শনিবার, অক্টোবর ৮, ২০২২

ফেনীর সেই ইউপি চেয়ারম্যান বহিষ্কার

ফেনী সদরের শর্শদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জানে আলম ভূঞাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত এক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) স্থানীয় সরকার বিভাগ ফেনীর উপ-পরিচালক ড. মুহাম্মাদ মঞ্জুরুল ইসলাম প্রজ্ঞাপনের পত্রটি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

ঠিকাদারকে অপহরণ ও মারধরের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি জানে আলম ভূঞা বর্তমানে ফেনী কারাগারে রয়েছেন। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব আবু জাফর রিপন স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, যেহেতু শর্শদী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জানে আলম ভূঞার বিরুদ্ধে ফেনী জেলার গ্রাম পুলিশদের পোষাক ও সরঞ্জামাদি সরবরাহের নিমিত্তে ধার্যকৃত তারিখে দরপত্র জমা দেওয়ার নির্ধারিত সময়ে একজন দরপত্রদাতাকে অপহরণ ও মারধরের ঘটনায় ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের হওয়ায় জনস্বার্থে তার দ্বারা ইউনিয়ন পরিষদে ক্ষমতা প্রয়োগ প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণে সমীচীন নয় মর্মে সরকার মনে করে।

সেহেতু জানে আলম ভূঞা কর্তৃক সংঘটিত অপরাধমূলক কার্যক্রম পরিষদসহ জনস্বার্থের পরিপন্থী বিবেচনায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ এর ধারা ৩৪(১) অনুযায়ী তাকে তার স্বীয় পদ হতে সাময়িক বহিষ্কার করা হলো বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, এ আদেশ যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে জনস্বার্থে জারী করা হলো এবং অবিলম্বে তা কার্যকর হবে।

প্রসঙ্গত, ফেনী জেলার গ্রাম পুলিশদের পোষাক ও সরঞ্জামাদি সরবরাহের নিমিত্তে ধার্যকৃত তারিখে দরপত্র জমা দেওয়ার নির্ধারিত সময়ে একজন দরপত্রদাতাকে অপহরণ ও মারধরের ঘটনায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৩ জনকে আসামি করে গত বছরের ২৭শে ডিসেম্বর ভুক্তভোগী ঠিকাদার টাঙ্গাইলের খলিলুর রহমান (৪৭) ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার ৫ নম্বর আসামি হওয়ায় গত ৩১শে ডিসেম্বর শর্শদী ইউপি চেয়ারম্যান জানে আলম ভূঞাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তাকে এক দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ