বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

কে এই শেখ মুহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান?

সাঈদ মোহাম্মাদ ও এম মাহিরজান


শেখ মুহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। দেশটির সাতটি অঞ্চলের শাসকরা আজ শনিবার সর্বসম্মতিক্রমে তাকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করে। সাবেক প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফার মৃত্যুর এক দিন পর তিনি ওই পদে অভিষিক্ত হলেন।

শেখ মুহাম্মদ বিন জায়েদ আরব আমিরাতের প্রতিষ্ঠাতা জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ানের পুত্র। তিনি ২০০৪ সাল থেকে আরব আমিরাতের যুবরাজ ছিলেন। তার জন্ম ১৯৬১ সালে। তিনি ১৯৭৯ সালে যুক্তরাজ্যের সানহার্স্ট রয়্যাল মিলিটারি একাডেমি থেকে স্নাতক শেষ করেন। ব্রিটেন থেকেই তিনি সাঁজোয়া যান, বিমান চালনা এবং প্যারাট্রুপসের উপর প্রশিক্ষণ নেন।

শেখ মুহাম্মদ বিন জায়েদের পিতা শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ান বেশ সুনামের সাথে আরব আমিরাত শাসন করেছেন। বিশেষত আরব বিশ্বে আবুধাবির বিশেষ সুখ্যাতি ছিল। সামাজিক কল্যাণমূলক কাজে বড় পরিসরে ব্যয় করতেন।

শেখ জায়েদের পর ক্ষমতায় আসেন খলিফা বিন জায়েদ। ২০১৪ সালে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে তিনি আর জনসম্মুখে আসেননি। গতকাল তিনি ৭৩ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন।

শেখ খলিফা বিন জায়েদ অসুস্থ থাকায় দীর্ঘদিন যাবত দেশ পরিচালনা করে আসছিলেন সাবেক যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন জায়েদ। ভাইয়ের মৃত্যুর পর পূর্ণ ক্ষমতার অধিকারী হলেন তিনি।

যুবরাজ থাকাকালীন সময়েই মুহাম্মাদ বিন জায়েদ আরব আমিরাতকে পুলিশি রাষ্ট্রে রূপান্তর করেছেন।

ইসরাইলকে স্বীকৃতি
২০২০ সালে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেয় আরব আমিরাত। এই স্বীকৃতির পেছনের মূল কারিগর ছিলেন মুহাম্মাদ বিন জায়েদ। আরব আমিরাতের স্বীকৃতির পরেও তিনি থেমে থাকেননি। মুসলিম রাষ্ট্রগুলোকে চাপ তৈরি করেছেন ইসরাইলকে স্বীকৃতি দিতে।

এছাড়াও তার আমলেই আরব আমিরাত বিদেশী রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ হস্তক্ষেপ শুরু করে। মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে তার ইন্ধনে এমন গৃহযুদ্ধ, সেনা বিদ্রোহের ঘটনা ঘটেছে, যার বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই বলি হয়েছে সাধারণ মুসলমানগণ।

মুহাম্মাদ বিন জায়েদের ইন্দনে শুরু হওয়া বিভিন্ন যুদ্ধ ও বিদ্রোহে লক্ষ লক্ষ মুসলমান গৃহহীন হয়েছেন, আজীবনের জন্য পঙ্গু হয়েছেন ও নিহত হয়েছেন। শুধু ইয়েমেনেই না খেয়ে মারা গেছে ৮৬ হাজার শিশু।

ইয়েমেন যুদ্ধ
আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আল জাজিরার অনুসন্ধানে উঠে এসেছে, মুহাম্মাদ বিন জায়েদ প্রথমে ইয়েমেনের শিয়া হুথিদের সহযোগিতা করেছেন সুন্নি সরকারের বিরূদ্ধে বিদ্রোহ করতে। আবার এই হুথিদের বিরুদ্ধে সৌদি নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত বাহিনীকেও অর্থায়ন করেছেন তিনি।

মুরসির পতন
মিশরের প্রথম গনতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হাফেজ মুহাম্মাদ মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করার পিছনে মূল কলকাঠি নেড়েছেন এই মুহাম্মাদ বিন জায়েদ। মুসলিম ব্রাদারহুডকে আরব বিশ্ব থেকে নির্মূল করতে মিশরের তৎকালীন সেনাপ্রধান আব্দুল ফাত্তাহ আল সিসিকে অর্থায়ন করেন তিনি। আরব আমিরাতের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সহযোগিতার ফলেই মুরসির সরকারকে উৎখাতে সফল হয় সিসি।

এরদোগান বিরোধী অভ্যুত্থান
২০১৬ সালের জুলাই মাসে তুরস্কে সামরিক অভ্যুত্থান ঘটানোর চেষ্টা করে সামরিক বাহিনীর একটি অংশ। এর পিছনেও চাবিকাঠি নেড়েছে আরব আমিরাত। তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানের জন্য ৩০০ কোটি ডলার অর্থ ব্যয় করেছিল আরব আমিরাত। (সূত্র : ইয়ানি শাফাক)

কাতারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা
কাতারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার নেপথ্য নায়ক ছিলেন মুহাম্মাদ বিন জায়েদ। মুহাম্মাদ বিন জায়েদের ঘনিষ্ঠজন যুক্তরাষ্ট্রে আমিরাতের রাষ্ট্রদূত ইউসুফ উতাইবার সাথে মার্কিন সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী রবার্ট গেটসের কিছু বার্তা ফাঁস হয়ে যায়। উতাইবা রবার্ট গেটসকে মুহাম্মদ বিন জায়েদের একটি পত্র হস্তান্তর করেন। সেখানে রবার্ট গেটসকে শুভেচ্ছা জানানোর পর কাতারের উপর “জাহান্নামের দরজা” খুলে দিতে তাকে মুহাম্মাদ বিন জায়েদ আহবান করেন। এর পরপর কাতারের বিরূদ্ধে অবরোধ আরোপ করা হয়।

আল জাজিরার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র
উইকিলিকসের ফাঁস হওয়া তথ্য মতে, কাতারের আল জাজিরার প্রধান কার্যালয় বোমা মেরে উড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা এটেছিলেন এই যুবরাজ। আফগানিস্তানে আমেরিকার যুদ্ধাপরাধের দৃশ্যগুলো যেন ধারণ না করতে পারে সে জন্য সে সাংবাদিক প্রবেশে বাঁধা দিতে পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি। আফগানিস্তানে যে আল জাজিরার অফিস দু’ দু’বার বোমা হামলার শিকার হয়েছে তার পিছনেও মুহাম্মদ বিন জায়েদের ইন্ধন ছিল।

তালেবান নেতাদের হত্যার প্রস্তাব
২০১৯ সালে আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সাথে বৈঠকে তালেবান নেতাদের হত্যা করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন মুহাম্মাদ বিন জায়েদ। এজন্য তিনি গোপন কর্মসূচি চালুর কথা বলেছেন। (সূত্র : মিডলইস্ট আই)

নরেন্দ্র মোদীকে সর্বোচ্চ সম্মাননা
২০১৯ সালে ৫ আগস্ট স্বায়ত্ব শাসন সংক্রান্ত কাশ্মীরের বিশেষ সুবিধা বাতিলের পর যখন মুসলিম বিশ্ব ভারতের নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছিল, তখনই আরব আমিরাত মোদীকে পুরস্কৃত করার সিদ্ধান্ত নেয়। সে বছর ২৫ আগস্ট সংযুক্ত আরব আমিরাতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননায় ভূষিত করা হয় ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। তৎকালীন যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন জায়েদ নিজে সেই সম্মাননা তুলে দেন মোদীর হাতে।

এছাড়াও লিবিয়ায় মুহাম্মাদ বিন জায়েদ সহযোগিতা করেছে কট্টর ইসলামবিরোধী মিলিশিয়া হাফতারকে। প্রতিবেশি দেশ আম্মানের সেনা এবং প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনার উপর গোয়েন্দা জাল বিছিয়েছিলেন মুহাম্মাদ বিন জায়েদ। আম্মানের জাতীয় সংবাদসংস্থার তদন্তে বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়।

মুসলমানদের ধর্মীয় নেতাদের সাথে বৈরী সম্পর্ক থাকলেও অন্য ধর্মের নেতাদের সঙ্গে মুহাম্মদ বিন জায়েদের যথেষ্ট সুসম্পর্ক রয়েছে। তার আমন্ত্রণেই প্রথমবারের মতো আরব আমিরাত সফরে আসেন খ্রিষ্টানদের শীর্ষ ধর্মীয় নেতা পোপ ফ্রান্সিস।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img