মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২

পাকিস্তানে বিনিয়োগ করতে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান

বাংলাদেশে নিযুক্ত পাকিস্তানের হাইকমিশনার ইমরান আহমেদ সিদ্দিকী বলেছেন, চায়না-পাকিস্তান ইকোনোমিক করিডোর (সিপিইসি) ব্যবহার করে স্বল্প সময় ও খরচে চীন, মধ্য এশিয়ার দেশ ও রাশিয়ায় পণ্য পরিবহন করা যাবে। পাকিস্তানে বিনিয়োগ করে বাংলাদেশি শিল্প উদ্যোক্তারা এই সুযোগ গ্রহণ করতে পারেন। তাই তিনি বাংলাদেশি শিল্প উদ্যোক্তাদের প্রতি পাকিস্তানে বিনিয়োগ করতে আহ্বান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) সভাপতি শামস মাহমুদ এর সঙ্গে সাক্ষাতকালে তিনি এই আহ্বান জানান।

বাংলাদেশের তথ্য প্রযুক্তি খাতের কথা আলাদা করে উল্লেখ করেন পাকিস্তানি দূত। তিনি বলেন, বাংলাদেশ তথ্য-প্রযুক্তি ও এ খাতসংশ্লিষ্ট সেবা খাতে বেশ দক্ষতা ও সফলতা অর্জন করছে‌। এ অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশের তথ্য-প্রযুক্তি নির্ভর প্রতিষ্ঠানগুলো পাকিস্তানে বিনিয়োগ করতে পারে।

এসময় ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য আরও সম্প্রসারণের যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। তবে এ লক্ষ্য অর্জনে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনায় বিদ্যমান প্রতিবন্ধকতাগুলো নিরসন হওয়া দরকার।

ডিসিসিআই সভাপতি পাকিস্তানের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশ থেকে পাট ও পাটজাত পণ্য, তথ্য-প্রযুক্তি সেবা, সিরামিক, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, কৃষিখাদ্য এবং আরও বেশি ওষুধ আমদানির আহ্বান জানান। দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্প্রসারণে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি দুই দেশের চেম্বারগুলোর মধ্যকার যোগাযোগ সংহত করার পাশাপাশি বাণিজ্য প্রতিনিধিদল প্রেরণ, বাণিজ্য মেলা, বিটুবি, রোড-শো আয়োজনেরও প্রস্তাব করেন।

ব্যবসায়ীদের স্বার্থে ভিসা প্রক্রিয়া সহজ করার উপরও জোর দেন তিনি।

পাকিস্তান হাইকমিশনারও তার দেশ থেকে শিল্পে ব্যবহৃত কাঁচামাল ও টেক্সটাইল পণ্য আমদানির আহ্বান জানান।

২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল প্রায় ৫৪ কোটি ৩৯ লাখ ডলার।

এর মধ্যে বাংলাদেশ রপ্তানি করে পাঁচ কোটি ৫ লাখ ৪০ হাজার ডলারের পণ্য। অন্যদিকে পাকিস্তান রপ্তানি করে ৪৯ কোটি ৩৩ লাখ ৬০ হাজার ডলারের পণ্য।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও টিবিএস

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img