বুধবার, মে ২৫, ২০২২

আর একজন কর্মীকেও হয়রানি করা হলে কঠিন কর্মসূচি ঘোষণা করবে হেফাজত

ভারতের হিন্দুত্বাদী বিজেপি সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে গত ২৬ মার্চ বায়তুল মোকাররমে তৌহিদি জনতার শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে একই দিন বি-বাড়িয়া, হাটহাজারী এবং ২৭ ও ২৮ মার্চ কর্মসূচি পালনকালে তাওহীদি জনতার ওপর পুলিশ ও সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের হামলায় আহত ও নিহত হওয়ার প্রতিবাদ, আহতদের সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরণ, দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে দেশব্যাপী ডাকা হেফাজতের সমাবেশ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ শুক্রবার (২ এপ্রিল) রাজধানীর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইটে হেফাজতের সমাবেশ পালন করে সংগঠনটির ঢাকা মহানগর নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হক বলেন, মাত্র তিন দিনের ব্যবধানে ২০টি তাজা প্রাণ ঝরানো হয়েছে, অনেককে পঙ্গু করা হয়েছে, অনেকে মৃত্যু যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। এরপর যদি বাংলাদেশের আর কোথাও কোন একজন কর্মীকে হয়রানি করা হয়, সারাদেশের কোথাও কোন কর্মসূচিতে যদি বাধা প্রদান করা হয়, তাহলে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ আরো কঠিন থেকে কঠিনতর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে।

তিনি বলেন, ২৬ তারিখে আমাদের কর্মসূচি ছিল না, শান্তিপূর্ণ তাওহীদী জনতার মিছিলে সরকারী দলের ছাত্র ও যুব সংগঠনের সন্ত্রাসী বাহিনী অতর্কিত আক্রমণ করে পরিস্থিতি ঘোলাটে করে। তারই জেরে হাটহাজারীতে ৪ জন ও ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ায় ১৬ জন কর্মীকে হত্যা করে। এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচার নিশ্চিত করতে হবে।

মাওলানা মামুনল হক বলেন, দেশব্যাপী হেফাজত ইসলামের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। কেউ যদি চিন্তা করেন, বন্দুকের নল দিয়ে হেফাজত ইসলামকে শান্ত করে ফেলবেন, তাদের বলবো, আপনারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন। আমি বিশ্ব মানবাধিকার কর্মীদের কাছে বলতে চাই, গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে বলতে চাই- যথাযথ তদন্ত করুন। পুলিশি হেফাজতে থাকা আমাদের কর্মীদের ওপর হামলা করা হয়েছে। আমরা এসব হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাই। যারা আমাদের ওপর হামলা করেছে তারা কীভাবে এখনো প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে আমি তার জবাব চাই।

সমাবেশে বক্তাগণ বলেন, ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় হত্যাকাণ্ডের মূল উস্কানিদাতা স্থানীয় এমপি উবাইদুল মুক্তাদির চৌধুরী। তার উস্কানীতেই জামিয়া ইউনুছিয়া মাদরাসায় হামলা হয়। এর ফলে ১৫ এর অধিক লাশ পড়ে। কিন্তু এই এমপির বিষয়ে এখনও কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। আমরা অবিলম্বে তার সংসদ সদস্য পদ বাতিল করে বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানাচ্ছি।

নেতৃবৃন্দ বলেন, মিডিয়া হলো সত্যকে প্রকাশ করার মাধ্যম। কিন্তু আমাদের মিডিয়াগুলোর চরিত্র সম্পূর্ণ বিপরীত দেখতে পাচ্ছি। হেফাজতের ২০জন শহীদের বিষয়ে তাদের কোন কথা নেই, তাদের কোন নিউজ নেই। এটা দুঃখজনক। আমরা সাংবাদিক ভাইদেরকে বলব, আপনারা জনগণের কথা লিখুন, তাদের পক্ষে কাজ করুন। সরকারের তল্পীবাহক হওয়ার চেষ্টা করবেন না।

হেফাজতের ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা জুুনায়েদ আল হাবীবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, ড. আহমদ আব্দুল কাদের, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, মাওলানা সাখাওয়াত হুসাইন রাজি, এড. মাওলানা শাহীনূর পাশা, মাওলানা মুনীর হুসাইন কাসেমী, মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন, অধ্যক্ষ মাওলানা আবু তাহের খান, মাওলানা তাফাজ্জুল হুসাইন মিয়াজী, মাওলানা ফয়সাল আহমদ, মাওলানা শরীফুল্লাহ প্রমুখ।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img