আওয়ামী লীগ সামনে আরও ভয়াবহতা নিয়ে আসবে: রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আজকে কারও কোনো নিরাপত্তা নেই। অবৈধ সরকার ও অনাচারের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসতে হবে। সিলেটের এমসি কলেজে নারী ধর্ষণের ঘটনায় প্রমাণিত হয় যেন আদিম যুগ ফিরে এসেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ‘শহীদ জিয়ার রাজনৈতিক দর্শন, ধর্মীয় মূল্যবোধ ও আজকের প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এ সভা হয়।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের আমলে সারা দেশে নারী নির্যাতনের কলঙ্কিত রূপ বিস্তার লাভ করেছে। আগামী বছর তারা আরও ভয়াবহতা নিয়ে আসবে। আজকে মানুষ আতঙ্কিত, বিচলিত-শঙ্কিত। যেখানে একটা সম্ভ্রমহানির বড় অপরাধ সংঘটিত হল, আর জানাজানি হল ৩২ দিন পর। তাহলে জাতি কি লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে এই বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছিলেন? এই পরিস্থিতি আর চলতে পারে না। সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যেতে হবে। প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

বেগমগঞ্জে নারী নির্যাতনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, দুষ্কৃতকারীরা এতই ভয়ঙ্কর যে বেগমগঞ্জের ওই নারী অভিযোগ করার পর্যন্ত সাহস পায়নি। উল্টো ভয়ে নিজের এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন। আর প্রশাসন এ ক্ষেত্রে নিশ্চুপ। তাহলে আজ কী ধরনের শাসক তৈরি করেছে শেখ হাসিনা। যেখানে সম্ভ্রমহানি একজন নারী থানায় গিয়ে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করতে ভয় পায়। বর্তমানে যে অবস্থা তৈরি হয়েছে, পাকিস্তান আমলেও ২৫ মার্চের থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত এমন পরিস্থিতি হয়েছে কিনা আমার জানা নেই।

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, আমরা রাস্তাঘাটে চলতে ভয় পাচ্ছি। এমনকি মেয়ে মানুষদের নিয়ে নিজের ঘরে থাকতেও ভয় পাচ্ছি। এমসি কলেজের এই নৃশংস ঘটনার পরে আবার সেই বেগমগঞ্জে নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটল। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন, বিশ্বের দিকে তাকিয়ে দেখেন কোথায় ধর্ষণ নাই। তথ্যমন্ত্রী বলছেন, বিএনপি আশ্রয়-প্রশ্রয় ধর্ষণ হচ্ছে। আওয়ামী লীগ সব সময় নিজেদের দায়ভার বিএনপির ওপর চাপানোর চেষ্ট করছে। শুধু তাই নয়, বর্তমান প্রশাসন দিয়ে বিরোধী দলকে দমন-পীড়ন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ দলটি লুটেরা, টাকা পাচারকারী ও নারীদের সম্ভ্রমহানিকারীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা হিসেবে পরিচিত হয়েছে।

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেন-মানুষের পাশে কেউ থাকে না শুধু আওয়ামী লীগ থাকে। দেশব্যাপী ধর্ষণ ও নির্যাতন হওয়া, আওয়ামী লীগ থাকার এটাই নমুনা। আওয়ামী লীগের প্রশাসন নির্যাতিতদের অভিযোগ নেয় না। কালকে আমরা একটা মিছিল করি, দেখবেন পুলিশ পেছন থেকে টপাটপ করে বিএনপির নেতাকর্মীকে কীভাবে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। এখানে তারা দারুণ নৈপুণ্য ও দক্ষতা দেখাচ্ছে। বিরোধী দলকে দমন করার জন্য ক্রসফায়ার দেয়ার জন্য এত দক্ষ যে এদের তুলনা হয় না।

ওলামা দলের আহ্বায়ক পিন্সিপাল মাওলানা শাহ্ নেছারুল হকের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব প্রিন্সিপাল মাওলানা নজরুল ইসলাম তালুকদারের সঞ্চলনায় আরও বক্তব্য দেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মো. রহমাতুল্লাহ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *