আধ্যাত্মিক রাজধানী থেকে গডফাদারদের সমূলে উৎপাটন করতে হবে: মেয়র আরিফ

সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গৃহবধূকে গণধর্ষণে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তি নিশ্চিতের দাবিতে মহানগর পুলিশ কার্যালয় অভিমুখে ‘পদযাত্রা’ কর্মসূচি পালন করেছেন সিলেট সিটি করপোরেশেনের মেয়র ও কাউন্সিলররা।

এর আগে রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নগর ভবনে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে কাউন্সিলরদের নিয়ে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানান তারা।

জরুরি সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিলেট সিটি করপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডে নাগরিক প্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, অভিভাবক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সমন্বয়ে এমন অন্যায়ের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার লক্ষ্যে সচেতনতামূলক কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভা শেষে নগর ভবন থেকে প্রতিবাদ কর্মসূচির অংশ হিসেবে সিলেট মহানগর পুলিশ কার্যালয় অভিমুখে পদযাত্রা করেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে কাউন্সিলররা।

এরপর নগরের উপশহরের মহানগর পুলিশ কার্যালয়ে গিয়ে পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও কাউন্সিলররা।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, আধ্যাত্মিক রাজধানী ও পবিত্র নগর সিলেটে এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা মহানগরবাসীর জন্য উদ্বেগজনক। এই নগরকে আমরা স্মার্ট পর্যটন নগর হিসেবে গড়ে তোলার জন্য কাজ করছি। কিন্তু এই নগরে একজন পর্যটক যদি এমন নিকৃষ্ট ঘটনার শিকার হন তবে আমরা জনপ্রতিনিধি হয়ে লজ্জিত না হয়ে পারি না।

তিনি আরও বলেন, এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয় সেজন্য দায়ীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। একইসাথে গডফাদারদের সমূলে উৎপাটন করতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর শান্তনু দত্ত সন্তু, কাউন্সিলর রেজাউল হাসান লোদী, কাউন্সিলর তৌফিক বকস, কাউন্সিলর ইলিয়াসুর রহমান, কাউন্সিলর সৈয়দ তৌফিকুল হাদী, কাউন্সিলর আফতাব হোসেন খান, কাউন্সিলর এবিএম উজ্জলুর রহমান, কাউন্সিলর মো. আব্দুর রকিব তুহিন, কাউন্সিলর মো. ছয়ফুল আমীন, কাউন্সিলর আব্দুল মুমিন, কাউন্সিলর তারেক উদ্দিন তাজ, কাউন্সিলর মোস্তাক আহমদ, কাউন্সিলর এসএম শওকত আমিন তৌহিদ, কাউন্সিলর আব্দুল মুহিত জাবেদ, সংরক্ষিত কাউন্সিলর শাহানারা বেগম, শাহানা বেগম শানু, মাসুদা সুলতানা, রেবেকা বেগম রেনু, কুলসুমা বেগম পপি ও নাজনিন আক্তার কণা।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন এক তরুণী। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি রয়েছেন ওই তরুণী। এঘটনায় ছাত্রলীগের ৬ নেতাকর্মীসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মামলার আসামিরা হল- এমসি কলেজ ছাত্রলীগের নেতা ও ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, মাহফুজুর রহমান মাছুম, এম সাইফুর রহমান, অর্জুন এবং বহিরাগত ছাত্রলীগ কর্মী রবিউল এবং তারেক আহমদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *