মার্কিন সেনা প্রত্যাহারে ভীত আফগানের ঘানি সরকার

কাতারে চলছে তালেবান ও মার্কিন মদদপুষ্ট আফগান সরকারের শান্তি আলোচনা। আলোচনার ভেতরকার খবর প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই গণমাধ্যমে কোনো পক্ষই কথা বলছে না। তবে রাকঢাক রেখেই কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল-জাজিরা খবর প্রকাশের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

তারই ধারাবাহিকতায় সংবাদ মাধ্যমটি শুক্রবার (০৯ অক্টোবর) জানায়, ট্রাম্প খুব শিঘ্রই মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করে নেবেন। এটিকে তারা ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসেবে দেখছে। যদিও আলোচনায় বসার শর্ত হিসেবে তালেবান আফগানিস্তান থেকে সব মার্কিন সেনা প্রত্যাহারে কথা বলেছিল। সে অনুযায়ী মার্কিন সরকার এবং তালেবানের সঙ্গে গত ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে একটি চুক্তিও হয়েছে। এরই মধ্যে কিছু সেনা প্রত্যাহারও করা হয়েছে। তবে উল্লেখ যোগ্য সেনা এখনো আফগানিস্তানে উপস্থিত রয়েছে।

প্রশিক্ষণ, অস্ত্র আর যুদ্ধের ময়দানে সরাসরি মার্কিন ও ন্যাটো সেনাদের সহযোগিতা পেয়ে থাকে আফগান সেনারা। তাই মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হলে আফগানিস্তানের বর্তমান সরকার নিরাপত্তাহীনতায় পড়বে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে প্রেসিডেন্টের দফতর। এই সঙ্গে এখনই মার্কিন সেনা প্রত্যাহার না করার দাবি করছে তারা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের এ বছরের ক্রিসমাসের (২৫ ডিসেম্বর) আগেই আফগানিস্তান থেকে সর্বশেষ সেনাকে প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তালেবান এক টুইটে তার এই ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে।

তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, কাতারে এ বছরের শুরুর দিকে মার্কিন সরকার এবং তালেবানের মধ্যকার চুক্তির প্রতি সম্মান রেখে ট্রাম্প যে ঘোষণা দিয়েছেন তা অবশ্যই ইতিবাচক। এতে করে আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা সহজ হবে।

তিনি বলেন, তালেবান প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন এবং চুক্তি মেনে চলতে বদ্ধপরিকর। তালেবান চুক্তি লঙ্ঘণ বা আংশিক লঙ্ঘণ থেকে বিরত থাকবে। একই সঙ্গে আগামীতে আমেরিকাসহ সব দেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে কাজ করবে তালেবানে।

কিন্তু মার্কিন মদদপুষ্ট আফগান সরকারের শীর্ষ কূটনৈতিক আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ যিনি কাতারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন। তিনি বলেন, এভাবে আফগানিস্তান থেকে হঠাৎ করে আমেরিকাসহ সব সেনা প্রত্যাহার করে নিলে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। গৃহযুদ্ধের মোড় ঘুরে গিয়ে তালেবানের হাতে গোটা দেশের নিয়ন্ত্রণ চলে যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *