে থাকে। যার ফলে কায়রোর মাধ্যমে ভারত ইউরোপ ও আফ্রিকার প্রধান বাজারগুলোতে প্রবেশ করার সুযোগ পাবে। তাই বিশ্লেষকরা বলেছেন কায়রোর সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ভারতের জন্যও তাৎপর্য বহন করতে পারে।

তবে সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছে চীন। এছাড়াও বর্তমানে মিশরের সাথে চীনের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কের আর্থিক পরিমান ১৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে। অন্যদিকে ভারতের সাথে মিশরের বাণিজ্য সম্পর্কের পরিমাণ ৭.২৬ বিলিয়ন ডলার যা চীনের থেকে দ্বিগুণ। তাই নিঃসন্দেহে মিশরের উপর চীনের প্রভাব নিয়ে উদ্বিগ্ন রয়েছে ভারত।

গত সপ্তাহে ভারতে নিযুক্ত মিশরের রাষ্ট্রদূত ওয়ায়েল মোহাম্মদ আওয়াদ হামেদ এই সফরকে ‘গেম-চেঞ্জার’ বলে অভিহিত করেছেন।

তিনি বলেন, মিশরের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে আরব বিশ্ব সহ আফ্রিকা ও ইসরাইলের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক তৈরীর পথ প্রশস্থ হবে ভারতের।

তিনি আরো বলেন, আমরা আন্তর্জাতিক বিশ্বে একে অপরকে শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যেতে পারি। তাই আমরা ভারতকে ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য ও সমগ্র আফ্রিকাতে প্রবেশের সুযোগ প্রদান করছি। এছাড়াও নয়াদিল্লীর সাথে কায়রোর কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ফলে মিশরে ভারতের জন্য একটি সম্ভাব্য বাণিজ্য কেন্দ্র হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যা সত্যিই দুই দেশের সম্পর্ককে দৃঢ় করার পাশাপাশি এক নতুন দিগন্তের সূচনা করবে।

নরেন্দ্র মোদির সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে ভারত তার পররাষ্ট্র নীতি সম্প্রসারণের চেষ্টা করেছে। যার দরুন দেশটি আফ্রিকা মহাদেশে প্রায় ২০টি নতুন মিশন খুলেছে।

অন্যদিকে বছরের পর বছর ধরে ফিলিস্তিন, ইথিওপিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে নিজের প্রভাব ধরে রাখতে পারেনি মিশর। তাই দেশটি এখন আফ্রিকার বাইরে উপমহাদেশের দিকে তার চোখ প্রসারিত করেছে। আর এ সম্ভাব্য দেশটি হতে পারে ভারত।

সূত্র: আল জাজিরা

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img