বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৭, ২০২২

পাবনায় আ. লীগের দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ১০

পাবনা পৌরসভা নির্বাচনে প্রচারণার শেষ দিনে বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় শহরে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হন। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থীর কয়েকটি নির্বাচনি কার্যালয় ভাঙচুর করা হয়েছে। এর জন্য নৌকার সমর্থকদের দায়ী করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক জেলা যুবলীগ সভাপতি শরিফ উদ্দিন প্রধান।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাসিম আহমেদ জানান, সন্ধ্যায় শহরের স্বাধীনতা চত্বরে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামালের জনসভা হয়। সভা থেকে ফেরার পথে শালগাড়ীয়ায় কয়েকটি নির্বাচনি অফিস ভাঙচুর করে নৌকার সমর্থকরা। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী শরিফ উদ্দিন প্রধানের লোকজন এতে বাধা দিলে শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। এতে ছুরিকাহতসহ অন্তত ১০ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে পাঁচ জনকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনার পরপরই শহরের বিভিন্ন স্থানে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে এবং পুরো শহরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। স্বতন্ত্র প্রার্থীর শালগাড়িয়া গোডাউন মোড়, হাসপাতাল রোডের, বাইপাস এলাকা ও সরদার পাড়া, নারায়ণপুর, গাছপাড়া নির্বাচনি কার্যালয়ে ভাঙচুর করা হয়।

এ সময় শহরে অতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে সব দোকান-পাট মুহূর্তের মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আলী মর্তুজা সনি বিশ্বাস ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক জেলা যুবলীগ সভাপতি শরিফ উদ্দিন প্রধানের লোকজন শহরের প্রধান সড়ক আব্দুল হামিদ রোডের দুই দিকে দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী শরিফ উদ্দিন প্রধান বলেন, আমরা নির্বাচনি প্রচারণা শুরুর দিন থেকে অত্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে আসছিলাম। কিন্তু বৃহম্পতিবার সন্ধ্যায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে শহরের পার্শ্ববর্তী ভাঁড়ারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও কুখ্যাত সন্ত্রাসী আবু সাঈদ আমার চারটি নির্বাচনি কার্যালয় ভাঙচুর করে। এ সময় আমার নেতাকর্মীরা বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। তাদের হামলায় আমার পক্ষের ১৩/১৪জন আহত হয়েছে। আমি নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ চাই। নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় বুঝতে পারায় তারা পরিকল্পিতভাবে আমার লোকজনের ওপর হামলা করেছে।

জেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আব্দুল আহাদ বাবু বলেন, সন্ধ্যায় শহরের মুক্তমঞ্চে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পথসভায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল বক্তব্য দেন। এর পরই এই ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনা ঘটে।

এদিকে বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) বিকালের দিকে শহরে শেষ শো-ডাউন করেন নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা। মিছিল শেষে তারা শহরের প্রধান সড়ক আব্দুল হামদি রোডের বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্বরে নির্বাচনি পথসভা করেন। পথসভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও শেখ সেলিমের ছেলে শেখ ফাহিম, স্কয়ার গ্রুপের পরচিালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টুসহ দলের নেতারা।

এই পথসভায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল পাবনা সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের কার্যক্রম স্থগিত করেন। পরে দলের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে পাঠানো হয়। সেখানে উল্লেখ করা হয় দলের সভাপতির নির্দেশে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

এর আগে দুপুরে শহরে বড় ধরনের শোডাউন করেন আওয়ামী লীগের (স্বতন্ত্র) নারিকেল গাছ প্রতীকের প্রাথী শরিফ উদ্দিন প্রধান।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img