করোনা রিপোর্ট না থাকায় ভারতে নিহত বাংলাদেশির লাশ ফিরিয়ে দিল বিজিবি

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরীক্ষার ফলাফলের প্রতিবেদন না পাওয়ায় ভারতের আসামে নিহত বাংলাদেশি যুবক রণজিৎ রিকমনের (৩৫) লাশ গ্রহণ করেনি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) তার লাশ হস্তান্তরের জন্য সিলেটের বিয়ানীবাজারের শ্যাওলা সীমান্তে নিয়ে আসে।

রণজিতের বাড়ি মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়নের ধামাই চা–বাগানের তাঁতীপাড়া এলাকায়। তিনি ওই বাগানের শ্রমিক ছিলেন।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ১ জুন আসাম রাজ্যের পাথারকান্দি থানার পুতনিছড়া চা-বাগান এলাকায় ভারতীয়রা চুরির অভিযোগ এনে পিটুনি দেয়। এতে রণজিৎ ঘটনাস্থলেই মারা যান। আহত হন তিনজন। এদের মধ্যে একজন হলেন জুড়ীর গোয়ালবাড়ি ইউনিয়নের কুচাই ফাঁড়ি চা-বাগানের বাসিন্দা মুলেম মুন্ডা (৩৬)। বাকি দুজন ভারতীয় নাগরিক।

পরে পুলিশ হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে পাথারকান্দি থানায় মামলাও হয়।

ওই দিন রাতে বিএসএফের ১৩৪ ব্যাটালিয়ন বাংলাদেশি দুই যুবকের পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হতে সীমান্তের বিপরীতে অবস্থিত বিজিবির জুড়ীর লাঠিটিলা ক্যাম্পে একটি চিঠি পাঠায়। চিঠিতে রণজিৎ ও মুলেমের নাম-ঠিকানা ভুল থাকায় প্রথমে বিভ্রান্তি দেখা দেয়।

পরে বিজিবি ও পুলিশ বিভিন্ন স্থানে সন্ধান চালিয়ে রণজিৎ ও মুলেম কয়েক দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে বলে খবর পায়।

এ ছাড়া আসামের ঘটনা নিয়ে সেখানকার গণমাধ্যমে হতাহত ব্যক্তিদের ছবিসহ সংবাদ প্রকাশিত হয়। স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের সহযোগিতায় বিজিবি ও পুলিশ এসব ছবি সংগ্রহ করে। এরপর বুধবার সকালে তারা দুজনের ছবি নিয়ে তাঁদের বাড়িতে যায়। এ সময় স্বজনেরা তাঁদের শনাক্ত করেন।

বিজিবি জানায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে বিএসএফের একটি দল রণজিতের লাশ নিয়ে শ্যাওলা সীমান্তে পৌঁছায়। এ সময় সেখানে বিজিবি, বিএসএফ, পুলিশ, চিকিৎসক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও নিহত রণজিতের স্বজনেরা উপস্থিত ছিলেন।

সিলেটের বিয়ানীবাজারে অবস্থিত বিজিবির ৫২ ব্যাটালিয়নের সহকারী পরিচালক মমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা বিএসএফের কাছে আগেই নিহত রণজিতের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন, মামলার এজাহারের কপি ও করোনা পরীক্ষার ফলাফলের প্রতিবেদন চেয়েছিলাম। গণপিটুনির সময় অনেক লোকের সংস্পর্শে আসায় রনজিতের করোনা পরীক্ষার প্রতিবেদন চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু বিএসএফের কর্মকর্তারা বলেন, রণজিতের লাশের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। প্রতিবেদন পেতে অন্তত দুই দিন সময় লাগবে। তাই লাশ গ্রহণ করিনি। প্রতিবেদন পাওয়ার পর আমরা লাশ গ্রহণ করব। পরে বিএসএফ লাশ নিয়ে ফিরে যায়। আমরাও ফিরে আসি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *