বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

সিলেটে বিনা চিকিৎসায় তৃতীয় ব্যক্তি মৃত্যুর পর সমালোচনার ঝড়

এবার চার হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে সিলেটে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (০৫ জুন) ভোরে বিনা চিকিৎসায় মারা যাওয়া ওই ব্যক্তি বন্দরবাজারের ব্যবসায়ী আরএল ইলেকট্রনিকসের স্বত্বাধিকারী সিলেট নগরের কুমারপাড়ার বাসিন্দা ইকবাল হোসেন খোকা (৫৪)।

এর আগে গত ১ জুন নগরীর ছয়টি বেসরকারি হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে মারা যান কাজিরবাজার মোগলটুলা এলাকার লেচু মিয়ার স্ত্রী মনোয়ার বেগম (৬৩)। মারা যাওয়া ওই নারী অ্যাজমাজনিত রোগের কারণে শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন।

এছাড়া গত ৩১ মে দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসকষ্টে ভোগা নগরীর কাজীটুলা এলাকার বাসিন্দা এক নারী অসুস্থ হলে নগরীর পাঁচটি বেসরকারি হাসপাতাল ঘুরেও চিকিৎসা না পেয়ে মারা যান।

সর্বশেষ ৫ জুন ব্যবসায়ী ইকবাল হোসেন খোকার বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর পর নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

প্রথম মৃত্যুর ঘটনার পর স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালগুলোকে সতর্ক করে চিঠি দেয়া হলেও প্রায় একই ধরণের ঘটনা ধারাবাহিকভাবে ঘটে যাওয়ায় মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ আর উদ্বেগ।

ইকবাল হোসেনের মৃত্যুর বর্ণনা দিয়ে তার ছেলে তিহাম হোসেন বলেন, আমার মতো অন্য কেউ যেন তার বাবাকে বিনা চিকিৎসায় না হারান। বলেই কান্নায় ভেঙে পড়েন তিহাম।

তিনি বলেন, কোটি টাকা খরচ দেব বলেছি। বাবার চিকিৎসা করতে চিকিৎসকদের কাছে মিনতি করেছি। বলেছি, আমার বাবা শ্বাস নিতে পারছেন না। তাকে দয়া করে একটু অক্সিজেন দেন। কোনো হাসপাতাল চিকিৎসা দেয়নি। এমনকি এক বোতল অক্সিজেনও দেয়নি।

তিহাম আরও বলেন, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বাবার বুকব্যথা ও শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। তখন সোবাহানীঘাট এলাকায় অবস্থিত আল হারামাইন হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য কল করি। অ্যাম্বুলেন্স বাসায় আসার পর দেখি, অক্সিজেন সিস্টেম ভাঙা। এ অবস্থায় বাবাকে আল হারামাইন হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে বার বার তাদের অক্সিজেনের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করলেও রোগীকে রেখে নিয়মকানুন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যান তারা। একপর্যায়ে জানান তারা রোগীকে রাখবেন না, নর্থ ইস্ট হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। অনেক অনুরোধের পরও অক্সিজেনের ব্যবস্থা করে দেননি তারা।

“এরপর বাবাকে নিয়ে দক্ষিণ সুরমার নর্থ ইস্ট হাসপাতালে যাই। সেখানে গেলে কর্তৃপক্ষ জানায় তাদের হাসপাতালে সিট নেই, রোগীর চিকিৎসা দেয়া সম্ভব নয়। তখন পরিচিত এক চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি পরামর্শ দেন শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে যাওয়ার জন্য।” যোগ করেন তিনি।

“শামসুদ্দিন হাসপাতালে গিয়ে সবকিছু বন্ধ দেখতে পাই। ১০-১৫ মিনিট পর এক নিরাপত্তাকর্মী গেটে এসে জানান হাসপাতালের সবাই ঘুমে। অন্য কোথাও রোগীকে নিয়ে যান। তখন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দিকে রওনা হই। সেখানে জরুরি বিভাগে যাওয়ার পর রোগীকে সিসিইউতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেন তারা। সেখানে ওয়ার্ডের ভেতরে না নিয়ে হাসপাতালের বারান্দায় একটি ইসিজি করা হয়। এরপরই হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক আমার বাবাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।” বলছিলেন তিহাম।

দেশের সব সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার সরকারি নির্দেশনা থাকার পরও রোগী ভর্তি করছে না সিলেটের কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতাল।

এ নিয়ে ক্ষোভ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মন্তব্য করে ক্ষোভ ঝাড়ছেন অনেকে। বিনা চিকিৎসায় যেন আর কারো মৃত্যু না হয় সেজন্য সরকারকে পদক্ষেপ নিতে দাবি জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

আরও পড়ুন

৭ হাসপাতাল ঘুরে বিনা চিকিৎসায় অ্যাম্বুলেন্সেই মারা গেলেন সিলেটের আরও এক নারী

spot_img
spot_img

সর্বশেষ