মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২২

কুখ্যাত গুয়ান্তানামো বন্দীশালা বন্ধ করুন: ইলহাম ওমর

কিউবায় অবস্থিত আমেরিকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী গুয়ান্তানামো বে কারাগার বন্ধের জন্য মার্কিন সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির ডেমোক্র্যাট দল থেকে নির্বাচিত প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য ইলহান ওমর।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) আমেরিকার ‘টিন ভৌগ’ নামে একটি ম্যাগাজিনের মন্তব্য কলামে তিনি এ আহ্বান জানান।

ইলহান ওমর বলেন, বিশ বছর আগে এই দিনে বন্দীদেরকে কালো কাপড়ে মাথা ঢেকে কমলা রঙের স্যুট পরিয়ে কারাবন্দি হিসেবে কুখ্যাত গুয়ান্তানামো কারাগার চালু করা হয়। এরপর থেকে এই পর্যন্ত সেখানে বন্দীদের ওপর মারাত্মক ধরনের অবর্ণনীয় নির্যাতন চালানো হয়েছে। এখন সময় এসেছে এই কারাগার বন্ধ করার।

এজন্য মার্কিন জনগণকে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ওপর চাপ সৃষ্টি করার আহ্বান জানান ইলহান ওমর।

২০০১ সালে আমেরিকা তথাকথিত সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী লড়াইয়ের নামে বিশেষ করে মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বহু লোককে ধরে নিয়ে কুখ্যাত গুয়ান্তানামো কারাগারে বন্দী করে। তাদের বেশিরভাগই বিনাবিচারে সেখানে অবস্থান করছেন। নির্যাতনের প্রকার ও মাত্রা এতই বেশি যে এই কারাগারকে ‘মর্ত্যের নরক’ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। বিশ্বব্যাপী প্রতিবাদ সত্ত্বেও এই কারাগারটিকে অব্যাহতভাবে নির্যাতনের জন্য ব্যবহার করতে থাকায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে একে মার্কিনীদের ‘লজ্জা’ হিসাবে অভিহিত করা হয়েছে।

এই কারাগারটি ২০০২ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠা করা হয়। আইনের বৈধতা নিয়ে সংকট সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূ-খণ্ডের বাইরে কিউবার দক্ষিণ-পূর্ব পাশে ক্যারিবীয় সাগরে এই কারাগারটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৪ই জানুয়ারি ২০১২ তারিখে প্রকাশিত আল জাজিরা টেলেভিশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, ৮০০ জন বন্দীকে মুক্তি দেওয়ার পর এ কারাগারে বিভিন্ন দেশের ১৭১ জন বন্দী আটক আছে। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে এই বন্দীশালায় বিনা বিচারে আট বৎসর আটক থাকার পর ১৯৮ জনের মধ্যে ১৩০ জনেরও বেশি বন্দী নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছেন। এ পর্যন্ত মাত্র ৬ জন বন্দীকে বিচারের মাধ্যমে দোষী সাব্যস্ত করা সম্ভব হয়েছে।

গুয়ানতানামো কারাগার স্থাপনের পর সর্বপ্রথম ২০০২ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারিতে আফগানিস্তান থেকে তালেবানের একাধিক নেতাসহ ২০ জন বন্দীকে এখানে আনা হয়। পরবর্তীতে যাদের আনা হয় তাদের মধ্যে কেউ কেউ বিভিন্ন দেশের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তিতে লিপ্ত। কয়েকজন বন্দী ব্রিটেনের গোয়েন্দা সংস্থা এমআই-সিক্স, কানাডীয় গোয়েন্দা সংস্থা ও পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা গুপ্তচর হিসাবে কাজ করতো।

একজন বন্দী এই কারাগারকে ‘মর্ত্যের নরক’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, এই বন্দীশালায় নির্যাতনের প্রকৃতি মানুষের কল্পনার অতীত। তীব্র নির্যাতন এড়াতে বন্দীরা আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img